সদ্য সংবাদ

 কালকিনিতে ১৩১ বাড়িতে লাল নিশানা লাগিয়ে দিলো প্রশাসন  করোনার বিরুদ্ধে সাইফুল ইসলাম শান্তির অভিযান শুরু  রংপুরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  নরসিংদীতে হোম কোয়ারেন্টিনে ২০৫ প্রবাসী  কালকিনির বিভিন্ন হাট-বাজারে হাতধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপন  পঞ্চগড়ে সাড়ে ৭শ’ পিস হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ  রংপুরে করোনা প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  পার্বতীপুরে শুধুমাত্র পূজার মধ্যদিয়ে ঐতিহ্যবাহী ‘বাহা পরব’ উদযাপিত  রংপুরে এরশাদের জন্মদিন পালিত  বিএফআরআইতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস পালিত  করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে পঞ্চগড়ে জরুরি বৈঠক  আতঙ্কিত না হয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে : সাদ এরশাদ এমপি  কালকিনিতে দুই প্রবাসীকে আর্থিক জরিমানা  পঞ্চগড়ে সীমিত পরিসরে মুজিববর্ষ পালিত  রংপুরে ৮টি রাস্তা পাকাকরণ ও ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু  কালকিনিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে মুজিব উতসব পালিত  কালিয়াকৈর প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  রংপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে কীটনাশক মুক্ত সবজির চাষ!

আইনের নীতিনির্ধারকরাই আইন মানে না দেশ কীভাবে চলবে?

 Sun, Jun 12, 2016 8:47 AM
আইনের নীতিনির্ধারকরাই আইন মানে না দেশ কীভাবে চলবে?

ডেস্ক রিপোর্ট ::: ‘গাড়িতে নম্বর প্লেট না থাকলেও কোন সমস্যা নেই’ বলেছেন সংসদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। তাঁর এমন বক্তব্যের প্রেক্ষিতে বিশিষ্ট ¯’পতি মোবাশ্বের হোসেন বলেন, আমাদের দেশের নীতি নির্ধারকরাই যদি এমন কথা বলেন তাহলে দেশ কীভাবে চলবে?

শুক্রবার ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের ‘ডেটলাইন ঢাকা’ অনুষ্ঠানে তিনি আরও বলেন, সংসদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত আরও বলেছেন যে, দেশ ডিজিটাল হওয়ার পরে গাড়িতে নম্বর প্লেট লাগাতে হবে। কিš‘ বিআরটিআই এর প্রধানের মতে, কোনো অব¯’াতেই নম্বর প্লেট ছাড়া রাস্তায় গাড়ি নামানো যাবে না, সেটা সরকারি হোক আর বেসরকারি হোক। প্রয়োজনে নম্বর প্লেট হাতে লিখেই গাড়ি রাস্তায় নামাতে হবে।

প্রায়ই বলা হয়, আমাদের দেশের মানুষ আইন মানেন না। কিš‘ আমার কথা হলো কয়েক লাখ বাংলাদেশি বিদেশে কর্মরত আছেন। কিš‘ কখনই এমন শোনা যায়নি যে, ট্রাফিক আইন না মানার কারণে এক বাংলাদেশিকে জেলে প্রেরণ করা হয়েছে। তাহলে তারা যখন বিদেশে সকল আইন মেনে চলতে পারে তখন বাংলাদেশে যারা আছে তারা পারবে না কেন? তার মানে আমি মনে করি আমাদের দেশে আইন প্রয়োগে সমস্যা আছে।

মোবাশ্বের হোসেন বলেন, আমরা বিশ্লেষণ করে দেখেছি , আমাদের দেশের জ্ঞানী-গুণী ব্যক্তিরাই আইন মানে না। উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, চিফ জাস্টিসসহ আরও অনেক মান্যগণ্য ব্যক্তিবর্গ ঢাকায় বসবাস করেন। কিš‘ প্রতিদিন দেখা যায় চিফ জাস্টিসের বাসার সামনে দিয়ে, মন্ত্রী, এমপি, পুলিশের কর্মকর্তাসহ অনেকেই চিফ জাস্টিসকে বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে উল্টো পথে চলে যায়।

দেশের মান্যগণ্যরাই যখন প্রতিনিয়তই এই অন্যায় কাজটি করতে থাকেন, সেখানে বাংলাদেশের সমগ্র মানুষ কী কারণে এই আইন মানবে, যা আমি কিছুতেই বুঝে উঠতে পারিনা। আমি মনে করি আমাদের এই যায়গা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। আইনকে সর্বক্ষেত্রে সুষ্ঠুভাবে প্রয়োগ করতে হবে। অর্থাৎ আমার সন্তানও যদি অন্যায় করে তাহলে তারও ক্ষমা নেই, এমন ভাবে আইনকে কঠোর করতে হবে।

বিশিষ্ট ¯’পতি মোবাশ্বের হোসেন বলেন, বাংলাদেশের মানুষ প্রচ- সহনশীল। আমরা আইন করলে আইন মানি। তার বড় প্রমাণ হল, ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহারের না করার করণে জন্য পুলিশ সাধারণ জনগণকে তিন দিন ফোর্স করেছিলেন। তার পরে দেখা যায় লাইন দিয়ে সবাই ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহার করা শুরু করেছে। সুতরাং বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ আইনকে প্রচ- রকমের শ্রদ্ধা করে। এই শ্রদ্ধাটা অর্জন করা পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে সহজ কাজ বাংলাদেশের জনগণের ক্ষেত্রে।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন