সদ্য সংবাদ

 কালকিনিতে ১৩১ বাড়িতে লাল নিশানা লাগিয়ে দিলো প্রশাসন  করোনার বিরুদ্ধে সাইফুল ইসলাম শান্তির অভিযান শুরু  রংপুরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  নরসিংদীতে হোম কোয়ারেন্টিনে ২০৫ প্রবাসী  কালকিনির বিভিন্ন হাট-বাজারে হাতধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপন  পঞ্চগড়ে সাড়ে ৭শ’ পিস হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ  রংপুরে করোনা প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  পার্বতীপুরে শুধুমাত্র পূজার মধ্যদিয়ে ঐতিহ্যবাহী ‘বাহা পরব’ উদযাপিত  রংপুরে এরশাদের জন্মদিন পালিত  বিএফআরআইতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস পালিত  করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে পঞ্চগড়ে জরুরি বৈঠক  আতঙ্কিত না হয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে : সাদ এরশাদ এমপি  কালকিনিতে দুই প্রবাসীকে আর্থিক জরিমানা  পঞ্চগড়ে সীমিত পরিসরে মুজিববর্ষ পালিত  রংপুরে ৮টি রাস্তা পাকাকরণ ও ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু  কালকিনিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে মুজিব উতসব পালিত  কালিয়াকৈর প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  রংপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে কীটনাশক মুক্ত সবজির চাষ!

কাশ্মির পরি¯ি’তিতে নিশ্চুপ তারকাদের প্রতি বার্তা

 Wed, Jul 27, 2016 1:28 AM
কাশ্মির পরি¯ি’তিতে নিশ্চুপ তারকাদের প্রতি বার্তা

এশিয়াখবর২৪.বিনোদন ডেস্ক:: ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মিরে ৮ জুলাই অনন্তনাগের কোকেরনাগ এলাকায় সেনা ও পুলিশের বিশেষ বাহিনীর যৌথ অভিযানে হিজবুল কমান্ডার বুরহান ওয়ানিসহ তিন হিজবুল যোদ্ধা নিহত হন।

 বুরহানের নিহতের খবর ছড়িয়ে পড়লে কাশ্মির জুড়ে উত্তেজনা বাড়তে থাকে। কাশ্মিরের ¯’ানীয় সংবাদমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী চলমান সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৭ জনে। প্রতিদিনই সেখানে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছে জনগণ। নিরস্ত্র জনতাকে ছত্রভঙ্গ করার নামে সেখানে চলছে ছররা গুলির অভিযান। সামরিক ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী এটিকে প্রাণঘাতী নয় বলে দাবি করলেও, গত কয়েকদিনে কাশ্মীরে ঘটে যাওয়া বিক্ষোভ এবং সহিংসতায় অসংখ্য কাশ্মীরবাসী ছররা গুলির আঘাত নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।  এঁদের মধ্যে শিশু-কিশোররাও রয়েছে, যারা কোনো বিক্ষোভ-¯’লে উপ¯ি’তই ছিল না।  ডাক্তাররা বলছেন, এদের মধ্যে অনেকেই চোখে গুলির ক্ষতের কারণে চিরতরে দৃষ্টিশক্তি হারাবেন।

কাশ্মিরে চলমান সেই অভিযানে ব্যবহৃদ ছররা গুলির ভয়াবহতার দিকে বিশ্ববাসীর দৃষ্টি ফেরাতে শুর“ হয়েছে এক অভিনব প্রচারণা। বিভিন্ন গুর“ত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্বের ছবি ও তাদের প্রতি বার্তা দিয়ে কাশ্মিরে ব্যবহৃত ছররা গুলির ভয়াবহতা প্রকাশ করা হ”েছ ওই প্রচারণায়। ‘নেভার ফর্গেট পাকিস্তান’ শীর্ষক ফেসবুক পাতায় শেয়ার হওয়া ‘হোয়াট ইফ ইউ নিউ দ্য ভিক্টিম?’ নামের ওই প্রচারণামূলক অ্যালবামে ভারতীয় প্রধানমন্ত্র্রী নরেন্দ্র মোদি, কংগ্রেস নেতা সোনিয়া গান্ধী ছাড়াও বার্তা দেওয়া হয়েছে অভিনেতা-অভিনেত্রী শাহর“খ খান, অমিতাভ ব”চন, ঐশ্বরিয়া রাই ব”চন, আলিয়া ভাট, সাইফ আলি খান, কাজল ও ঋত্বিক রোশনের প্রতি।

‘হোয়াট ইফ ইউ নিউ দ্য ভিক্টিম’ (ভুক্তভোগী যদি তুমি অথবা তোমার কেউ হতো) শীর্ষক শীর্ষক ওই প্রচারণায় ভারতের বিভিন্ন তারকার প্রতি লেখা চিঠিতে কল্পিতভাবে ওই তারকার গুলিবিদ্ধ হওয়ার কথা বলা হয়। বোঝাতে চেষ্টা করা হয় কাশ্মিরবাসীর বাস্তবতা। বার্তারর সঙ্গের ছবিতে কম্পিউটার গ্রাফিক্সের মাধ্যমে তারকাদের ছররা গুলিতে বিদ্ধ হওয়ার বিভীষিকা ফুটিয়ে তোলা হয়।

ভারতীয় অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়াকে লেখা হয় নাসিমা জান নামের এক কাশ্মিরি মায়ের নামে। তিনি লেখেন,

প্রিয় ঐশ্বরিয়া,

তুমি তোমার চার বছরের মেয়ে আরাধ্যকে বাঁচাতে গিয়ে আহত হয়েছ বলে জানতে পেরেছি। কাশ্মিরের জীবনে এমন অনেক দেখেছি কিš‘ এখনো বিশ্বাস করতে কষ্ট হয়, তারা একটি চার বছরের শিশুকেও গুলি করতে পারে। কিš‘ তারা আমার সন্তানকে আঘাত করেছে।

জুহরা এখনো মনে করে সে পুলিশের আতশবাজির আঘাতে আহত হয়েছে। সে এতই ছোট্ট যে এখনো গুলি আর বোমার অর্থ বোঝে না, বোঝে না কেন নিরস্ত্র মানুষের ওপর এসব প্রয়োগ করা হয়। ভারতের সকল মায়েরা যদি একে অন্যের সন্তানের নিরাপত্তার জন্য আওয়াজ তোলে, তবেই হয়তো বাঁচাতে পারবে নিজের সন্তানকেও।

নাসিমা জান

কাশ্মির

ভারতীয় চল”িচত্রের আরেক অভিনেত্রী কাজলকে লেখা হয়,

প্রিয় কাজল

আমি দুঃখিত তোমাকে দেখতে আসতে পারলাম না। আমার নয় বছরের মেয়ে তামান্না পাশ থেকে সরলেই ভয় পেয়ে যায়। হাসপাতালের বিছানাতেও সে বিপন্ন বোধ করতে থাকে।

ওকেই বা দোষ দিই কিভাবে! ও ছিলো রান্নাঘরে, নিজের বাড়ির নিরাপত্তার মধ্যে।কিš‘ একটা পালেট ছুটে এসে বিঁধে গেলো তার চোখে। কাশ্মির পুলিশের গুলি ছুড়তে কোন কারণ লাগে না, লাগে শুধু একটা লক্ষ্যবস্তু। তারা একটি নয় বছরের শিশুকে পেলেও গুলি চালিয়ে দেয়।

আশা করি তুমি দ্র“ত সেরে উঠবে আর দুনিয়াকে জানাতে পারবে কাশ্মিরে আসলেই কী ঘটছে। একজন মা হিসেবে তুমি নিশ্চয়ই আমার বেদনাটুকুও বুঝতে পারো।

শামীমা

কাশ্মির

একই ভাবে অভিনেতা ঋত্বিককে লেখা হয়,

প্রিয় ঋত্বিক ভাই,

আশা করি তুমি দ্র“ত সু¯’ হয়ে যাবে। তোমাকে মিশন কাশ্মিরে দেখেছি, তাই ভেবেছি বলিউডে আর কেউ না হোক তুমি অন্তত কাশ্মিরিদের ওপর চালানো নৃশংসতা আর তাদের যন্ত্রণা বুঝতে পারবে।

তোমার মতো আমার চিকিৎসার জন্য কোন তহবিল নেই, কয়েক বছর আগে পৃথিবী ছেড়ে গেছেন আমার বাবা। এ বছর মে মাস থেকে আমার শরীরে ৪০ টির বেশি পেলেট বিঁধে আছে। প্রাণঘাতী নয় বলা হয় যে অস্ত্রকে, তাই থেকে।

আমার এখন ১৩ বছর চলছে, আমি শিগগির বর হয়ে যেতে চাই আর আমার ভাইয়াকে সংসার চালাতে সাহায্য করতে চাই। অথচ এখন আমার বাড়ির লোকেই আমার চিকিৎসা নিয়ে উদ্বেগে রয়েছে।আমার মনে হয় তুমি যদি বলতে আমাদের ওপর কী চলছে তাহলে হয়তো আমরা একটা স্বাভাবিক জীবন ফিরে পেতাম।

ইমাদ আহমেদ

কাশ্মির

চিঠি লেখা হয়েছে বলিউডের সবচেয়ে বড় তারকা শাহর“খ খানকেও। শাহর“খের বার্তায় লেখা হয়,

প্রিয় শাহর“খ

ভারতীয় সেনাবাহিনী তোমার সঙ্গে যা করেছে তার চেয়ে দুর্ভাগ্যের আর কিছু হয় না। তুমি তো বিক্ষোভকারীদের মধ্যে ছিলেই না। কিš‘ আর্মড ফোর্সেস স্পেশাল পাওয়ার অ্যাক্ট এভাবেই কাজ করে। তাদের সন্দেহভাজন যে কাউকেই গুলি করার এখতিয়ার দেওয়া হয়েছে।

তোমার পরিবারের প্রতি আমার সহমর্মিতা জেনো। আমার ভাই হামিদের সঙ্গেও একই রকম নৃশংসতান ঘটেছে।সে সারাদিন স্কুলে ছিলো, স্কুল শেষে পড়তে যা”িছলো। আমরা শুনলাম সে পেলেটে আহত হয়েছে।কিš‘ তাকে দেখতে গিয়ে আর চিনতে পারিনি তার মুখ। সে এখন ভয়াবহ যন্ত্রণাড় মধ্য দিয়ে যা”েছ, আর আমরা তাকে বোঝানোর চেষ্টা করছি কাশ্মিরে যে কারো সঙ্গে এমনটা হতেই পারে।আশা করি তুমি এর পর থেকে কোন সেনা কর্মকর্তার ভূমিকায় অভিনয়ের সুযোগ পেলে কাশ্মিরের বিষয়টি উত্থাপন করার সাহস দেখাতে পারবে।

জুনাইদ নাজির

কাশ্মির

ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে লেখেন কাশ্মিরের ক্রিকেটার সাহিল জহুর। তিনি লেখেন,

প্রিয় বিরাট

আমিও ক্রিকেট প্র্যাকটিস থেকে ফেরার সময় সেনাবাহিনীর গুলিতে আহত হয়েছি। আমার বাম চোখে ভয়াবহ আঘাত লেগেছে। অথচ ভারত আমাদের আশ্বস্ত করেছিলো, বলেছিলো ভয়ের কিছু নেই। ভারতের সেনাবাহিনী জানিয়েছিলো, এই অস্ত্র প্রাণঘাতী নয়।

আমার জন্য বলার কেউ নেই, কাশ্মিরি হিসেবে আমার ধৈর্য ধরে দৃঢ় থাকা ছাড়া আর কিছুই করার নেই। আশা করি তুমিও শক্ত থাকবে আর দ্র“ত সেরে উঠবে। আমরা দু’জনের কেউি হয়তো বাকি জীবনে আর কখনই আমাদের দিকে ছুটে আসা বল দেখতে পাবো না, কিš‘ ভারতের সেনাবাহিনী যেমনটা আশ্বস্ত করেছে, অন্তত বেঁচে তো থাকবো।

সাহিল জহুর

কাশ্মির

উল্লেখ্য, সোমবার কাশ্মিরে ‘পেলেট গান’ বা ছররা গুলি চালানো বন্দুক ব্যবহার বন্ধের আদেশ দিয়েছে জম্মু-কাশ্মির হাইকোর্ট। আদালত বলেছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ভিড় নিয়ন্ত্রণ করতে পেলেট গানের ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়া উচিত। এক জনস্বার্থ মামলার শুনানিতে সমন্বিত বেঞ্চ জানায়, ‘কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লোকসভায় বলেছেন, পেলেট গানের বিকল্প খুঁজতে একটি বিশেষজ্ঞ দল গঠন করা হবে। পেলেট গানের ব্যবহার বন্ধ করতে এই বিবৃতিই যথেষ্ট হওয়া উচিত।’   বাংলা ট্রিবিউন


Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন