সদ্য সংবাদ

  করোনায় পুলিশের ‘বীরত্বগাঁথা’ নিয়ে বই  মিয়ানমার থেকে এলো ২০ টন পেঁয়াজ  আড়াইহাজারে গাঁজার চাষ, দুই সহোদর আটক  এই সরকারকে সরাতে হবে: মির্জা ফখরুল   ইউএনও ওয়াহিদাকে ওএসডি, স্বামীকে বদলি   মসজিদে বিস্ফোরণ: তিতাসের চার প্রকৌশলীসহ ৮ জন রিমান্ডে  বিশ্বে ভয়ংকর দুর্ভিক্ষ আসছে, ক্ষুধায় মরবে ৩ কোটি মানুষ!  আল্লামা শফীর জানাজায় জনতার ঢল, লাখো মানুষের চোখে পানি  মসজিদ বিস্ফোরণে ঘটনায় তিতাসের ৮ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি।  ইউএনও ওয়াহিদার বাসায় টাকা ছিল ৪০ লাখ, সেই মালি নেয় ৫০ হাজার   ‘তিশা প্লাস’ বাসের দরজা-জানালা বন্ধ করে তরুণীকে গণধর্ষণ  'ঊর্মিলাকে পর্ন অভিনেত্রী' বললেন কঙ্গনা  যে যাই বলুক, আসলে মানুষ‌‌ পুলিশকে ভালোবাসে   আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে কাজ করবেন, সরকারি কর্মচারীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী  ট্রাম্পের নারী কেলেংকারি ফাঁস, মুখ খুললেন মডেল  দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করার চেষ্টা করছে ভারত : জাফরুল্লাহ  তিতাস-ডিপিডিসি ও মসজিদ কমিটি দায়ী: প্রশাসনের তদন্ত প্রতিবেদন  তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কে সীমাহীন র্দূভোগ:দেখার কেউ নেই   মসজিদে অগ্নিকাণ্ডে নিহত পরিবারের মাঝে জেলা আ:লীগের আর্থিক সহায়তা প্রদান   ধর্ষণ মামলায় শিল্পপতি ছেলের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

জঙ্গিরা কি অপ্রতিরোধ্য?

তিন দিনে তিন খুন

 Thu, Jun 9, 2016 7:09 AM
জঙ্গিরা কি অপ্রতিরোধ্য?

সোহেল আদি: চট্টগ্রামে পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু এবং নাটোরে খ্রিস্টান ব্যবসায়ী সুনীল গোমেজ হত্যাকাণ্ডের একদিন পরই ঝিনাইদহে এক হিন্দু পুরোহিতকে মোটর সাইকেল আরোহীরা গলা কেটে হত্যা করেছে।

পুরোহিত হত্যার দায় স্বীকার করেছে জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস)। মঙ্গলবার দুপুরে বিতর্কিত ওয়েবসাইট ‘সাইট ইন্টিলিজেন্স’-এই খবর প্রকাশ করে। সেখানে বলা হয়, আইএসের সংবাদ সংস্থা ‘আমাক’-এ এই হত্যার দায় স্বীকার করেছে। এদিকে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিন জঙ্গি নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার ভোররাতে ঢাকার পল্লবীতে এবং রাজশাহীর গোদাগাড়ির ফরাদপুর চাপড়া গ্রামে এ ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়। ঢাকায় নিহত দু’জনের নাম-পরিচয় জানা না গেলেও রাজশাহীতে নিহত জামাল উদ্দিন চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার কালীনগর লক্ষ্মীপুর গ্রামের তাবজুল হকের ছেলে বলে জানা যায়। পুলিশ বলছে, জেএমবির সদস্য জামাল গত বছর বাগমারার সৈয়দপুর চকপাড়া আহমদিয়া মসজিদে বোমা বিস্ফোরণে নিহত যুবককে সেখানে বোমা নিতে সহযোগিতা করেছিলেন। গত ২৫ ডিসেম্বর ওই ঘটনায় নিহতের পরিচয় না পাওয়ায় তার লাশ দাফন করেছিল আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম। গোদাগাড়ী থানার ওসি ফরহাদ হোসেন বলেন, সোমবার জামালকে আটকের পর মসজিদে বোমায় নিহত ওই যুবকের পরিচয় জানতে পেরেছেন তারা। তিনি জালালের পাশের গ্রাম রূপনগরের আবু সালেকের ছেলে তারেক আজিজ। তারেকের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তার মা তাসলিমাকে আটক করা হয়েছে এবং তিনি ওই ঘটনায় নিহত যুবক তার ছেলে হওয়ার কথা স্বীকার করেছেন বলে জানান ওসি ফরহাদ। এদিকে ভোর ৪টার দিকে পল্লবীর কালশী এলাকার লোহার ব্রিজের পাশে গোলাগুলিতে দুই ‘জেএমবি সদস্য’ নিহত হন বলে পল্লবী থানার এসআই আনোয়ার হোসেন জানান। মহানগর পুলিশের উপ কমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান বলেন, “নিহত দুইজন উত্তরবঙ্গ থেকে আসা জেএমবি নেতা। পুলিশ তাদের আসল পরিচয় জানার চেষ্টা করছে।” ঝিনাইদহে নিহত পুরোহিতের নাম অনন্ত গোপাল গাঙ্গুলি। পুলিশ জানিয়েছে, অনন্ত গাঙ্গুলি ঝিনাইদহ সদর উপজেলার নলডাঙ্গা মন্দিরের পুরোহিত ছিলেন। সকাল নয়টার দিকে তিনি সদরের করাতিপাড়ার বাড়ি থেকে সাইকেলে করে মন্দিরে যাওয়ার সময় মহিষাডাঙ্গা গ্রামে মাঠের ভেতরে তার ওপর হামলা চালানো হয়। সহকারি পুলিশ সুপার (এসএসপি) গোপীনাথ কানজিলাল জানান, ‘‘মোটর সাইকেলে করে আসা তিন যুবক পুরোহিতের ওপর হামলা চালায়। তারা প্রথমে বাঁশ দিয়ে তার মাথায় আঘাত করে, তারপর তাকে কুপিয়ে ও জবাই করে মৃত্যু নিশ্চিত করে। হত্যার পর দুর্বৃত্তরা মোটর সাইকেলে করে চলে যায়।” এএসপি জানান, ‘‘সাম্প্রতিক সময়ের বিভিন্ন হত্যাকাণ্ডের ধরনের সঙ্গে পুরোহিত হত্যার মিল রয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের পিছনেও জঙ্গিদের হাত থাকতে পারে বলে সন্দেহ করছি।” চলতি বছরের জানুয়ারিতে এই ঝিনাইদহ সদরেই বালেখাল বাজারে সমির আলি নামের এক হোমিওপ্যাথ চিকিৎসককে হত্যা করা হয়। ধর্মান্তরিত হওয়া এবং খ্রিস্টান ধর্ম প্রচারের অভিযোগে তাকে হত্যা করা হয়। আইএস তাকে হত্যার দায় স্বীকার করে। গত বছরের জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত সারা দেশে একই কায়দায় ৪৬টি হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে মোট ৪৮ জন নিহত হন। গত আড়াই মাসে হত্যা করা হলো ১১ জনকে। এসব হামলার অনেকগুলোরই দায় স্বীকার করেছে আইএস ও আল-কায়েদার ভারতীয় উপমহাদেশের কথিত বাংলাদেশ শাখা আনসার আল ইসলাম (এবিটি)। তবে সরকার বাংলাদেশে আইএস-এর অস্তিত্ব বরাবর অস্বীকার করে আসছে। এদিকে পুলিশ এ সব ঘটনার তদন্ত এবং অপরাধীদের আটকে উল্লেখ করার মতো কোনো সাফল্য দেখাতে না পারলেও তারেক হোসেন মিলু ওরফে ইসমাইল এবং সুলতান মাহমুদ ওরফে রানা ওরফে কামাল নামে দু’জন ‘জঙ্গি নেতা’ ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে। ঢাকার পল্লবি এলাকায় মঙ্গলবার ভোররাতে ‘কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম’ (সিটিটিসি) ইউনিটের সদস্যদের সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধে তারা নিহত হয় বলে সিসিটিসি প্রধান ডিআইজি মনিরুল ইসলাম দাবি করেছেন। এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘‘নিহত তারেক হোসেন মিলু ওরফে ইসমাইল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক অধ্যাপক রেজাউল করিমকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। ওই ঘটনায় পরিকল্পনার নেতৃত্বে ছিলেন তিনি। বন্দুকযুদ্ধে নিহত আরেকজন সুলতান মাহমুদ ওরফে রানা, ওরফে কামাল বগুড়া শিয়া মসজিদে গুলি চালিয়ে ১ জনকে হত্যা করে। এরা দু’জনই জেএমবির সদস্য।” এদিকে গত দুই মাসে এই ধরণের হত্যাকাণ্ডের জন্য দায়ী সহিংস গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে চূড়ান্ত ব্যবস্থা নিতে বাংলাদেশ সরকার ব্যর্থ হয়েছে বলে দাবি করেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল (এআই)। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে এক ধরনের দায়মুক্তির পরিবেশ তৈরি হয়েছে বলে মনে করছে সংগঠনটি। মঙ্গলবার অ্যামনেস্টির ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে সংস্থার দণি এশিয়া বিষয়ক আঞ্চলিক পরিচালক চম্পা প্যাটেল দাবি করেন, ‘‘বাংলাদেশ সরকারের কাছে অসহিষ্ণুতার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার দাবি জানানো হলেও তারা তেমন সাড়া দিচ্ছে না। ধারাবাহিক এসব হত্যাকাণ্ড বন্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার পরিবর্তে তারা নিজেদেরই আত্মরার কথা বলছেন। মাঝে মধ্যে হুমকির শিকার হওয়াদের ওপর দোষ চাপিয়ে দিচ্ছেন, যা মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং ধর্মীয় অধিকারের সুরায় আন্তর্জাতিক রীতি-নীতির লঙ্ঘন।” ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধ বিজ্ঞান এবং আইনের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান বলেন, ‘‘এটা স্পষ্ট যে জঙ্গিরা তাদের টার্গেট এরিয়া বিস্তৃত করছে। তারা অপ্রতিরোধ্য এটা বলা না গেলেও তারা যে চরম আতঙ্ক সৃষ্টি করতে পেরেছে তা নিশ্চিত।” তিনি বলেন, ‘‘তাদের হত্যার ধরণ এবং টার্গেটের বিস্তৃতি দেখে মনে হচ্ছে তারা সহসাই থামবে না। তারা নতুন নতুন টার্গেটে হামলা করবে। তারা হামলার নতুন নতুন টার্গেট দিয়ে জানিয়ে দিচ্ছে কেউই নিরাপদ নয়, তাদের টার্গেটের বাইরে কেউ নেই।” অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান আরো বলেন, ‘‘সরকারের উচিত হবে এই ভয়াবহ পরিস্থিতি স্বীকার করে নেয়া। তারপর গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় এর সমাধান খোঁজা। আর অপরাধীদের আইনের আওতায় আনাটা জরুরি, তা না হলে ভবিষ্যতে পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হতে পারে।” 

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন