সদ্য সংবাদ

  নারায়ণগঞ্জে বেড়েছে হত্যাকান্ড, প্রশ্ন উঠেছে নিরাপত্তা নিয়ে   কণ্ঠশিল্পী আসিফের বিরুদ্ধে গায়িকা মুন্নির মামলা   বদলিতে তদবির কালচার চিরতরে বিদায় করতে চান আই‌জি‌পি   জমি ও ফ্লাটের নিবন্ধন ফি কমলো  আকাশ ডিটিএইচ সংযোগে এক হাজার টাকা মূল্যছাড়  তাপসীর পান্নুর বিরুদ্ধে দলবাজির অভিযোগ করলেন কঙ্গনা  ইরানের পারমাণবিক স্থাপনায় অগ্নিকাণ্ডের নেপথ্যে সাইবার হামলা?  ঐতিহাসিক সোনা বিবি সড়কের নাম এখন আলী আহাম্মদ চুনকা সড়ক  শূকর থেকে পাওয়া ভাইরাস ‘জিফোর’ নিয়ে যা বলল চীন  করোনা টেস্ট ফি বাতিলসহ পানি-গ্যাস-বিদ্যুতের দাম কমাতে হবে: মান্না   ইন্টারনেট বন্ধের হুমকি দিল আইএসপিএবি   ভুতুড়ে বিলে ব্যবস্থা নিচ্ছে ডিপিডিসি, ৪ জন বহিষ্কার   ক্ষুদ্রঋণ: ৩ হাজার কোটির মধ্যে আড়াই মাসে মাত্র ২০ কোটি টাকা বিতরণ   ট্রাম্পকে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা  সারাদেশে করোনায় আক্রান্ত ১১৩০২ পুলিশ সদস্য   দেবীগঞ্জে ভারি বর্ষণ পানি তোড়ে ভেসে গেছে সড়ক  পুরনো এক্স-রে মেশিনে নতুন রঙ: দুর্নীতি ধরলেন সংসদ সদস্য  নবীনগরে চাচাতো ভাইয়ের ঘুষির আঘাতে বড় ভাই নিহত  সাঘাটায় নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতকরণে ওয়ার্কসপ অনুষ্ঠিত  প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ১২ সদস্যের ডেল্টা কাউন্সিল গঠন

ঝিনাইদহে বিরোধপুর্ন জমিতে অবকাঠামো নির্মান !

 Mon, May 16, 2016 10:42 AM
ঝিনাইদহে বিরোধপুর্ন জমিতে অবকাঠামো নির্মান !

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহ,: ঝিনাইদহ শহরের ব্যাপারীপাড়ায় বিরোধপুর্ন একটি জমিতে রাতের আধারে পাকা ভবন তৈরীর অভিযোগ উঠেছে। ঝিনাইদহ পৌরসভার কোন প্ল্যান ছাড়াই এই ভবন তৈরী করছেন ব্যাপারী পাড়ার আজিজার রহমানের ছেলে রফিকুল ইসলাম ডাবলু।

এই জমিতে আদালতের তখন স্থিতি অবস্থা জারী ছিল। অভিযোগ পাওয়া গেছে ঝিনাইদহ শহরের গণি মস্তান সড়কের ৩২৪ নং দাগে ১৮ শতক জমি আছে। এই জমির মালিক ঝিনাইদহ শহরের ব্যাপারীপাড়ার নজের আলী দফাদারের ছেলে আনিছুর রহমান। পরবর্তী এই জমির মালিকানা দাবী করে মামলা করেন রফিকুল ইসলাম ডাবলু। মামলাটি এখনো আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।
আইনজীবীদের অভিমত আদালতের অনুমতি ব্যাতিত বিচারাধীন মামলার জমিতে কোন অবকাঠামো নির্মান করা যায় না। তারপরও ঝিনাইদহ পৌরসভা থেকে কোন প্ল্যান পাস করা হয়নি। ঝিনাইদহ পৌরসভার জরিপ বিভাগ সুত্রে জানা গেছে, গণি মস্তান সড়কের ৩২৪ নং দাগে ১৮ শতক জমির কোন প্ল্যান করা হয়নি। পৌরসভার জরিপ বিভাগের প্রধান হাবিবুর রহমান ও সার্ভেয়ার রিপন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
ব্যাপারীপাড়ার আনিছুর রহমান জানান, জমির প্রকৃত মালিক আমি। এই জমির কারণে রফিকুল ইসলাম ১৯৯৮ আমার নামে ডাকাতি মামলা করে। অথচ ওই জমিতে তখন কোন বাড়ি ঘর ছিল না। সে সময় ওই জমিতি বাড়িঘরের গায়েবী অস্তিত্ব তুলে ডাকাতির মামলা সাজানো হয়। আমার মতো বৃদ্ধ মানুষ তার বাড়িতে আমি ডাকাতি করেছি। আমি সুবিচার চাই। বিষয়টি নিয়ে রফিকুল ইসলামের বক্তব্য জানতে তার অফিস ও বিরোধপুর্ন জমিতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। তার ম্যানেজারও মোবাইলে কথা বলার জন্য নাম্বার দিতে রাজি হয়নি।


Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন