সদ্য সংবাদ

  খুনি নূর হোসেনের ভাতিজা বাদল ভালো, মেয়র আইভী ব্যর্থ!   সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতারে অনুমতির বিধান কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট  বাড়ি ভারতে, অফিস করেন সিলেটে  আবারও ষড়যন্ত্র হচ্ছে: ওবায়দুল কাদের   ই-কমার্সের প্রতারনায় ভুক্তভোগী বাণিজ্যমন্ত্রী  সাবেক প্রতিমন্ত্রী মান্নান খান ও তার স্ত্রীর বিচার শুরু   ১০ হাজার ৫০০ শ্রমিককে ভিসা দেবে যুক্তরাজ্য  দেবীগঞ্জে বাসর রাতে পাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু  ‘চুনকা কুটির নয়, আইভীর হোয়াইট ওয়াশের জ্বালা বিরোধী পক্ষ  বিয়ের পর আমাদের বন্ধুত্ব গাঢ় হচ্ছে: মাহি  বাংলাদেশে কেউ ভালো নেই : মির্জা ফখরুল  টিকা প্রয়োগেই কয়েক হাজার কোটি টাকা ব্যয় হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  টানা তৃতীয়বার জয়লাভ করলেন জাস্টিন ট্রুডো   আটোয়ারীতে ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক  ১১ লাখ টাকা ও হেরোইনসহ ৫মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে না:গঞ্জ ডিবি  প্যারিস চুক্তির কঠোর প্রয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর   সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের চিঠির উৎপত্তি কোথায় সেটাও দেখছি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  সরকার থেকে সাংবাদিকরাও রেহাই পাচ্ছেন না: ফখরুল   ৯০ দিনের মিশন শেষে পৃথিবীতে ফিরেছেন চীনা নভোচারীরা   দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার

নারায়ণগঞ্জে সোনালী ব্যাংকের ডিজিএম এর বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

 Sat, Aug 21, 2021 12:08 AM
নারায়ণগঞ্জে সোনালী ব্যাংকের ডিজিএম এর বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধিঃ: ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সোনালী ব্যাংক

 লিমিটেড,প্রিন্সিপাল অফিস,নারায়ণগঞ্জ এর ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মোঃ ইসমাইলের বিরুদ্ধে  চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সরকারি -বেসরকারি প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক আগস্ট মাসব্যাপী ড্রপডাউন ব্যানার লাগানোর নির্দেশনা রয়েছে। এই ব্যানারকে পুঁজি করে তিনি তার নিয়ন্ত্রনাধীন শাখা ব্যবস্থাপকদের কাছ থেকে নিজে ফোন করে উক্ত  ব্যানার বানানো এবং ১৫ আগষ্ট শোক দিবস পালনের কথা বলে ১৮ টি শাখা হতে ২০০০ টাকা করে  আদায় করেছেন। অথচ এই ব্যানার যা ৪/৭ ফুট বানাতে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা খরচ হওয়ার কথা। এ ব্যাপারে একাধিক শাখা ব্যবস্থাপকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা নাম প্রকাশ না করার শর্তে, ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং বলেন প্রিন্সিপাল অফিসের খরচের জন্য বিভিন্ন  খরচের খাত রয়েছে  অথচ উনি আমাদেরকে টাকা দিতে বাধ্য করেছেন। একজন শাখা ব্যবস্থাপক আরো বলেন ডিজিএম গত বছর ২০২০ সালে  প্রিন্সিপাল অফিস,নারায়নগঞ্জে যোগদান করেন। ব্যাংকে বর্তমানে পারিপার্শ্বিক চাপ না থাকায় তিনি বদলী বানিজ্য,ঋন বানিজ্য শুরু  করছেন, এই ন্যাক্কারজনক ঘটনা তারই প্রমান। তিনি আরো বলেন এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে তিনি হেড অফিস থেকে বদলীকৃত কর্মকর্তারা যাতে তাদের বদলীকৃত কর্মস্থলে তার সাথে দেনদরবার ছাড়া যেতে না পারেন সেজন্য তিনি নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে ক্ষমতার অপব্যবহার ও উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে গত ০৫/০৮/২০২১ তারিখ পিও/নারা/সংস্থাপন/১৫৫৯ নং স্বারক মূলে একটি পরিপত্র জারি করে,যা সম্পুর্ন তার এখতিয়ার বহির্ভূত। এতে করে বদলী আদেশ পাওয়া কর্মকর্তারা ঐসব শাখায় আটকে আছেন এবং কবে নাগাদ বদলীকৃত কর্মস্থলে যেতে পারবেন তার কোনো নিশ্চয়তা না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়ছেন। যা তাদের জন্য অত্যন্ত অমানবিক। তবে এরই মধ্যে অনেকে ডিজিএমকে ম্যানেজ করে চলে গেছেন বলেও নিশ্চিত হওয়া গেছে। এদিকে আবার অনেককে উনি কোনো কারন ছাড়াই  নিয়মের দোহাই দিয়ে ইচ্ছাকৃতভাবে দুরবর্তী শাখায় হয়রানির উদ্দেশ্য  বদলী করছেন।

এসব অভিযোগের বিষয়ে ডিজিএম মোঃ ইসমাইল এর সাথে  যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমাদের ব্যানার বা ১৫ আগস্টের অনুষ্ঠান করার জন্য কোনো বরাদ্দ নাই। এজন্য আমি ২টি শাখা হতে ব্যানার বানানো ও অনুষ্ঠান করা বাবদ ১৫০০ টাকা করে এবং অন্য শাখা গুলি হতে ১০০০ টাকা করে নিয়েছি এবং ট্রান্সফার অর্ডার এর  বিপরীতে সকল শাখায় চিঠি দিয়ে প্রতিস্থাপক ছাড়া কাউকে না ছাড়ার কথা স্বীকার করে বলেন আমি সকল শাখায় এই চিঠি দিয়েছি এবং উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করেই এ চিঠি ইস্যু করেছি।

এ বিষয়ে আরো জানার জন্য সোনালী ব্যাংকের  প্রধান কার্যালয়ের মানব সম্পদ বিভাগের জিএম (ইনচার্জ) মোঃ সিরাজুল ইসলাম  এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমি এ ব্যাপারটা সমন্ধে জানিনা তবে ডিজিএম সাহেব এভাবে কোনো শাখা ম্যানেজার হতে টাকা নিতে পারেন না এবং এভাবে শাখা গুলিতে লিখিতভাবে বদলী আদেশ প্রাপ্ত কর্মকর্তাদের যাতে না ছাড়া হয় সেজন্য লিখিত  চিঠি দিতেও পারেন না। তবে এটা তিনি case to case ভিত্তিতে ম্যানেজ করতে পারতেন, ঢালাওভাবে এটা করা ঠিক হয়নি।

এ প্রসঙ্গে সোনালী ব্যাংকের জিএম (ইনচার্জ) মোঃ আমিনুল ইসলাম দুঃখ প্রকাশ করে বলেন ডিজিএম সাহেব এই কাজগুলো ঠিক করেননি। বঙ্গবন্ধু আমাদের আবেগের একটি জায়গা, উনাকে  উপলক্ষ্য করে  কোনো অনুষ্ঠান নিয়ে এধরনের টাকা আদায়ের কথা উঠা দুঃখজনক এবং বদলী আদেশ সংক্রান্ত ব্যাপারে বলেন, ডিজিএম এ ধরনের চিঠি দেওয়ার এখতিয়ার নেই এবং এটা উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের প্রতি সম্পুর্ন অবজ্ঞা প্রদর্শণ ও কর্তৃপক্ষকে চ্যালেঞ্জ করার সামিল। তবে আমরা এ ব্যাপারটি তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ ব্যবস্থা নিবো।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন