সদ্য সংবাদ

 কালকিনিতে ১৩১ বাড়িতে লাল নিশানা লাগিয়ে দিলো প্রশাসন  করোনার বিরুদ্ধে সাইফুল ইসলাম শান্তির অভিযান শুরু  রংপুরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  নরসিংদীতে হোম কোয়ারেন্টিনে ২০৫ প্রবাসী  কালকিনির বিভিন্ন হাট-বাজারে হাতধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপন  পঞ্চগড়ে সাড়ে ৭শ’ পিস হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ  রংপুরে করোনা প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  পার্বতীপুরে শুধুমাত্র পূজার মধ্যদিয়ে ঐতিহ্যবাহী ‘বাহা পরব’ উদযাপিত  রংপুরে এরশাদের জন্মদিন পালিত  বিএফআরআইতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস পালিত  করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে পঞ্চগড়ে জরুরি বৈঠক  আতঙ্কিত না হয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে : সাদ এরশাদ এমপি  কালকিনিতে দুই প্রবাসীকে আর্থিক জরিমানা  পঞ্চগড়ে সীমিত পরিসরে মুজিববর্ষ পালিত  রংপুরে ৮টি রাস্তা পাকাকরণ ও ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু  কালকিনিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে মুজিব উতসব পালিত  কালিয়াকৈর প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  রংপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে কীটনাশক মুক্ত সবজির চাষ!

প্যারিসে হোটেলে ধর্ষণের শিকার হতে পারতেন কিম কারদেশিয়ান

 Tue, Mar 21, 2017 10:37 AM
প্যারিসে হোটেলে ধর্ষণের শিকার হতে পারতেন কিম কারদেশিয়ান

ডেস্ক রিপোর্ট :: গত বছর ৩ অক্টোবর ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের একটি হোটেলে ছিনতাইকারীদের

হাতে বন্দি হয়েছিলেন রিয়েলিটি শো’র তারকা কিম কারদেশিয়ান। ওই রাতে ছিনতাইকারীরা তার কয়েক মিলিয়ন মূল্যের অলঙ্কার ও ইউরো ছিনিয়ে নেয়।

রোববার রাতে ‘কিপিং আপ উইথ কারদেশিয়ান’ অনুষ্ঠানে তিনি প্রথমবারের মতো বললেন, ওই রাতে তিনি ছিনতাইকারীদের হাতে ধর্ষণেরও শিকার হতে পারতেন। এমন কি খুনও হয়ে যেতে পারতেন।

অনুষ্ঠানে কারদেশিয়ান বললেন, ‘বন্দুকদারী দুজন প্রথমে টেপ দিয়ে আমার মুখ বন্ধ করে ফেলে। তারপর আমাকে বিছানায় ফেলে দেয়। আমার গাঁয়ে নিচের কোনো পোশাক ছিল না। তাদের একজন আমার উপরে চড়ে বলে, হ্যাঁ, এই হ”েছ সময় ৃ.’ কারদেশিয়ান কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘আমি ধর্ষণের শিকার হওয়ার জন্য মানসিকভাবে একেবারে প্র¯‘তি নিয়ে ফেলেছিলাম। লোকটি আমার দুপা টেনে ধরেছিল। ’

কিš‘, তাদের একজন হঠাৎ আমার মাথায় বন্দুক চেপে ধরে। আমি ভাবছিলাম তারা আমাকে এক্ষুণি মেরে ফেলবে। আমি মনে মনে প্রার্থনা করছিলাম আমার মৃত্যুর পর যেন আমার মেয়েটার জীবন স্বাভাবিক থাকে।’

শেষ পর্যন্ত তারা আমাকে মারেনি, ধর্ষণও করেনি। হাত পা বেঁধে রেখে বাথরুমে নিয়ে ফেলে রাখে আর আমার বহুমূল্যের গয়না ও অর্থকড়ি নিয়ে পালিয়ে যায়।

তারপর অবশ্য এই ঘটনার জন্য ১৭ সন্দেহভাজনকে আটক করা হয়। তাদের ১০ জনের বিরুদ্ধে এখনো মামলা চলছে। সিএনএন,

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন