সদ্য সংবাদ

  ভারতের মতো মানসম্পন্ন পেসার আমাদের নেই: নান্নু  নারায়ণগঞ্জ পেঁয়াজের বাজার জেলা প্রশাসনের অভিযান   এবার মিলারদের কারসাজিতে চালের বাজারও অস্থির  নতুন নাটকে মডেল সাবরিনা প্রমি   স্বেচ্ছা‌সেবক লী‌গের সভাপ‌তি নির্মল, সম্পাদক বাবু  ইউক্রেন কাণ্ড: সাক্ষীকে ‘ভয়’ দেখাচ্ছেন ট্রাম্প  পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ করে দিন, সিন্ডিকেট ভেঙে যাবে: গয়েশ্বর   নবীনগরে দুই সহযোগীসহ ইয়াবা সম্রাট গ্রেফতার   সাংবাদিক আব্দুস সাত্তারের মৃত্যু  পেঁয়াজ আমদানীতে সরকারকে কোন শুল্ক দিতে হয় না - অর্থমন্ত্রী   পেঁয়াজ বিমানে উঠে গেছে, কাজেই আর চিন্তা নাই: প্রধানমন্ত্রী  অস্ত্রবিরতি সত্ত্বেও গাজায় ইসরাইলি বিমান হামলা  সৌদি থেকে দেশে ফিরলেন নির্যাতিত সুমিসহ ৯১ নারী  সরকার নিজেই সিন্ডিকেট তৈরি করে পেঁয়াজের দাম বাড়াচ্ছে: ন্যাপ  জনবান্ধব পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলামে আস্থা নারায়ণগঞ্জবাসীর  টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা যুবক নিহত, লক্ষাধিক ইয়াবাসহ অস্ত্র উদ্ধার  প্লাজমা ফাউন্ডেশনের ৩য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন  নবীনগরে এসএসসির ফরম পূরণে অনিয়মের অভিযোগ,  তুরস্কসহ চার দেশ থেকে বিমানে আসছে পেঁয়াজ  মহেশপুরে পুলিশের গুলিতে মাদক ব্যবসায়ী আহত

ভলিবলে হিজাব: সাংস্কৃতিক সংঘর্ষের একটি চিত্র?

 Sat, Aug 20, 2016 3:58 AM
ভলিবলে হিজাব: সাংস্কৃতিক সংঘর্ষের একটি চিত্র?

ডেস্ক রিপোর্ট ::: উপরের এই ছবিটিতে দেখা যা”েছ এক খেলোয়াড় বিকিনি পড়ে খেলছে এবং অপর খেলোয়াড়ের শরীর আবৃত করা পোশাক, সংবাদমাধ্যম ‘টাইমস’ যেটিকে ‘সাংস্কৃতিক সংঘর্ষ’ উল্লেখ করছে, আর ডেইলি মেইলের কাছে এটি ‘সাংস্কৃতিক বিভাজনের একটি শক্তিশালী চিত্র’। অন্যদিকে দ্য সান একে সাংস্কৃতিক বিভাজনের বৃহদাকার রূপ হিসেবে উল্লেখ করেছে।

এই ছবিটি বিচ ভলিবলের একটি ম্যাচে, সমুদ্রের পাড়ে মিশরের নারী খেলোয়াড়রা খেলছে জার্মানির বিরুদ্ধে। রিও অলিম্পিকের এই ম্যাচটির পর ইন্টারনেটে এ ছবি নিয়ে চলে ব্যাপক আলোচনা।

মিসরীয় দলের খেলোয়াড়দের ফুল হাতা পোশাক ও হিজাব অন্যদিকে বিকিনি পরিহিত জার্মান দলের খেলোয়াড়-অনেকেই এটাকে সাংস্কৃতিক বৈপরীত্য, সাংস্কৃতিক দ্বন্দ্ব বা সাংস্কৃতিক বিভাজন হিসেবে উল্লেখ করে ওই টুর্নামেন্টের ছবি পোস্ট করেছেন।

কিছু মানুষের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল এ খেলায় কোন বিষয়টি খেলোয়াড়দের বিভক্ত করছে আর এই বিচ ভলিবলে কোন বিষয়টি খেলোয়াড়দের একত্রিত করেছে তার ওপর ফোকাস করছিল কিছু মানুষ।

“হিজাব বনাম বিকিনি, অলিম্পিকে নারীদের বিচ ভলিবলে এই দু’পক্ষকে একসাথে খেলতে দেখলে তা সাংস্কৃতিক সংঘর্ষের কতটা ব্যাপক চিত্র হতে পারে?”-কলামিস্ট বেন ম্যাশেল টুইটারে এমন মন্তব্য করেন।

অন্যদিকে সিএনএনের বিল ওয়েইর টুইটারে লিখেছেন এটি অলিম্পিকের একটি পরীক্ষা। তিনি প্রশ্ন তুলেছেন “আপনারা কী দেখছেন-সংস্কৃতির সাংঘর্ষিক চিত্র? নাকি খেলার মধ্যে মানুষকে একত্রিত করার শক্তিশালী প্রচেষ্টা?”
বিভিন্ন সংস্কৃতির মিথস্ক্রিয়ার ফলে যে দ্বন্দ্ব বা বৈসাদৃশ্যের সৃষ্টি হয় সেটাকেই ‘সাংস্কৃতিক সংঘর্ষ’ হিসেবে বুঝানো হয়েছে অক্সফোর্ড ডিকশনারিতে।

প্রসঙ্গত, আন্তর্জাতিক ভলিবল ফেডারেশনের নির্ধারিত নিয়ম অনুযায়ী বিচ ভলিবলে নারী ক্রীড়াবিদদের বিকিনি ও পুরুষ ক্রীড়াবিদদের শর্টস পরে অংশ নেওয়া বাধ্যতামূলক ছিলো।
অস্ট্রেলিয়ান স্পোর্টস কমিশন ২০১২ সালের অলিম্পিকের আগে অভিযোগ তোলে, নারী ক্রীড়াবিদদের জন্য বিকিনি বাধ্যতামূলক করা কেবল অংশগ্রহণকারীর শরীর প্রদর্শন ছাড়া আর কিছু নয়, পোশাকের সাথে খেলার দক্ষতা কিংবা কৌশলের কোনো সম্পর্ক নেই।
২০১২ সালের পর থেকে নারী ক্রীড়াবিদরা ফুলহাতা পোশাক ও বডিস্যুট পরে খেলায় অংশ নেওয়ার অনুমতি পান। কিš‘ হিজাব পরে বিচ ভলিবলে অংশ নেওয়া খেলোয়াড় এবারই প্রথম।
সূত্র : বিবিসি বাংলা


Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন