সদ্য সংবাদ

  খুনি নূর হোসেনের ভাতিজা বাদল ভালো, মেয়র আইভী ব্যর্থ!   সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতারে অনুমতির বিধান কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট  বাড়ি ভারতে, অফিস করেন সিলেটে  আবারও ষড়যন্ত্র হচ্ছে: ওবায়দুল কাদের   ই-কমার্সের প্রতারনায় ভুক্তভোগী বাণিজ্যমন্ত্রী  সাবেক প্রতিমন্ত্রী মান্নান খান ও তার স্ত্রীর বিচার শুরু   ১০ হাজার ৫০০ শ্রমিককে ভিসা দেবে যুক্তরাজ্য  দেবীগঞ্জে বাসর রাতে পাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু  ‘চুনকা কুটির নয়, আইভীর হোয়াইট ওয়াশের জ্বালা বিরোধী পক্ষ  বিয়ের পর আমাদের বন্ধুত্ব গাঢ় হচ্ছে: মাহি  বাংলাদেশে কেউ ভালো নেই : মির্জা ফখরুল  টিকা প্রয়োগেই কয়েক হাজার কোটি টাকা ব্যয় হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  টানা তৃতীয়বার জয়লাভ করলেন জাস্টিন ট্রুডো   আটোয়ারীতে ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক  ১১ লাখ টাকা ও হেরোইনসহ ৫মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে না:গঞ্জ ডিবি  প্যারিস চুক্তির কঠোর প্রয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর   সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের চিঠির উৎপত্তি কোথায় সেটাও দেখছি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  সরকার থেকে সাংবাদিকরাও রেহাই পাচ্ছেন না: ফখরুল   ৯০ দিনের মিশন শেষে পৃথিবীতে ফিরেছেন চীনা নভোচারীরা   দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার

রাজশাহীতে পুলিশের বিরুদ্ধে নারী পুলিশের আইসিটি মামলা

 Thu, Jun 10, 2021 12:26 PM
রাজশাহীতে পুলিশের বিরুদ্ধে নারী পুলিশের আইসিটি মামলা

রাজশাহী প্রতিনিধি,: রাজশাহীতে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি)

 রাজশাহী মহানগর শাখায় কর্মরত পুলিশের এক নারী (ভুক্তভোগী)  উপ-পরিদর্শক (এসআই) তাঁর পুলিশ স্বামীসহ আরেক নারী এসআই এর বিরুদ্ধে সাইবার ট্রাইব্যুনালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আদালতে মামলা করেছেন।

বুধবার (০৯ জুন) রাজশাহীর সাইবার ট্রাইব্যুনালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আদালতে মামলাটি দায়ের হয়।

অভিযুক্তরা হলেন- স্বামী এসআই ওবাইদুল কবির সুমন (৩৫) ও আরেক নারী এসআই পলি আক্তার (৩০)। এসআই ওবাইদুল কবির ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটে কর্মরত। অন্যদিকে, এসআই পলি ঢাকার নবাবগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হিসেবে করর্ত্যরত।

আদালতে বাদীর পক্ষে রাজশাহী জেলা জজ আদালতের আইনজীবী মোখলেসুর রহমান স্বপন মামলার নথিপত্র উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, ‘বুধবার (০৯ জুন) ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৮ এর ২৩/২৪/২৫/২৬/২৯/৩১/৩৫ ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। রাজশাহীর সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. জিয়াউর রহমান মামলার আবেদন গ্রহণ করেছেন। তিনি আগামী ৭ জুলাইয়ের মধ্যে পুলিশি প্রতিবেদন দাখিলের জন্য রাজশাহী মহানগরীর রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দিয়েছেন। গতকাল সকালেই মামলার নথিপত্র মহামান্য আদালতের মারফত ওসি রাজপাড়ার নিকট পৌঁছে যাওয়ার কথা।’

এদিকে মামলার আর্জিতে বলা হয়েছে, ২০১৬ সালে এসআই ওবাইদুলের সঙ্গে নারী এসআইয়ের বিয়ে হয়। কিন্তু এসআই ওবাইদুল এসআই পলি আক্তারের সঙ্গে পরকিয়ায় জড়িয়েছেন। তাই তিনি নিজের স্ত্রীকে চাকরি ছাড়ার জন্য চাপ দিচ্ছিলেন। বাধ্য হয়ে ওই নারী এসআই ঢাকা থেকে বদলি হয়ে রাজশাহী চলে আসেন।

ওই মামলায় আরও উল্লেখ রয়েছে, ভুক্তভোগী নারী এসআইকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে তাঁর নামে ভূয়া অশ্লীল ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্নজনকে পাঠিয়েছেন এসআই ওবাইদুল কবির (ভুক্তভোগীর স্বামী)। এসআই ওবাইদুল কবির ফেসবুক, হটসঅ্যাপ ও ইমোর মাধ্যমে অশ্লীল ছবি ও ভিডিও পাঠিয়েছেন। এতে ভুক্তভোগী নারী এসআই ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা মারাত্মকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হয়েছেন। এ কারণে ভুক্তভোগী এসআই স্বামীসহ দুই এসআইয়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

ভুক্তভোগী (এসআই) ওই নারী তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগে বলেন, ৮ মাস হয়েছে জানতে পেরেছি এসআই পলির সাথে তার পরকিয়ার সম্পর্কের কথা। তারপর থেকে তাকে জেরা করলে সে (স্বামী) আমাকে যৌতুকের অহেতুক অভিযোগে হয়রানি করতে থাকে। এমনকি আমাকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। মূলত: নিজের কুকর্ম ঢাকার জন্য যৌতুকের নাটক করে এবং আমাকে চাকরি ছাড়ার জন্য চাপ দেয়। চাকরি ছাড়তে আপত্তি জানালে আমাকে মারধর করে মাস পাঁচেক আগে বাসা থেকে বের করে দেন এবং বলেন চাকরি না ছাড়লে আমাকে ডিভোর্স দেবেন।’

তিনি তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগে বলেন, ‘অত:পর আমি দীর্ঘ তিন মাস আমার আত্মীয়ের বাসায় থাকি এবং পরে বদলি নিয়ে রাজশাহীতে আসি। রাজশাহীতে আসার পর আমার বড়-বোন ও দুলাভাইয়ের বাসায় উঠি। এখানেও সে (স্বামী), তাঁর বাবা ও ভাই এসে আমাকে মারধর করে। পরে রাজপাড়া থানায় আমার মা (আম্বিয়া বেগম) তাঁর নামে একটি মামলা দায়ের করেন। তারপর থেকে ফেসবুক ও হোয়াটস এ্যাপে আমাকে নানা হুমকি ধামকি দিতে থাকেন। তাঁর কথা না শোনায় সে তাঁর সাথে আমার অন্তরঙ্গ ছবিগুলো এডিট করে আমার পিতৃতুল্য দুলাভাইয়ের নামে পরকিয়ার অভিযোগ এনে নিজ ফেসবুক আইডি ও ফেক ফেসবুক আইডিতে প্রচার করেন।’

ভুক্তভোগীর ভাষ্য, ‘আমার স্বামীর উদ্দেশ্যে হচ্ছে- আমার বোন জামাইয়ের সাথে আমাকে নিয়ে অপপ্রচার করলে তারাও আমাকে তাদের কাছে আশ্রয় দিবেন না। আমি আমার সাড়ে চার বছরের ছোট বাচ্চা আরিফকে নিয়ে আশ্রয়হীন হয়ে পড়ব। শুধু তাই নয়, সে আমাকে প্রতিনিয়তই বিভিন্নভাবে কুরুচিপূর্ণ কথার মাধ্যমে আত্মহত্যার প্ররোচণাও দিয়েছে, যাতে আমি সেচ্ছায় আত্মহত্যা করি।’

নগরীর রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, আদালত থেকে মামলার কাগজাদি হাতে পেয়েছি। মামলার তদন্ত প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। মামলার নথিপত্র ও তদন্ত সাপেক্ষে এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে জানান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন