সদ্য সংবাদ

 কালকিনিতে ১৩১ বাড়িতে লাল নিশানা লাগিয়ে দিলো প্রশাসন  করোনার বিরুদ্ধে সাইফুল ইসলাম শান্তির অভিযান শুরু  রংপুরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  নরসিংদীতে হোম কোয়ারেন্টিনে ২০৫ প্রবাসী  কালকিনির বিভিন্ন হাট-বাজারে হাতধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপন  পঞ্চগড়ে সাড়ে ৭শ’ পিস হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ  রংপুরে করোনা প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  পার্বতীপুরে শুধুমাত্র পূজার মধ্যদিয়ে ঐতিহ্যবাহী ‘বাহা পরব’ উদযাপিত  রংপুরে এরশাদের জন্মদিন পালিত  বিএফআরআইতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস পালিত  করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে পঞ্চগড়ে জরুরি বৈঠক  আতঙ্কিত না হয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে : সাদ এরশাদ এমপি  কালকিনিতে দুই প্রবাসীকে আর্থিক জরিমানা  পঞ্চগড়ে সীমিত পরিসরে মুজিববর্ষ পালিত  রংপুরে ৮টি রাস্তা পাকাকরণ ও ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু  কালকিনিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে মুজিব উতসব পালিত  কালিয়াকৈর প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  রংপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে কীটনাশক মুক্ত সবজির চাষ!

রোহিঙ্গাদের নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন ডায়মন্ড

 Mon, Oct 2, 2017 6:47 AM
রোহিঙ্গাদের নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন ডায়মন্ড

ডেস্ক রিপোর্ট : : প্রথমবারের মতো রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র নির্মাতা সৈয়দ অহিদুজ্জামান ডায়মন্ড।

ছবিটি নির্মাণের জন্য ২০১২ সালে পরিকল্পনা করেছিলেন। এরপর থেকে প্রস্তুতি নিতে থাকেন নির্মাতা। দীর্ঘ সময় ধরে সিনেমার কাহিনী ও চিত্রনাট্য রচনা শেষে ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে তিনি শুটিং শুরু করেছেন।


শুটিং করছেন নাফ নদী, শাহপরী দ্বীপ, উখিয়া ও টেকনাফে। রোহিঙ্গাদের আগমনের ঢলের মধ্যেই পরিচালককে বেশ কষ্ট করে শুটিং করতে হচ্ছে বলে  জানিয়েছেন তিনি।


মূলত গত মাস থেকে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কী ঘটেছে, সেটি চলচ্চিত্র আকারে সংরক্ষণ করে ভবিষ্যতের ইতিহাস নির্মাণ করতে চাইছেন এ পরিচালক।


এ প্রসঙ্গে নির্মাতা বলেন, ‘ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলে টানা তিনদিন শুটিং করলাম। সিনেমার জন্য যে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দেখানোর কথা ছিল তা এখন বাস্তবেই বিদ্যমান। আমরা তাই শরণার্থীদের ভেতরে ঢুকে পড়েছি। বিষয়টি আমাদের জন্য বেশ কষ্টসাধ্য একটি বিষয়। তবে হাল ছাড়ছে না আমাদের টিম।’


চলচ্চিত্রটির ঐতিহাসিক দিকটি তুলে ধরে ডায়মন্ড বলেন, ‘২০১২ সালে যখন বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অনুপ্রবেশ ঘটে তখনই বিষয়টি আমার মনে দাগ কাটে। অপেক্ষা করছিলাম ঘটনাটা কোনদিকে মোড় নেয় তা দেখার। এরপর বাংলাদেশে শরণার্থীরা এসে যখন ভিড়ল তখন আমার মনে হয়েছে এটাই আসলে চূড়ান্ত পর্যায়। এরপর রোহিঙ্গারা হয় থেকে যাবে নইলে আবার ফিরে যাবে। দেশের এ আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট শুরু করেছি।’ ছবিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করছেন আরশি।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন