সদ্য সংবাদ

  ধনী-গরিব সব রাষ্ট্রই যেন করোনার ভ্যাকসিন পায়: রাষ্ট্রপতি   করোনা শেষ না হতেই এবার 'টুইনডেমিক' আতঙ্ক  গণতন্ত্রের জন্য লড়াইয়ে নামতে হবে: মান্না   ব্রুনাইয়ে মানব পাচার: চক্রের তিনজন গ্রেফতার   পিবিআই এর অভিযানে অপহৃত লামিয়াকে ফতুল্লা থেকে উদ্ধার   পঞ্চগড়ে নারীর ক্ষমতায়ন জেন্ডার সমতা বিষয়ে আলোচনা   মহেশপুরে চাষ হচ্ছে মনিপুরি ইলিশ   শৈলকুপায় সাপের কামড়ে দুই মাসে ১১ জনের প্রাণহানী  ঝিনাইদহে নবাগত পুলিশ সুপার মুনতাসিরুল ইসলামের যোগদান  আটকেপড়া প্রবাসীদের সৌদি ফেরাতে বিমানের বিশেষ ফ্লাইট  সিদ্ধিরগঞ্জে কোনো মাদক,ভূমি দস্যু ও সন্ত্রাসীদের স্থান হবে না- এসপি  এমপি কামরুল ইসলামের ফোন রেকর্ড প্রকাশ: ডিশ ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার  করোনার টিকা বন্টনে ১৫৬ দেশের ‘ঐতিহাসিক চুক্তি’  নুরের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  মিথ্যা মামলা রাজপথেই মোকাবিলা করব: ভিপি নুর   কম্বোডিয়ায় নারীর খোলামেলা পোশাক পরার ওপর নিষেধাজ্ঞা   রিমান্ড শেষে তিতাসের ৮ কর্মকর্তা-কর্মচারী জামিনে মুক্ত  স্বাস্থ্যের ২০ জনের সম্পদের হিসাব তলব   ট্রাম্পকে বিষ মেশানো চিঠি : এক নারী গ্রেফতার  বিক্ষোভ মিছিল থেকে ভিপি নুর আটক

শিক্ষা বাণিজ্যে বৈধতা ‘ছায়া শিক্ষা’ হিসেবে

 Tue, Dec 13, 2016 3:02 PM
শিক্ষা বাণিজ্যে বৈধতা ‘ছায়া শিক্ষা’ হিসেবে

ডেস্ক রিপোর্ট:: কোচিং ব্যবসা ও নোট-গাইড বইয়ের বিরুদ্ধে অনেক আগে থেকেই যুদ্ধে নেমেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এই ব্যবসায় শিক্ষা ব্যবসায়ীরা বছরে ৩২ হাজার কোটি টাকা আয় করছে বলে জরিপ চালিয়ে তথ্যও তুলে এনেছেন। জড়িতদের ব্যবস্থা নেয়ার কথা বারবারও উচ্চারিত করেছেন তিনি।

 প্রস্তাবিত শিক্ষা আইনের খসড়ায় কোচিং ও নোট-গাইড বইয়ের সাথে জড়িতদের জেল-জরিমানার বিধান রেখে ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কেউ প্রাইভেট টিউশন ও কোচিং করালে কমপক্ষে দুই লাখ টাকা অর্থদন্ড অথবা ছয় মাসের কারাদন্ড অথবা উভয় দন্ড দেওয়া হবে বলেও উল্লেখ করা হয়। কিন্তু চূড়ান্ত খসড়ায় আনুষ্ঠানিকভাবে বৈধতা দেয়া হয়েছে শিক্ষা বাণিজ্যের। জেল-জরিমানার বিষয়টি তুলে সহায়ক বা অনুশীলন বই প্রকাশের ক্ষেত্রে অনুমোদন নেয়ার বিষয়টিও বাদ দেয়া হয়েছে। কোচিং ও প্রাইভেট টিউশনির বিরুদ্ধে আগের সেই কঠোর অবস্থান থেকে সরে এসে ‘ছায়া শিক্ষা’ কৌশলে এর বৈধতা দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ইতোমধ্যে খসড়াটি মন্ত্রিসভায় উপস্থাপনের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হয়েছে।
তবে শিক্ষা আইনে কোচিং ও গাইড বইকে বৈধতা দিলে (সেটি যে নামেই হোক) শিক্ষা ব্যবস্থায় দীর্ঘ মেয়াদী নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন শিক্ষাবিদেরা। তারা বলছেন, কোচিং ও গাইড নিষিদ্ধ এবং মন্ত্রী কঠোর থাকার পরও তারা যেভাবে বেপরোয়া ছিল, সেটি বৈধ হলে এর দৌরাত্ম্য কোথায় গিয়ে ঠেকবে তা চিন্তারও বাইরে। কোনো রকম আইনি নিষেধাজ্ঞা বা ন্যূনতম নিয়ন্ত্রণ না থাকলে মূলধারার শিক্ষা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। মূল বই পড়া বা শ্রেণিকক্ষে লেখাপড়ার অবস্থা আরও খারাপ হবে।
চূড়ান্ত খসড়ার বিষয়টি চূড়ান্ত নয় বলে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, চূড়ান্ত খসড়ায় যে বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত হয়েছে তার সবই যে চূড়ান্ত তা নয়। এটি মন্ত্রিসভায় পাস হলে পরবর্তীতে আরও যাচাই-বাছাই করে সংসদে উত্থাপন করা হবে। সংসদে যেটি পাস হবে সেটিই চূড়ান্ত।
তবে গত অক্টোবরে ইনকিলাবকে তিনি বলেন, দেশের বেশিরভাগ কলেজে বেলা ১১টার পর শিক্ষক-শিক্ষার্থী খুঁজে পাওয়া যায় না। কারণ শিক্ষকরা মনে করেন ক্লাসে পড়ালে কোচিং-প্রাইভেটে শিক্ষার্থীরা আসবে না। মন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীরা সকাল সাতটায় বাড়ি থেকে আসে। তারা আসে কোচিং করতে। সকালে যে শিক্ষার্থী আসে, সে কোচিং করে ক্ষুধার্ত হয়ে বাড়ি চলে যায়। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কোন কোন শিক্ষক ক্লাসে শিক্ষার্থীদের যথাযথভাবে না পড়িয়ে কোচিংয়ে বাধ্য করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। শিক্ষার্থীদের নোট বই পড়তে উদ্বুদ্ধ করা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনিয়মিত উপস্থিতি প্রভৃতি অভিযোগও কোন কোন শিক্ষকের বিরুদ্ধে পাওয়া যায়। নিয়মিত পরিদর্শন ও মনিটরিংয়ের মাধ্যমে এ সব শিক্ষক নামধারী দুর্জন ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে কোচিং বাণিজ্য বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও জানানো হয়।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মন্ত্রণালয় জেল-জরিমানার বিধান রেখে আইনটির প্রাথমিক খসড়া ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে। আইনের উপর মতামত চাওয়া হয়। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের প্রায় ৩০০ মতামত পাওয়া গিয়েছিল বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। তারা বলেন, অধিকাংশ মতামতেই প্রাইভেট টিউশন, কোচিং এবং নোট-গাইড বন্ধের সুপারিশ করা হয়েছে। কিন্তু তারপরও কোচিং-প্রাইভেট বন্ধ না করে চূড়ান্ত খসড়ায় এর বৈধতা দিয়ে মন্ত্রী সভায় পাসের জন্য পাঠানো হয়েছে। আইনের চূড়ান্ত খসড়ায় বলা হয়েছে, প্রাইভেট টিউশনসহ ছায়া শিক্ষা (শ্যাডো এডুকেশন) প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ ও তদারকের জন্য সরকার আলাদা নীতিমালা বা বিধি প্রণয়ন করবে। ছায়া শিক্ষা বলতে সরকারি বা স্বীকৃতি পাওয়া বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষা কার্যক্রমের বাইরে কোনো ব্যক্তি বা শিক্ষকের উদ্যোগে একাধিক শিক্ষার্থীকে কোনো প্রতিষ্ঠানে বা কোনো নির্দিষ্ট স্থানে অর্থের বিনিময়ে পাঠদান কার্যক্রমকে বোঝাবে। কোনো ছায়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রবিরোধী কার্যক্রমের অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত করে সরকার বন্ধের উদ্যোগ নেবে।
জেল-জরিমানা দূরে থাক, অনুমোদন নিয়ে সহায়ক পাঠ্যপুস্তক প্রকাশের সুযোগও রাখেনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মতামতের জন্য দেওয়া খসড়ায় বলা হয়েছিল, সহায়ক বই প্রকাশে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) অনুমোদন লাগবে। এই বিধান বাদ দিতে প্রকাশকেরা আন্দোলন করে আসছেন। এখন চূড়ান্ত খসড়ায় নোট বা গাইড বই নিষিদ্ধ করার কথা বলা হয়েছে, যদিও সৃজনশীল পদ্ধতি চালু হওয়ার পর এই নামের বই আর নেই। এখন অনুমোদন ছাড়াই ‘সহায়ক পুস্তক’ প্রকাশের সুযোগ রাখা হয়েছে, যা নোট-গাইডের একধরনের বিকল্প এবং সহায়ক বই বা অনুশীলন বই নামে পরিচিত। এ বিষয়ে খসড়ায় বলা হয়েছে, কোনো প্রকাশক বা প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তি কেবল সহায়ক পুস্তক বা ডিজিটাল শিখন-শেখানো সামগ্রী প্রকাশ করতে পারবেন। কিন্তু কোনো ধরনের নোটবই, গাইড বই বা নকল মুদ্রণ, বাঁধাই, প্রকাশ ও বাজারজাত করা যাবে না। শিক্ষা-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, নোট-গাইডের কথা বলে ধূম্রজাল সৃষ্টি করে প্রকৃতপক্ষে যেকোনো ধরনের বই নির্বিঘেœ প্রকাশের আইনি সুযোগ দেওয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে প্রবীণ শিক্ষাবিদ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, আইনিভাবে কোচিং ও গাইড বইয়ের অনুমোদন দেয়া বিস্ময়কর ব্যাপার। এটি শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর সিদ্ধান্ত হবে। নোট-গাইড, সহায়ক বা অনুশীলন বইয়ের নামেই বলা হোক, এগুলো শিক্ষার কোনো কাজে আসে না। কোচিং ও গাইড বইয়ের বৈধতার দেয়ার বিষয়টি হাস্যকর উল্লেখ করে তিনি বলেন, এতোদিন এগুলো নিষিদ্ধ করা এবং এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হলো, কিন্তু হঠাৎ করে কি এমন হলো যে তা বৈধতা দেয়া হচ্ছে?
অভিভাবকরাও কোচিং ও গাইড বইয়ের বৈধতার সিদ্ধান্তে সমালোচনা করেছেন। কয়েকজন অভিভাবক বলেন, গাইড বই অবৈধ থাকা অবস্থায় অধিকাংশ প্রাথমিক বিদ্যালয় উচ্চ বিদ্যালয়ের কমিটি ও শিক্ষকরা মিলে গাইড বই ও গ্রামার কোম্পানীর সাথে লাখ লাখ টাকার চুক্তি করত। যেখানে শিক্ষার্থীকে নির্দিষ্ট কোম্পানির বই কেনা বাধ্যতামূলক। সরকার গ্রামার ব্যাকরণ ফ্রি দিলেও অবিশ্বাস্য সত্য শিক্ষার্থীকে ৫০ টাকার বই ৫০০ টাকা দিয়ে কিনতে হয়। পরিসংখ্যানটা এমন ডাথমিক বিদ্যলয়ের দ্বিতীয় শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা আর উচ্চ বিদ্যালয়ে কমপক্ষে ৩ হাজার ৫০০ টাকার বই একজন শিক্ষার্থীকে কিনতে বাধ্য করা হয় স্কুল থেকে। যা এখন জেলা থেকে থানা, ইউনিয়ন পর্যায়ের স্কুলগুলোতে প্রশাসনের নাকের ডগায় ওপেন বাণিজ্য হচ্ছে ! গরীব শিক্ষার্থীর ঝরে পড়া এবং বাল্য বিয়ের বর্তমান সময়ের অন্যতম কারণ এটিও৷
শিক্ষাবিদ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন. শিক্ষা মন্ত্রণালয় এর আগে কোচিং ও গাইড বাণিজ্যের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিল। এখনই যদি আবার তারাই এটার বৈধতা দেয় তাহলে তো মন্ত্রণালয় নিজেদের বিরুদ্ধে নিজেরাই অবস্থান নিচ্ছে। তিনি এ ধরণের পদক্ষেপকে তিনি নিন্দাও জানিয়ে বলেছেন,  কোচিং ও গাইড বাণিজ্যের বৈধতা দেওয়া খুবই নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, শিক্ষা আইনের খসড় প্রকাশের পর আমরা সকলের মতামত চেয়েছিলাম। যারা মতামত দিয়েছে তাদের মতামতগুলোকে আমরা সম্মান জানিয়েছে চূড়ান্ত খসড়ায় অন্তর্ভূক্ত করেছি। তবে এই চূড়ান্ত খসড়াটিই যে চূড়ান্ত আইনে পরিণত হবে এমনটি ভাবার কিছু নাই। মন্ত্রিসভায় উত্থাপনের পর এটি আইনে পরিণত হওয়ার আগে আরও অনেকবার যাচাই-বাছাই করা হবে। আমি সংসদে যেটি উত্থাপন করবে সেটিকেই আমি চূড়ান্ত বলে মনে করবো।



Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন