সদ্য সংবাদ

 ‘চুনকা কুটির নয়, আইভীর হোয়াইট ওয়াশের জ্বালা বিরোধী পক্ষ  বিয়ের পর আমাদের বন্ধুত্ব গাঢ় হচ্ছে: মাহি  বাংলাদেশে কেউ ভালো নেই : মির্জা ফখরুল  টিকা প্রয়োগেই কয়েক হাজার কোটি টাকা ব্যয় হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  টানা তৃতীয়বার জয়লাভ করলেন জাস্টিন ট্রুডো   আটোয়ারীতে ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক  ১১ লাখ টাকা ও হেরোইনসহ ৫মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে না:গঞ্জ ডিবি  প্যারিস চুক্তির কঠোর প্রয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর   সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের চিঠির উৎপত্তি কোথায় সেটাও দেখছি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  সরকার থেকে সাংবাদিকরাও রেহাই পাচ্ছেন না: ফখরুল   ৯০ দিনের মিশন শেষে পৃথিবীতে ফিরেছেন চীনা নভোচারীরা   দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার  এক হাজার টাকা দেওয়ার ভয়ে পালায় জামালপুরের ৩ ছাত্রী: পুলিশ  মেট্রোরেলের মালামাল ভাঙারির দোকানে বিক্রি করতো চক্রটি  সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে বৃদ্ধ চাঁদাবাজ গ্রেফতার!   মানুষের কাজই সমালোচনা করা’   কিস্তি চাওয়ায় এনআরবিসি ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধর  অ্যাসাইনমেন্টের সাথে টাকার কোনো সম্পর্ক নেই : শিক্ষামন্ত্রী  কবে গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেবেন জানেন না রাসেল   ১০ দৈনিক পত্রিকার ডিক্লারেশন বাতিল

সিদ্ধিরগঞ্জে রংধনু সিনেমা হলে ছবি প্রদর্শনের আড়ালে পতিতা ব্যবসা ॥

 Sun, Nov 19, 2017 4:21 AM
সিদ্ধিরগঞ্জে রংধনু সিনেমা হলে ছবি প্রদর্শনের আড়ালে পতিতা ব্যবসা ॥

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি ॥: সিদ্ধিরগঞ্জে রংধনু সিনেমা হলে ছবি প্রদর্শনের আড়ালে পতিতা ব্যবসা চলছে দেদারসে। প্রতিদিনই সকাল ১১ টা থেকে গভীর রাত

পর্যন্ত বিভিন্ন শো চলার নামে চলছে পতিতাদের দেহ ব্যবসা। হল মালিকদের একজন জয়ের তত্বাবধানে ও হুমায়ুন কবির মিলনের নিয়ন্ত্রণে দীর্ঘদিন ধরে এ হলে পতিতা ব্যবসা চলছে। প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে এরা পতিতা ব্যবসা করছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। 

জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জের আটি এলাকায় নারায়ণগঞ্জ শিমরাইল সড়কের পাশে অবস্থিত রংধনু সিনেমা হলের রয়েছে ৭ জন মালিক। আটি এলাকার মৃত হারুন-অর-রশিদ, গোদনাইল এলাকার মুক্তিযোদ্ধা মজিবুর রহমান, মুসলিমসহ ৭ জন মালিক রংধনু হলের। হারুন-অর- রশিদ জীবিত থাকা কালে উক্ত হলের ম্যানেজারের দায়িত্বে ছিলেন ময়মনসিংহের বাসিন্দা হোসাইন কবির মিলন। এ সুযোগে মিলন মৃত হারুনের পরিবারের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলে তার মেয়ের সাথে প্রেম করে। এক পর্যায়ে মেয়েকে বিয়ে করে হলের পুরো দায়িত্ব নিয়ে নেয় মিলন। এরপর থেকে মিলনের ইচ্ছায় হল পরিচালিত হতে থাকে। এরপর হারুন-অর রশিদ মৃত্যু বরণ করিলে মিলনের আধিপত্য আরও বৃদ্ধি পায়। মিলন তার আয় বৃদ্ধি করতে হলে ছবি প্রদর্শনের পাশাপাশি নীল ছবি প্রদর্শন করতে থাকে। প্রশাসন অভিযান চালালে কিছু দিন বন্ধ রাখে সুচতুর মিলন। এর কিছুদিন পর থেকে ছবি প্রদর্শনের আড়ালে পতিতা দিয়ে দেহ ব্যবসা করতে থাকে। এবিষয়টি আইন শৃংখলা বাহিনীর নজরে আসলে কৌশলে তার শ্যালক জহিরুল ইসলাম জয়কে দায়িত্ব দিয়ে শটকে পড়ে মিলন। বর্তমানে জয়ের তত্বাবধানেই নিয়মিত দেহ ব্যবসা চলছে হলের অভ্যন্তরে। রাস্তার পাশে হলেও যেন দেখার কেউ নেই। প্রশাসনসহ সকলকে ম্যানেজ করে দেদারসে চালিয়ে যাচ্ছে ছবি প্রদর্শনের আড়ালে দেহ ব্যবসা। 

এ ব্যাপারে জয় জানায়, দর্শক না থাকলেও যথা সময়ে ছবি প্রদর্শন করতে হচ্ছে। হলে পতিতার প্রবেশ বিষয়ে তিনি বলেন,  মেয়েই ছবি দেখতে আসে। কে পতিতা, কে ভালো মেয়ে তা আমার দেখার বিষয় না। এ বিষয়ে মিলন জানায়, হলে পতিতার বিষয়ে আমার কোন বলার নাই। এসব দেখে শালক জয়। পতিতা ব্যবসা প্রসঙ্গে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্তম কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুস সাত্তার মিয়া বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই।  তদন্ত করে অপরাধ প্রমানিত হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি জানান।  


Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন