সদ্য সংবাদ

 সিদ্ধিরগঞ্জে গৃহবধূ তানিয়া হত্যা, স্বামী ইমন পলাতক   গায়িকার সমর্থনে নগ্ন ছবি শেয়ার পাক অভিনেত্রীর   পর্যটকদের আকর্ষণে নারী পুলিশদের হট প্যান্ট পরার উদ্যাগ!  প্রতিবন্ধী মানুষের চক্ষু সেবার মান উন্নয়নে রংপুরে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত  মানুষ জাতীয় পার্টিকে আরও শক্তিশালী দেখতে চায়: জিএম কাদের  সরকারি তিন ব্যাংকে নতুন এমডি   দুই কোটি টাকায় পাওয়া যাবে সৌদির আবাসন ভিসা  সিদ্ধিরগঞ্জে ট্রাকে মিলল ৩ হাজার ইয়াবা, আটক ১   আবরার হত্যা মামলার বিচার হবে দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালে: আইনমন্ত্রী  মানুষের কষ্টের শেষ নেই, নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধিতে  সরকারি কর্মচারীদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে, সংসদে প্রধানমন্ত্রী  ঝিনাইদহে গনধর্ষন মামলার আসামীর বাড়ি থেকে পিস্তল ও গুলি উদ্ধার  ঝিনাইদহে সদর এমপির পিএস সহ দুজনকে কুপিয়ে আহত করায় মহাসড়ক অবরোধ  ঝিনাইদহের ২ উপজেলাকে শতভাগ বিদ্যুতায়িত ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী   জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের পক্ষ থেকে নবাগত বিভাগীয় কমিশনার কে শুভেচ্ছা জ্ঞাপন।।  এসপি হারুন দুই তৈল ব্যবসায়ীর কাছ থেকে আদায় করেন ৩৮ লাখ টাকা  নূর হোসেনের মায়ের কাছে রাঙ্গার দুঃখ প্রকাশ  জেনেভা থেকে ২ মানবাধিকার কর্মীকে অপহরণ করেছে সৌদি!  এসপি হারুনের দুর্নীতি তদন্তের নির্দেশনা চেয়ে রিট   সৌদিতে নারীকর্মী না পাঠানোর দাবি সংসদে

সুন্দরী প্রতিযোগিতার নামে কেলেঙ্কারি

 Sun, Oct 1, 2017 7:33 AM
সুন্দরী প্রতিযোগিতার নামে কেলেঙ্কারি

ডেস্ক রিপোর্ট : : শুরুটাই মিথ্যা তথ্য দিয়ে। অন্তর শোবিজ ও অমিকন এন্টারটেইনমেন্টের দাবি ছিল, এটিই প্রথম ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতা।

 অথচ এ প্রতিযোগিতা বাংলাদেশে প্রথম হয় ২০০০ সালে। তখনকার বিজয়ী প্রতিযোগী অংশ নিয়েছিলেন মিস ইউনিভার্সেও। মিথ্যা তথ্য দিয়েই থেমে থাকেনি মিস ওয়ার্ল্ডের এবারের আয়োজন। চূড়ান্ত বিজয়ী ঘোষণার ক্ষেত্রে রীতিমতো হয়ে গেছে কেলেঙ্কারি। জান্নাতুল নাঈম নামে এক প্রতিযোগীকে ঘোষণা করা হয়েছে, ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ।’ অথচ এখন জানা যাচ্ছে, বিচারকদের তালিকায় তার নামই ছিল না।


বিচারকরা যাকে প্রথম নির্বাচিত করেছিলেন, আয়োজকরা তাকে দ্বিতীয় ঘোষণা করতে বাধ্য করেন উপস্থাপিকাকে। এমন মশকরায় রীতিমতো বিস্ময় তৈরি হয়েছে। ‘লাভেলো মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ড ফিনালের বিচারক ছিলেন জুয়েল আইচ, শম্পা রেজা, বিবি রাসেল, চঞ্চল মাহমুদ, রুবাবা দৌলা ও সোনিয়া বশির কবির। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন শিনা চৌহান। কয়েকজন বিচারক গণমাধ্যমকে বলেন, এটা খুব অন্যায় হয়েছে। আমাদের সবার কাছে যে প্রথম হয়েছে, তাকে প্রথম করা হয়নি। যাকে প্রথম করা হয়েছে, সে আমাদের প্রথম তিনজনের তালিকায়ও ছিল না।

যেহেতু এটা একটা আন্তর্জাতিক ইভেন্ট, তাই আমরা এমন একজন প্রতিযোগীকে বাছাই করতে চেয়েছি, যে বিশ্বের কাছে বাংলাদেশকে তুলে ধরতে পারবে। আমরা একবাক্যে জেসিকা ইসলামকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে নির্বাচিত করি। শুক্রবার রাতে যা ঘটল, তা আমাদের জীবনে খুব খারাপ একটা অভিজ্ঞতা হয়ে থাকল। এত বড় একটা অন্যায় এভাবে হবে, ভাবতেও পারিনি। তারা বলেন, আয়োজকেরা যদি নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিয়ে নেয়, তাহলে তো বিচারক হিসেবে আমাদের রাখার প্রয়োজন ছিল না। আমাদের জন্য এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। নাম ঘোষণার ওই মুহূর্তে এত মানুষের সামনে আমরা আয়োজকদের অপমান করতে চাইনি। এখন মনে হচ্ছে, তখন আমাদের এই কাজটি করা উচিত ছিল।


পশ্চিমা দেশগুলোর ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতা তথা বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগিতা মূলত নারীর দেহ প্রদর্শনীরই একটি প্রতিযোগীতা, যে কারণে এই প্রতিযোগিতা নিয়ে বিতর্ক চলে আসছে বহুদিন ধরে। এই প্রতিযোগীতার মাধ্যমে নারীকে ভোগ্য পণ্যের মতই সবার সামনে ‍উপস্থাপন করা হয়। বিশেষ করে মুসলিমপ্রধান দেশগুলোই এর বেশি সমালোচনা করে আসছে।

কিন্তু হঠাৎ করেই এ বছর থেকে বাংলাদেশে এই বিতর্কিত প্রতিযোগীতার আমদানি করেছে কিছু কর্পোরেট গ্রুপ। এতে যারপরনাই ক্ষুব্ধ হয়েছেন দেশের সাধারণ, সুশীল ও ধর্মপ্রিয় মানুষ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মানুষ এ নিয়ে ব্যপক ক্ষোভ প্রকাশ করছে।


বাংলাদেশে প্রথমবারের মত মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের ফ্র্যাঞ্চাইজ নিয়ে এসেছে অন্তর শো-বিজ এবং অমিকন ইন্টারটেইনমেন্ট। গত ২৮ জুলাই থেকে এর রেজিস্ট্রেশন শুরু হয় এবং গতকাল শুক্রবার (২৯ সেপ্টেম্বর) এই বিতর্কিত প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ডফিনালে অনুষ্ঠিত হয়।

গত ২৭ জুলাই মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘এ ধরনের আয়োজনে অংশ নেওয়ার মধ্য দিয়ে প্রতিযোগীরা বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করতে পারবে। আর বিশ্ববাসী জানবে, আমাদের নারীরা অন্য দেশের নারীদের চেয়ে কোনো অংশে পিছিয়ে নেই।’ তিনি বলেন- ‘নারীরা তাঁদের মেধা, সৌন্দর্য, মনন এবং পোশাক-পরিচ্ছদের মধ্য দিয়ে একটা দেশের প্রতিনিধিত্ব করবে। সুতরাং সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় আমাদের অংশগ্রহণে কোনো অসুবিধা নেই।’


নারীদেরকে পণ্য হিসেবে উপস্থাপন করার বিতর্কিত একটি প্রতিযোগীতা নিয়ে মুসলিম প্রধান বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে সমালোচনার ঝড় উঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম জুড়ে। সরকারি সমর্থনে এমন একটি বিতর্কিত প্রতিযোগীতা বাংলাদেশে আয়োজন করায় সমালোচিত হয়েছে সরকারও।


সুন্দরী প্রতিযোগীতাকে নেতিবাচক হিসেবে উপস্থাপন করে প্রথম আলোতে একজন পাঠক মন্তব্য করেছেন- “মিস ওয়ার্ল্ড, মিস ইউনিভার্স এবং ‘মিস আর্থ’ সুন্দরী প্রতিযোগিতা হিসেবে বিশ্বে প্রচলিত রয়েছে। আসলে এগুলো বর্তমান কর্পোরেট জগতে পুরুষদের ভোগ প্রবণতা উস্কে দেওয়ার কার্যকর পন্থা। যার টাকা আছে সে এই বাছাইকৃত সুন্দরীদের ভোগ করবে। আগের দিনের রাজা বাদশারা হেরেমে যা করতো সেটার আধুনিক সংস্করণ আর কি! বাংলাদেশের সাবান আর টিভি কোম্পানির এই জাতীয় অনুষ্ঠানের বিশিষ্ট বিচারক একজন প্রতিযোগীকে কমেন্টস দিয়েছেন, “তোমার পারফরমেন্স ভালো হয়েছে তবে আজকে আমি তোমার যৌবনের আবেদনটা পেলাম না!!” বুঝুন ঠ্যালা।”


আশ্চর্যের ব্যপার হলো এই প্রতিযোগীতায় দেহ প্রদর্শনীর মাধ্যমে নারীদেরকে বাজারি পণ্য বানালেও বাংলাদেশের নারীবাদিরা এ ব্যপারে কোনো উচ্চবাচ্চ্যই কখনো করেনি। প্রথম আলোতে আরেকজন পাঠক তাদের উদ্দেশ করে মন্তব্য করেছেন- “মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানিগুলি নারীদের তাদের পন্যের মত ব্যবহার করছে আর নারী অধিকারগুলি চুপ মেরে আছে।”

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এনিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন সকল শ্রেণীর মানুষ। ওবায়দুর রহমান নামে একজন মন্তব্য করেছেন- “নিজের দেহ ভাড়া দিয়ে বা প্রর্দশন করে আয় করা সম্মানের কিছু নয়। অতি প্রাচীন কাল থেকেই যদিও তা চলে আসছে। সুন্দরী প্রতিযোগীতা বা নাটক সিনেমায় অহেতুক শরীর প্রর্দশন করে আজকাল কিছু নারী পুরুষ পয়সা আয় করছে। সমাজে তাদের নাকি কদর ও খুব। শুধু কি নাটক সিনেমা? কর্পারেট হাউজ গুলিতে গেলে এমন বহু নারী দেখবেন যাদের কাজেই হল নিজেকে পন্যর মত অন্যর কাছে তুলে ধরা। একদল শক্ত সামর্থ অলশ লোক এই বলে ভিক্ষা করে যে তাদের কোন কাজ নেই । তেমনি এই লোকগুলিও শরীর বিক্রির আগে এমন বহু যুক্তি দাড় করায়। যে মানুষ নিজের শ্রম আর মেধা দিয়ে আয় করে সেই প্রকৃত মানুষ। আর যারা কায়দা করে অর্থ উপার্জন করে এদের জন্য শুধুই ঘৃনা।”


দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক) এর উপ পরিচালক ড. মোহাম্মদ জহিরুল হুদা তার ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সুন্দরী প্রতিযোগিতা সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে লিখেছেন- “মেয়েদের প্রতি তত দিন পর্যন্ত সহিংসতা বন্ধ হবে না, যত দিন না পর্যন্ত তারা নিজেদেরকে ভোগ্য পণ্য হওয়া বন্ধ করবে।”


এদিকে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হওয়া মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনকারী প্রতিযোগীদের উদ্দেশ করে পুরুষ বিচারকদের কতিপয় কটু মন্তব্যও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। ভাইরাল হওয়া সেই পোষ্টগুলোতে বলা হচ্ছে- ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ এর বাছাই পর্বে একটা মেয়ে জিনস, টপস আর টপসের উপর লং একটা কোট পরে স্টেজে আসল। জাজদের আসনে দুইজন পুরুষ, একজন মহিলা বসা। একজন পুরুষ জাজ বলল, ‘তুমি কোটটা খুলে ফেলো, তোমাকে যদি নাই দেখতে পারি তাহলে তোমাকে আমরা কিভাবে সিলেক্ট করব?’ মেয়েটা কোট খুলে ফেলল। আর তিন জোড়া চোখ মেয়েটাকে খুব ভালমত দেখতে লাগল।


ভাইরাল হওয়া পোষ্টগুলোর আরেক যায়গায় বলা হয়েছে- “অন্যদের থেকে তুলনামূলক শালীন পোশাক পরা একটি মেয়েকে একজন জাজ প্রশ্ন করল, ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ হতে গিয়ে তোমাকে যদি কোন ডিসঅনেস্টির মধ্য দিয়ে যেতে হয়, তুমি কি যাবে? মেয়েটা বলল, না। জাজ বলল, আমার মনেহয় তোমার আরও শেখার বাকি আছে। পরবর্তী সময়ের জন্য অপেক্ষা করো।”


ভাইরাল হওয়া এই তথ্যগুলোর সত্যতা যাছাই করা সম্ভব না হলেও সচরাসচর সুন্দরী প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানগুলোতে বিচারকরা এমন আচরণই করে থাকেন। নারীকে ভোগ্য পণ্য বানানোর মিশন নেয়া এসব কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোকে সরকারের পক্ষ থেকেই সমর্থন দেয়া হয়। নারীবাদি সংগঠনগুলোর চোখেও এসব কর্মকাণ্ড অপরাধের পর্যায়ে পড়েনা। এছাড়া টাকার খেলায় কেউই তাদের বিরুদ্ধে উচ্চবাচ্চ করার সাহস পায় না।

বাংলাদেশের সাধারন ও ধর্মপ্রিয় মানুষ সুন্দরী প্রতিযোগীতাকে চরিত্র ধ্বংসের হাতিয়ার হিসেবে মনে করছে। তাদের মতে এই পশ্চিমা বিতর্কিত এই প্রতিযোগীতা ৯০ ভাগ মুসলমানের দেশে কোনোভাবেই চলতে পারে না। ইসলামি দলগুলোও ভবিষ্যতে এরকম অনুষ্ঠান আয়োজন হলে রাজপথে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।


প্রত্যেক জনগোষ্ঠীই তাদের নিজস্ব সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে তাদের জাতিসত্তার পরিচয় তুলে ধরতে চায়। কিন্তু আমরা হলাম এর সম্পূর্ণ বিপরীত। আমদানি করা সংস্কৃতির পূজা করতেই আমরা বেশি ভালবাসি। পাশ্চাত্যের উলংগ সংস্কৃতির চর্চা করে আমরা এখন উলংগ হয়ে পথে বসেছি। সংস্কৃতি চর্চার নামে দেশে আজ যা চলছে তা ভাবতেও কষ্ট লাগে। একটি মুসলিম দেশে সংস্কৃতির নামে যে ধরনের অশ্লীল বেহায়াপনা চালু হয়েছে তা আমাদের জাতিসত্তাকে একেবারে ধ্বংস করে দিয়েছে। আমরা যেন একেবারে ভুলে গিয়েছি আমাদের পরিচয় ও অতীত ইতিহাস।

উৎসঃ মানব জমিন

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন