সদ্য সংবাদ

 সবাইকে মাস্ক পরার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর  'প্রতারক' লিটন শিকদার গ্রেপ্তার  ফতুল্লার ভূইঘরে রক্সি ফোম কারখানায় আগুনের ঘটনায় মামলা ॥ গ্রেফতার ১   উৎকোচ নিয়ে ও প্রতিবন্ধির টাকা ও কার্ড কেড়ে নিলেন ইউপি সদস্যা  নবীনগরে ইলিশ মাছ ধরার দায়ে জরিমানা  মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতে প্রবেশকালে ১১ জন আটক  ঝিনাইদহে শিক্ষানবিশ আইনজীবিদের মানববন্ধন  শৈলকুপায় এলজিইডি’র কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন  দুর্নীতির দায়ে কারাগারে সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ  প্রাথমিকে ৩০ হাজার শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ  রূপগঞ্জে বিএনপির মঞ্চে উঠে হামলা, মান্না-তৈমূর আহত  রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে না পাঠাতে আন্তর্জাতিক চাপ রয়েছে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী   র‌্যাম্প মডেল তৈরির নামে ভয়ঙ্কর ফাঁদ   সাঘাটায় নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং র‌্যালী অনুষ্ঠিত   খুলনার কৃষি কর্মকর্তা মিজানের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়  সিইসি মিথ্যা বলছেন, ঢাকা থেকেই ১৬২টি অভিযোগ দেয়া হয়েছে: ফখরুল  নারায়ণগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগ সম্পাদক সন্ত্রাসী মীরু আটক   কারাবাখে ৭ শতাধিক আর্মেনীয় যোদ্ধা নিহত   শিশুদের উন্নত ভবিষ্যত দিতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী  মিঠুন পুত্রের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

১২ লাখ টাকার চুক্তিতে হত্যা করা হয় সালমান শাহকে!

 Sat, Aug 12, 2017 11:55 AM
১২ লাখ টাকার চুক্তিতে হত্যা করা হয় সালমান শাহকে!

ডেস্ক রিপোর্ট : : ১২ লাখ টাকার চুক্তিতে হত্যা করা হয় ঢালিউডের আলোচিত নায়ক সালমান শাহকে।

 বৃহস্পতিবার দেশের একটি বেসরকারি স্যাটেলাইট নিউজ চ্যানেলে এক প্রতিবেদনে নতুন করে এ তথ্য উঠে এসেছে।

সালমান শাহ হত্যা মামলার আসামি রিজভী ১৯৯৭ সালের জুলাইয়ে ১৬৪ ধারায় দেয়া জবানবন্দিতেই ‘১২ লাখ টাকার’ বিষয়টি জানিয়েছিলেন।


জবানবন্দীতে রিজভী বলেন, সালমানকে হত্যা করতে সামিরার মা লাতিফা হক, ডন, ডেভিড, ফারুক, জাভেদের সঙ্গে ১২ লাখ টাকার চুক্তি করেন। তাতে উল্লেখ করা হয়, সালমানকে শেষ করতে কাজের আগে ৬ লাখ ও কাজের পরে ৬ লাখ দেয়া হবে।


রাতে সালমানের বাসায় প্রবেশ করে আসামিরা। জবানবন্দীতে রিজভী বলেন, সালমানকে ঘুমাতে দেখে আসামিরা তার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। ফারুক পকেট থেকে ক্লোরোফোমের শিশি বের করে এবং সামিরা তা রুমালে দিয়ে সালমানের নাকে চেপে ধরে। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে মামলার তিন নম্বর আসামি আজিজ মোহাম্মদ এসে সালমানের পা বাঁধে এবং খালি ইনজেকশন পুশ করে। এতে সামিরার মা ও সামিরা সহায়তা করে। পরে ড্রেসিং রুমে থাকা মই নিয়ে এসে, ডনের সাথে আগে থেকেই নিয়ে আসা প্লাস্টিকের দড়ি আজিজ মোহাম্মদ ভাই সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলায়।


সংবাদ চ্যানেলটির প্রতিবেদনে বলা হয়, জবানবন্দিতে ডন, ডেভিড, ফারুক, জাভেদ ও আসামি রিজভি ছাড়াও ছাত্তার ও সাজু নামে আরো দু’জনের নাম উল্লেখ করা হয়। কিন্ত প্রত্যক্ষ আসামির এই জবানবন্দির পরও যাদের নাম পাওয়া যায় তারা সবসময়ই ছিলো ধরাছোঁয়ার বাইরে। হত্যার এক বছর পর সিআইডির রিপোর্টে বলা হয়- এটি আত্মহত্যা। ১২ বছর পর দেয়া জুডিশিয়াল ইনকোয়ারির রিপোর্টে একই কারণ দেখানো হয়। কিন্তু কোন আসামি বা সংশ্লিষ্ট তদন্ত কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদের কোন অস্তিত্ব নেই রিপোর্টগুলোতে। দু’বারই নারাজি দেন সালমানের পরিবার। ২০১৫ সালে র‌্যাবকে এই মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হলে আইনী জটিলতায় তাও বন্ধ থাকে। ২০১৬ সালে মামলাটি নিম্ম আদালতে পাঠানো হলে তদন্তভার দেয়া হয় পুলিশ পিবিআইকে। এদিকে সালমানকে হত্যার পরিকল্পনা জানার বিষয়টি যে আগে থেকেই রুবি জানতেন তা বোঝা যায় রিজভির জবানবন্দিতে। হত্যার আগে রুবির বাসায় যান হত্যাকারীরা। সূত্র : বিডি-প্রতিদিন/সময় টেলিভিশন

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন