সদ্য সংবাদ

  করোনা: প্রশান্ত মহাসাগরে ১০ মাস নৌকায় ভাসছে শিল্পী দল   রাজশাহী-৪: এমপি এনামুলের বিরুদ্ধে বিয়ে করে প্রতারণা ও ভ্রুণ হত্যার অভিযোগ   ইউনাইটেড হাসপাতালের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ চেয়ে রিট   স্পটে কাউকে পাওয়া না গেলে ধরে নেবেন তার চাকরি নেই: মেয়র তাপস   মতামত উপেক্ষা করে গণপরিবহন চালু কার স্বার্থে?  করোনায় তিন ভাগ হবে দেশ   মুন্সিগঞ্জে ইউএনওসহ নতুন করে ২৪ জন করোনা আক্রান্ত  লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি হত্যা: চার’শ মানুষকে লিবিয়ায় পাচারকারী হাজী কামাল গ্রেফতার  কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র, ৪০ শহরে কারফিউ   রাষ্ট্রপতির ক্ষমাপ্রাপ্ত আসামি ফের হত্যা মামলায় গ্রেফতার  নারায়ণগঞ্জ জেলার করোনাজয়ী ১০১ পুলিশ সদস্যকে সংবর্ধনা দেয়া হবে কাল  ভারতের তাজমহলে বজ্রপাত, ভেঙে গেল দরজাও  ক্ষতিগ্রস্ত সুন্দরবনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানালেন পার্নো মিত্র  এবার ২০ লাখ পরীক্ষার্থীর মধ্যে প্রায় ১৭ লাখ পাস  গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত ‘মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা’   দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৪০ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৫৪৫  বর্ধিত বাসভাড়া প্রত্যাখ্যান, পুর্বের ভাড়া বহাল রাখার দাবী যাত্রী কল্যাণ সমিতির   নবীনগরে সেই আমিরুল গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে  যাত্রী নিয়ে পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ঢাকা গেলো  সাঘাটায় কৃষকের নিকট থেকে বোরো ধান ক্রয়ে উন্মুক্ত লটারী

‘কেন মেরে ফেলা হলো প্রিয় বাবাকে?’

সোহেল তাজের আবেগঘন স্ট্যাটাস,

 Fri, Nov 4, 2016 12:10 PM
‘কেন মেরে ফেলা হলো প্রিয় বাবাকে?’

নিজস্ব প্রতিবেদক :: জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ তাজ উদ্দিন আহমেদকে নিয়ে বৃহস্পতিবার ফেসবুকে একটি আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন তার ছেলে তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ।

 তিনি সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিতে নিজের ফেসবুক পেজের স্ট্যাটাসে বাবাকে নিয়ে তার শৈশবের স্মৃতি তুলে ধরেন।

সোহেল তাজের পুরো স্ট্যাটাস

আজ থেকে ঠিক ৪১ বছর আগে এই দিনে একটি পাঁচ বছর বয়সের ছোট্ট ছেলে হারালো তার প্রিয় বাবাকে। যার হাত ধরে সে যেত বাড়ির পাশে আবাহনির মাঠে। যার হাত ধরে ধানমন্ডির সাতমাসজিদ রোডের রাস্তা দিয়ে হেটে হেটে খুঁজে পেয়েছিল তার প্রথম স্কুল। টেলিভিশনের পর্দায় বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশন আর জাতীয় পতাকা তোলা হলে যিনি সব সময় মনে করিয়ে দিতেন দাঁড়িয়ে স্যালুট করে শ্রদ্ধা প্রদর্শন করতে। যিনি কোমলভাবে বোঝানোর চেষ্টা করতেন মুক্তিযুদ্ধে লাখো মানুষের আত্মত্যাগের কথা। যিনি এই ছোট্ট ছেলেটিকে একটি আত্মবিশ্বাসী দায়িত্বশীল মানুষ হিসেবে নিজেকে তৈরি করার গুরুত্ব শেখানোর চেষ্টা করেছিলেন এবং অনুপ্রেরণা যোগানোর চেষ্টা করেছিলেন নানা কায়দায়।

এ ছেলেটির জীবনটা হঠাৎ করে পাল্টে গেলো একদিন। ছেলেটি দেখতে পেলো একটি লাশ, তার বাবার লাশ। লাশটি রাখা হলো একটি রুমে আর সেই লাশ দেখতে এলো হাজার হাজার মানুষ। সেও অবাক হয়ে দেখতে লাগলো সবার সঙ্গে। পরে সেও গেলো বনানী কবর¯’ানে। সেখানে সবাই তাকে প্রথমে মাটি দিতে বললো, সেও দিলো। তার কাছে মনে হ”েছ এটা যেন একটি স্বপ্ন এবং এই স্বপ্নের মধ্যে দিয়ে সে ভেসে যা”েছ।

আস্তে আস্তে সময় পার হতে লাগলো আর সেই স্বপ্নের আবরণ ধীরে ধীরে কেটে যেতে লাগলো। তারপর থেকে তার মনে খালি প্রশ্ন আর প্রশ্ন। তার কেন বাবা নেই? অন্য সবার তো বাবা আছে। আরও সময় পার হলো কিš‘ প্রশ্নগুলো আরও জটিল হতে লাগলো। কেন মেরে ফেলা হলো প্রিয় বাবাকে? উনি কি অন্যায় করেছিলেন? তাকে জেলে কেন রাখা হয়েছিল? আর জেলখানায় মেরে ফেললো কারা এবং কেন? এই প্রশ্নগুলো যখন তার মাথায় ঘুর পাক খা”েছ তখন সে তার মাকে বলতে শুনত, ‘আমি আমার স্বামী হারিয়েছি, আর আমার সন্তানরা তাদের বাবাকে হারিয়েছে, কিš‘ দেশ কী হারালো? আমাদের ক্ষতি থেকে দেশের আরও মারাত্মক ক্ষতি হয়ে গেলো।’

তারপর ৪১ বছর পার হয়ে গেলো। ছোটবেলার সেই দুঃখ, কষ্ট আর যন্ত্রণা নিয়েই বছরগুলো পার করলো। সে বুঝতে পারল যে তার সত্তা, তার সেই হারানো বাবার মাঝেই লুকিয়ে আছে।
আজ ৩রা নভেম্বর ২০১৬। আজ থেকে ৪১ বছর আগে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিলে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী জাতীয় চার নেতা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রথম সারকারের অ¯’ায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ, অর্থমন্ত্রী ক্যাপ্টেন (অব.) এম মনসুর আলী, খাদ্য ও ত্রাণমন্ত্রী এ এইচ এম কামারুজ্জামান।

বাংলাদেশ তার সত্তা খুঁজে পাবে তখনই, যখন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন (অব.) এম মনসুর আলী, এ এইচ এম কামারুজ্জামানের মতো সব নেতার আত্মত্যাগ, অবদান আমরা সঠিক এবং পৃথকভাবে মূল্যায়ন করতে পারব। তাদের আত্মত্যাগ ও আত্মদান খুলে দিক ইতিহাসের সেই জানালা যার গভীরে ঢুকে এই জাতি খুঁজে পাবে তার সত্তা।
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার ৩ নভেম্বর ছিল জেলহত্যা দিবস। ১৯৭৫ সালের এই দিনে তাজউদ্দিন আহমদসহ জাতীয় চার নেতাকে কারাগারে হত্যা করা হয়।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন