সদ্য সংবাদ

  খুনি নূর হোসেনের ভাতিজা বাদল ভালো, মেয়র আইভী ব্যর্থ!   সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতারে অনুমতির বিধান কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট  বাড়ি ভারতে, অফিস করেন সিলেটে  আবারও ষড়যন্ত্র হচ্ছে: ওবায়দুল কাদের   ই-কমার্সের প্রতারনায় ভুক্তভোগী বাণিজ্যমন্ত্রী  সাবেক প্রতিমন্ত্রী মান্নান খান ও তার স্ত্রীর বিচার শুরু   ১০ হাজার ৫০০ শ্রমিককে ভিসা দেবে যুক্তরাজ্য  দেবীগঞ্জে বাসর রাতে পাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু  ‘চুনকা কুটির নয়, আইভীর হোয়াইট ওয়াশের জ্বালা বিরোধী পক্ষ  বিয়ের পর আমাদের বন্ধুত্ব গাঢ় হচ্ছে: মাহি  বাংলাদেশে কেউ ভালো নেই : মির্জা ফখরুল  টিকা প্রয়োগেই কয়েক হাজার কোটি টাকা ব্যয় হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  টানা তৃতীয়বার জয়লাভ করলেন জাস্টিন ট্রুডো   আটোয়ারীতে ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক  ১১ লাখ টাকা ও হেরোইনসহ ৫মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে না:গঞ্জ ডিবি  প্যারিস চুক্তির কঠোর প্রয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর   সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের চিঠির উৎপত্তি কোথায় সেটাও দেখছি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  সরকার থেকে সাংবাদিকরাও রেহাই পাচ্ছেন না: ফখরুল   ৯০ দিনের মিশন শেষে পৃথিবীতে ফিরেছেন চীনা নভোচারীরা   দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার

অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনকে ঘিরে।

প্রশ্নের মুখে সংস্থাটির কর্তাদের ভূমিকা

 Sat, Aug 21, 2021 10:01 PM
 অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনকে ঘিরে।

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:: কখনো যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, কখনো জলাবদ্ধতা নিরসন

কিংবা পরিবেশগত উন্নয়নে নেয়া প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনকে ঘিরে। সেই সাথে প্রশ্নের মুখে পড়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধিনস্থ এই সংস্থাটির কর্তা ব্যক্তিরাও। এ নিয়ে বহু পূর্বে থেকেই সমালোচনা ও বির্তকিতও হয়েছে।

দীর্ঘ বিরতির পর সংসদীয় কমিটির একটি প্রতিবেদনে দুর্নীতির অভিযোগ আবারও নতুন করে বির্তকে ফেলেছে এই সংস্থাটিকে।

১৮ আগস্ট সেই তুষের আগুনে ঘি ঢেলেছে সংসদীয় কমিটি। সরকারি অডিটে স্থানীয় সরকার প্রশাসন ‘নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন’সহ ১৮টি প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির কথা তুলে ধরা হয়। একই সঙ্গে ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন, বিলবোর্ড, হাট-বাজার ইজারা ও সেলামির টাকা সরকারি কোষাগারে জমা না দেওয়াসহ নানা অনিয়মের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ক্ষতি বা দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করেন। এ সংক্রান্ত একটি নিউজ জাতীয়সহ সকল গণমাধ্যমে ১৯ আগস্ট প্রচার হওয়ার পরপরই আবারও সেই পিছনের দূর্নীতির কথা গুলো সামনে চলে আসে।

গত ২০০৩ সাল থেকে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান ও পরবর্তীতে ২০১১ সাল থেকে এই করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্বে রয়েছেন সেলিনা হায়াত আইভী।

নগরবাসীর প্রয়োজনীয় সেবা প্রদানের মাধ্যমে একটি পরিবেশ বান্ধব, পরিচ্ছন্ন, সুস্থ্য, নিরাপদ ও দারিদ্রমুক্ত পরিকল্পিত নগরী গড়ে তোলা লক্ষ নিয়ে কাজ করছে বলে সংস্থাটি দাবি করছিল। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, এখন দুর্নীতি আর অনিয়মের অভিযোগের বির্তক যেন পিছু ছাড়ছে না।

পূর্বেও ছিল যত বিতর্ক:
সিটি করপোরেশন গঠনের পরপরই সরকারের প্রকল্প তদারকি সংস্থা বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) এক পরিদর্শন প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, অর্থ ব্যয় হলেও এসব কাজের মান খুবই খারাপ। এ অবস্থায় প্রকল্পের অর্থবহ ব্যয় নিশ্চিত করতে তদারকি জোরদার করার পরামর্শ দিয়েছে সংস্থাটি।
প্রতিবেদনে বেশ কয়েকটি প্রকল্পেরও দুর্নীতির চিত্রও তুলে ধরা হয়।

এছাড়া নারায়ণগঞ্জের পঞ্চবটি এলাকায় পার্ক নির্মাণের জন্য ২০১০ সালের ৮ এপ্রিল একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। এ ধরনের চুক্তির সময় টেন্ডার আহ্বানের বিধান থাকলেও তা মানা হয়নি বলে সে সময় অভিযোগ উঠেছিলো। সমালোচনার ঝড় বয়ে গেছে ওই সময়।

এরপরই স্থানীয় সংসদ সদস্য ওই বছর জাতীয় সংসদে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন দুর্নীতি নিয়ে বক্তব্য রাখেন। তিনি স্পষ্টভাবে বেশ কয়েকটি দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন। সংসদ সদস্যের অভিযোগ খণ্ডন করে উত্তর পাঠান সিটি মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী। কিন্তু সিটি কর্পোরেশন থেকে পাঠানো তথ্য-উপাত্তকে ভুল ও মিথ্যা উল্লেখ করে আইভীর বিরুদ্ধে সংসদ অবমাননার অভিযোগ আনেন ওই সংসদ সদস্য। এরপর ওই বছরই স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় তদন্ত কমিটি গঠন করে।

এরপর ২০১৫ সালের আগষ্টে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীর বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির বিষয়ে তদন্ত করার জন্য চিঠি দেয়া হয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনকে। দুর্নীতি দমন কমিশনকে তদন্ত করার জন্য চিঠি দিয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি এই বিষয়ে তদন্ত করার পর দুর্নীতি দমন কমিশনকে চিঠি দেয় বলে জানা গিয়েছিল।

ওই বছরের জানুয়ারি মাসে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের পাশে লামাপাড়ায় উন্মুক্ত স্থানে ময়লা ফেলার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করেছিল পরিবেশ অধিদপ্তর।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন