সদ্য সংবাদ

  মালয়েশিয়া কারাবন্দি অভিবাসীদের ফেরত পাঠাবে মালয়েশিয়া  করোনা সংক্রমণ এবং মৃত্যুর হার দ্রুত বাড়ছে -ফখরুল  ভারতে এক খুন লুকাতে ৯ খুন!   দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ১১৬৬, মৃত্যু ২১  করোনায় আক্রান্ত ৩৫৭৪ জন পুলিশ সদস্য   বলিউডে নাম লেখাতে যাচ্ছেন মিঠুন চক্রবর্তীর মেয় দিশানি  ট্রাম্পের সেই হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন ওষুধে করোনা রোগীর মৃত্যুঝুঁকি   গণস্বাস্থ্য করোনা পরীক্ষা করবে, সবার জন্য উন্মুক্ত   চুমু দিয়ে গ্রে প্রেমিকাকেফতার ইরানি খেলোয়াড়  পোশাক কারখানা মালিকের কান্না আন্তর্জাতিক মাধ্যমে   করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি পুতুল   সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপারে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩, আহত ৪   হরিণাকুন্ডু নাগরিক সেবা বন্ধ ঘোষণা ইউপি চেয়ারম্যানদের   ঝিনাইদহের ডালিয়া ফার্মে প্রতিদিন ফ্রি দুধ বিতরন   পাকিস্তানের করাচিতে যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ৩৭   করোনায় আক্রান্ত র‍্যাব ৪-এর অধিনায়ক  চাঁদ দেখা যায়নি। সৌদি আরবে ঈদুল ফিতর রবিবার  আশুলিয়ার আউকপাড়া মাদক ব্যবসায়ী ও চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি।  করোনার কারণে প্রবাসীদের ৮৭ শতাংশের আয়ের কোনো উৎস নেই  দুবাই সরকারকে ধন্যবাদ জানালেন ফিরে আসা সাংবাদিক এইচ ইমরান।

টাকার অভাবে সিনিয়র সম্পাদনা সহকারীর মৃত্যু, আলোকিত বাংলাদেশে উত্তেজনা

 Sun, Feb 3, 2019 11:24 PM
 টাকার অভাবে সিনিয়র সম্পাদনা সহকারীর মৃত্যু, আলোকিত বাংলাদেশে উত্তেজনা

এশিয়া খবর ডেস্ক:: দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশের সিনিয়র সম্পাদনা সহকারী এটিএম সিদ্দিকুল ইসলাম খন্দকারের মৃত্যু

নিয়ে সাংবাদিকদের মাঝে ব্যাপক উত্তেজনা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।



শনিবার (২ ফেব্রুয়ারি) সকাল সোয়া ৬টায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান সিদ্দিকুল ইসলাম। এর আগে তিনি বুধবার(৩০ জানুয়ারি) রাতে হার্ট অ্যাটাকে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। চিকিৎসকরা তাকে ৭২ ঘণ্টার অবজারভেশনে রেখেছিলেন।


তার মৃত্যুর ঘটনার পর ডিউজের ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্য ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী পত্রিকাটির অফিসে আসেন। সিদ্দিকুল ইসলামের সহকর্মীরা জানান, গত নভেম্বর মাসে তাকে অনৈতিকভাবে চাকরিচ্যুত করে আলোকিত বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ। এরপর তার পাওনা পরিশোধ না করে কর্তৃপক্ষ গত তিন মাস ধরে টালবাহানা করে যাচ্ছে। পাওনা টাকার জন্য তিনি কর্তৃপক্ষের কাছে বহুবার গিয়েছেন।



এক পর্যায়ে এ বিষয় নিয়ে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ ভূমিকা রাখেন। কিন্তু অদ্যবধি তার পাওনা পরিশোধ করেনি আলোকিত বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ। তিনি দুশ্চিন্তায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এর জন্য সিদ্দিকুল ইসলামের সহকর্মীরা আলোকিত বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছেন।


এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা চলছে।


সিদ্দিকের সহকর্মীরা জানান, আলোকিত বাংলাদেশ কার্যালয় একটি মেন্টাল টর্চার সেলে পরিণত হয়েছে। কর্মরত সাংবাদিক-কর্মচারীরা প্রতিনিয়ত এই টর্চার শিকার হচ্ছেন। এর আগেও আরেক সম্পাদনা সহকারী মুরাদ হার্ট-অ্যাটাকে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তিনি এখনও চিকিৎসাধীন আছেন।


এছাড়া সম্প্রতি স্পোর্টস এডিটর আজম মাহমুদকেও অবসরের নামে অনৈতিকভাবে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। তিনিও শারিরিক ও মানসিকভাবে ভীষণ অসুস্থ্য। এসব কারণে অতিষ্ট হয়ে অনেকেই চাকরি ছেড়ে দিয়েছেন।


বিভিন্ন অজুহাতে গত সাড়ে পাচ বছরে ৬০% চাকরিচ্যুত করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন কর্মীরা। মাসের পর মাস বেতন বকেয়া রাখা হচ্ছে। ছাটাই করার সাংবাদিক কর্মচারীদের পাওনা বুঝিয়ে না দিয়ে ওপরন্ত নানাভাবে হুমকি-ধমকি দেওয়া হচ্ছে। অকারণে কয়েকজন সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগে থানায় জিডি করা হয়েছে।


তারা অভিযোগ করে বলেন, বিশেষ করে সিদ্দিকুল ইসলামকে যারা মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে অবিলম্বের তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করছি।


এ ব্যাপারে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী  বলেন, এটিএম সিদ্দিকুল ইসলাম খন্দকার পত্রিকাটির (আলোকিত বাংলাদেশ) কাছে ৫ লাখ টাকা পাবেন। এ নিয়ে আমাদের কাছে অভিযোগ ছিল। বিষয়টি নিয়ে পত্রিকাটির এইচআর, সার্কুলেশন ম্যানেজার ও অ্যাকাউটেন্টসহ আমরা আলোচনায় বসেছি। তাকে যে গ্রেডে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল তা পরিশোধ না করে ডাউন গ্রেডে বেতন দেওয়া হচ্ছিল। তবে সে গ্রেডে হিসেব করেও ৫ লাখ টাকা পাওনা হয়েছিল। সে টাকাও পরিশোধ করা হয়নি।


তিনি বলেন, এটিএম সিদ্দিকুল ইসলাম খন্দকারের মৃত্যুর পর আমরা পত্রিকাটির অফিসে যাই। মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে। তিনি যে গ্রেডে নিয়োগ নিয়েছেন সে গ্রেডেই তাকে বেতন দিতে হবে।


এ ব্যাপারে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আতিকুর রহমান চৌধুরী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সিদ্দিক ভাই প্রাপ্য বিভিন্ন ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। তার সব পাওনা পেলে আজকের এ দশা হতো না।


ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতা আলোকিত বাংলাদেশ ইউনিটের ডেপুটি চিফ সিরাজুল ইসলাম  বলেন, সিদ্দীক ভাই টাকার অভাবে মারা গেছেন। তিনি আলোকিত বাংলাদেশের কাছে ১৬ লাখ টাকা পেতেন। পরবর্তীতে আলোচনা করে তাকে ৪ লাখ ৬১ হাজার টাকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়া হলেও তিনমাস তাকে ঘোরানো হয়। ফলে তিনি টাকার অভাবে আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন। তার মৃত্যুর জন্য আলোকিত বাংলাদেশ দায়ী।


এ ঘটনার পর পত্রিকাটির সার্ভার বন্ধ ছিল। পরে রাত ৯টা ১৮ মিনিটে সার্ভার চালু হয়। পরে সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর আগামীকাল (সোমবার) পত্রিকা বের হচ্ছে।


সম্পাদনা সহকারী এটিএম সিদ্দিকুল ইসলাম খন্দকারের পাওনা টাকার বিষয়ে জানতে চাইলে আলোকিত বাংলাদেশের সম্পাদক কাজী রফিকুল আলম বলেন, মৃত্যুর পরে এরকম অনেকেই বলে। আমাদের কাছে (সিদ্দিকুল) কোনো টাকা পাবে না। সোমবার সকাল ১১টায় বৈঠক করে বিষয়টি সমাধান করা হবে বলে জানান তিনি।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন