সদ্য সংবাদ

 সারাদেশে করোনায় আক্রান্ত ১১৩০২ পুলিশ সদস্য   দেবীগঞ্জে ভারি বর্ষণ পানি তোড়ে ভেসে গেছে সড়ক  পুরনো এক্স-রে মেশিনে নতুন রঙ: দুর্নীতি ধরলেন সংসদ সদস্য  নবীনগরে চাচাতো ভাইয়ের ঘুষির আঘাতে বড় ভাই নিহত  সাঘাটায় নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতকরণে ওয়ার্কসপ অনুষ্ঠিত  প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ১২ সদস্যের ডেল্টা কাউন্সিল গঠন   মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি,সাক্ষীরা জানেনা তারা ঘটনার সাক্ষী   দেশে ভয়াবহ দুঃশাসন চলছে: ফখরুল   বাংলাদেশি গার্মেন্টস কর্মীদের টাকা পাঠাচ্ছেন এক ভিনদেশি ব্যবসায়ী   ডিসি পদে নিয়োগ পাওয়া কয়েকজনকে ঘিরে বিতর্ক   দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রেকর্ড ৩৬.০১৬ বিলিয়ন ডলার  চাকরির বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে ৩ নারীসহ গ্রেপ্তার ৭   করোনামুক্ত হলেন জোকোভিচ ও তার স্ত্রী  বাজেটে রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুটের সুযোগ বেড়েছে : ফখরুল   রাষ্ট্রায়ত্ত সব পাটকল বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার   করোনা: ঝিনাইদহ জেলা, ৫ জনের মৃত্যু আক্রান্ত ২৩৬!  প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ইউপি সদস্য ধরা  কুয়েতে এমপি পাপুল ব্যাংক হিসাবে ১৩৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা জব্দ।  আড়াইহাজারে মন্দিরে অগ্নি সংযোগ ঘটনা  রূপগঞ্জে হত্যা পর লাশে সিমেন্টের প্রলেপ

১০ বছরের মেয়াদের গাছ ১৭ বছর উত্তীর্ণ

উপকারভোগীরা কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা পাচ্ছেনা!

 Sun, Jul 28, 2019 9:46 PM
১০ বছরের মেয়াদের গাছ ১৭ বছর উত্তীর্ণ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি॥: সামাজিক বনায়ন কর্মসূচীর আওতায় বিগত ২০০২-২০০৩ অর্থ বছরে

পঞ্চগড়-দিনাজপুর মহাসড়কের পাশে বিভিন প্রজাতির গাছ লাগানো হয়। উপকারভোগীদের সাথে সরকারের (বনবিভাগ)এর চুক্তি হয় গাছের বয়স ১০ বছর হলেই এই গাছ নিলামের মাধ্যেমে কেটে ফেলতে হবে। অথচ ২০০২-২০০৩ হতে বর্তমান ২০১৯ সাল অতিবাহিত হতে চরছে। কোন সাড়া নেই কর্র্তপক্ষের। উপকারভোগীরা র্দীঘদিন ধরে পঞ্চগড় বনবিভাগে ধর্ণা দিলেও কোন ফয়দা হয়নি। গাছগুলি আজ বয়সের ভাড়ে নষ্ট হতে চলেছে। আবার কেউ কেউ এসব গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে। কোন নিয়ম নীতির বালাই নেই।
 সম্প্রতি পঞ্চগড় সদর আটোয়ারী উপজেলার ধামোর, মির্জাপুর ও পঞ্চগড় সদর উপজেলার ধাক্কামারার খোলাপাড়া, মাগুড়া ইউনিয়নের দলুয়া, ঝলই হাট  ও বোদা উপজেলার বেংহাড়ী ইউনিয়নে এমন চিত্র ফুটে উঠেছে। এছাড়া পঞ্চগড়-আটোয়ারী মহাসড়কের পাশে গাছ-গাছারি উপড়ে গেছে। এদিকে ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে এসব এলাকার আম-কাঠাল, ইউকিলিপটার্স সহ নানা জাতের ফলজও বনজ গাছ। 
ওই দিনের রাতে ঝড়ের পর জেলার আন্তঃসড়ক মহা সড়ক গাছ পড়ে বন্ধ হয়ে যায় এরপর ফায়ার সার্ভিস সহ জেলার পুলিশ কবাহিনী ও আম-জনতা এসব গাছ কেটে অনেক কষ্টে সড়ক চলাচলে সহায়তা করে।এদিকে ঝড়ে কারনে পঞ্চগড়-দিনাজপুর মসহাসড়কে বন বিভাগ ২০০৩ ইং সালে উপকারভোগীদের জন্য বিভিন্ন জাতের গাছ লাগিয়েছিলেন। এসব গাছের প্রায় এখভাগ গাছ ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে।
খাঁপুকুর গ্রামের আব্দুল খালেক, ধকরাহাটের নজরুল ইসলাম সহ অনেক উপকারভোগীরা জানান, চুক্তি অনুযায়ী ১০ বছরের মধ্যে গাছ নিলামে বিক্রি করে সমুদয় অর্থ উপকারভোগী সহ জমির মালিক(সওজ) ও বন বিভাগের মধ্যে ভাগ করে দেয়ার নিয়ম। অথচ ১৭/১৮ বছর হয়ে গেলো বন বিভাগ কোন উদ্যোগ নিচ্ছেনা। নজরুল ইসলাম জানান, বন বিভাগকে দু’দুবার আবেদন দিয়েছি এক প্রতিজন ৩‘শ ৪’শ টাকা দিয়ে গাছের মার্কিং করেছি। কিন্তু আজ অবধি কোন গাছ কাটার খবর নেই। বীট কর্মকর্তা রতন লাল মোহরকে মুঠো ফোনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে, তিনি বলেন, আমি কি করবো’। এসব গাছের দায়িত্ব বলে ফোন বন্ধ করে দেন।এই বনায়নের প্রায় ৫০টি গাছ উপড়ে-দুমরে মুচরে গেছে।
এবিষয়ে পঞ্চগড় বন বিভাগের রেঞ্জার মোঃ রুহুল আমিন জানান, আমি কদিন আগে আসলাম। কোন চুক্তিনামা পাইনি। পঞ্চগড় সদর বীটকে বলেছি রিপোর্ট করার জন্য ‘ দেখি তিনি কি করেন। তবে এসব গাছ ঝড়ে পড়ে যাওয়ার পর যে যার মত করে গাছ নিয়ে যাচ্ছে। জানা যায়, এই বনায়নের গাছে ৯০ জন উপকারভোগী আছে। তারা গাছ কাটার অনুমতি না পাওয়ায় হায়-হতাশ করছে। সড়ক (সওজ) বিভাগ পঞ্চগড়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোঃ জহুরুল হক বলেন, আমি খোজঁ নিয়েছি ‘ এসব গাছ উপকারভোগীরা বাড়ীতে নিয়ে জড়ো করছে।
এ বিষয়ে উপকারভোগীরা জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।
 
 

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন