সদ্য সংবাদ

 সানারপাড় উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্যদের থেকে জোরপূর্বক স্বাক্ষর আদায়ের অভিযোগ  এবারও ব্রিটেনের নির্বাচনে টিউলিপসহ ৪ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নারী বিজয়ী  কাদের মোল্লাকে ‘শহীদ’ বলায় দৈনিক সংগ্রাম পত্রিকার অফিস ভাংচুর   নারায়ণগঞ্জে এসপির তৎপরতায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির আগের চেয়ে ভালো।  ফোর্বসের প্রভাবশালী ১০০ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনা  উত্তাল আসাম : এবার ভারত সফর বাতিল করলেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী  সংকট মোকাবেলায় ২০ লাখ পাসপোর্ট কিনছে সরকার  মধুচন্দ্রিমায় নার্ভাস মিথিলা!  কারাগারেই থাকতে হচ্ছে খালেদা জিয়াকে  বিএনপি কর্মী ভেবে পুলিশকে পেটালেন ওসি  দেশের রাজনীতিতে স্থায়ী সংঘাত সৃষ্টি হল: মির্জা ফখরুল   থানায় যুবলীগ নেতার জন্মদিন পালন করা সেই ওসি মোস্তফাকে প্রত্যাহার  চাটখিলে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষনের চেষ্টা ,গ্রেফতার ২  আসামে কারফিউ ভেঙে বিক্ষোভ, পুলিশের গুলিতে নিহত ৩   এবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফর স্থগিত  গোপালগঞ্জস্থ কোটালীপাড়া সমিতি'র সভাপতি জলিল খান, সম্পাদক গোলাম হায়দার  রেলের সকল ভূ-সম্পত্তি অবৈধ দখলমুক্ত করা হবে  রংপুরে দিনব্যাপী ‘আঁশকল’ যন্ত্র ব্যবহারের অভিজ্ঞতা বিনিময় বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত  পঞ্চগড়ে কেয়ারটেকারের বিরুদ্ধে পৈত্তিক বাড়ী ও জমি দখলের অভিযোগ  ঝিনাইদহ পৌরসভায় পাইলট প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়নে মতবিনিময় ও প্রশিক্ষণ কর্মশালা

ডিসির কাছে যুগ্মসচিব পরিচয় দিয়ে ধরা

 Thu, Oct 31, 2019 9:46 PM
ডিসির কাছে যুগ্মসচিব পরিচয় দিয়ে ধরা

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:: টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক (ডিসি) কার্যালয়ে যুগ্মসচিব পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে ২ জনকে আটকের পর কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বুধবার রাতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট সুখময় সরকার এই আদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরাতরা হলেন- দিনাজপুর জেলার খানসাবা উপজেলার পাঠানপাড়া গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে ও ভুয়া যুগ্মসচিব আশরাফ আলী এবং গাজীপুর জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার উত্তর খইবাড়া গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ছেলে মুমিন আকন্দ।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুখময় সরকার বলেন, প্রতারক আশরাফ আলী নিজেকে যুগ্মসচিব পরিচয় দিয়ে জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলামের সঙ্গে দেখা করতে চান। গণশুনানী চলার সময় তিনি নিজেকে যুগ্মসচিব পরিচয় দিলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের গোপনীয় শাখার কর্মচারিদের সন্দেহ হয়। পরে তারা তাকে বসতে বললে তিনি আরও উত্তেজিত হয়ে যান। এক পর্যায়ে গোপনীয় শাখার কর্মচারিদের হুমকি-ধমকি দেন তিনি। পরে জোরপূর্বক জেলা প্রশাসকের কক্ষে ঢুকে অসংলগ্ন আচরণ করেন। এ সময় জেলা প্রশাসকের সন্দেহ হলে তিনি পুলিশ ডাকেন। পরে বাইরে অবস্থানরত তার সহযোগীকেও গ্রেফতার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে আশরাফ পুলিশের কাছে বলেন, বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে চাকরির কথা বলে তিনি টাকা নেন। তারা গত তিন মাসের মধ্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন কার্যালয়ে গিয়েছেন। বিভিন্ন দপ্তরে একেক পরিচয় দেন। কখনও যুগ্মসচিব, কখনও বিচারপতির ভাই, আবার কখনও রাজনৈতিক নেতার এপিএস পরিচয়ে চলতো তাদের প্রতারণা।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন