সদ্য সংবাদ

 পঞ্চগড়ে টিসিবি’র পেয়াঁজ বিক্রি শুরু  পঞ্চগড় থেকে দুর্নীতি বিরোধী নতুন ক্যাম্পেইনে  কোটচাঁদপুরে জোরপুর্বক অসহায় কৃষকের জমি দখলের চেষ্টা ১৪৪ ধারা জারী  ঝিনাইদহ গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎে দায়ে অবশেষে বদলী  আড়াইহাজারে অস্ত্র সহ ৫ ডাকাত গ্রেফতার  নবীনগরে সেচ্ছাশ্রমে পল্লী চিকিৎসকদের চিকিৎসা সামগ্রী বিতরণ  সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদান রাখায় সাংবাদিক মোঃ জাফরুল হাসানকে সম্মাননা পদক প্রদান  পার্বতীপুরে পিকেএসএফ এর প্লট প্রদর্শনী  রংপুরে আন্তর্জাতিক ও জাতীয় প্রতিবন্ধি দিবস পালিত  পাটলাই নদীতে চাঁদা আদায়কালে ছয় চাঁদাবাজ আটক  তহশীলদার সহ সুনামগঞ্জে চার জুয়ারী কারাগারে!  নবীনগরে কৃষকের সম্পত্তি দখলের পায়তারা জোরপূর্বক ঘরের ভিটি তৈরী  ইয়োগার মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছে ঝিনাইদহের ইয়োগা মেডিটেশন সেন্টার  ঝিনাইদহের মধুহাটি ইউপি নায়েবের বিরুদ্ধে ব্যাপক ঘুষ বানিজ্য ও কর পরিশোধ রশিদ ছিড়ে ফেলার অভিযোগ  মহেশপুর নিশ্চিন্তপুর গ্রামের এতিম চারটি ভাই বোনের ঠিকানা এখন রাস্তায় !  ঝিনাইদহে নিম্নমানের ইট বালি দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়ক নির্মাণ  আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় তথ্যপ্রযুক্তি ভিত্তিক জ্ঞান অর্জন করতে হবে : রেলপথ মন্ত্রী  ঝিনাইদহে নিখোঁজের ৪ দিন পর মাদ্রাসাছাত্রের গলাকাটা লাশ উদ্ধার  পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার উপলক্ষে পঞ্চগড়ে এ্যাডভোকেসি প্রেস ব্রিফিং  পঞ্চগড়ে সীমান্ত কল্যাণ পরিবার সমিতির শীতবস্ত্র বিতরণ

পেঁয়াজ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনায় সরগরম

 Sun, Nov 17, 2019 10:01 PM
পেঁয়াজ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনায় সরগরম

পঞ্চগড় প্রতিনিধি॥: ॥ পেয়াঁজের বাজার নাগালের বাইরে চলে যাওয়ায় সরগরম শহর-বন্দর।

চায়ের আড্ডা থেকে শুরু করে মাঠের আড্ডা এমনকি সামাজিক যোগাযোগেরমাধ্যমেও পেঁয়াজের দাম নিয়ে চলছে আলোচনা, ট্রল ও ঠাট্টা মশকরা। তবে নিম্ন আয়ের সাধারণ ক্রেতারা বেশ বিপাকেই পড়েছেন। চাল, ডাল, মাংস সব কিছুকেই এখন ছাড়িয়ে গেছে পেঁয়াজ। অনেকে পেঁয়াজ কিনতে এসে নিরাশ হয়ে খালি হাতেই বাড়ি ফিরছেন। কেউ কেউ পেঁয়াজ খাওয়া বাদ দেয়ারও চেষ্টা করছেন। উচ্চ বিত্তরা একটু বেশী পেঁয়াজ কিনলেও নিম্মবিত্তরা কিনছে আধা কেজি বা ২৫০ গ্রাম।
সাধারন ক্রেতারা বলছেন, প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৫০ টাকার বেশী ক্রয় করা আমাদের দ্বারা সম্ভব নয়’। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী হামিদুল  বলেন, ভাই পেঁয়াজ ছাড়া তরকারি কখনো খাইনি’। এখন কি করে পেঁয়াজ ছাড়া তরকারি খাই’ বলেন দেখি। এখন ২৫০ গ্রামের বেমী পেয়াঁজ ক্রয় করা সম্ভব হচ্ছেনা।
শনিবার দুপুরে পঞ্চগড় কাঁচা বাজারে গিয়ে দেখা যায় পেঁয়াজ ব্যবসায়ীদের ঘরে তেমন পেঁয়াজ নেই। নেই তেমন ক্রেতাও। গত দুই দিনে পেঁয়াজের দাম ২০০ টাকা কেজি থেকে ২৪০ টাকায় উঠেছে। গ্রামের বাজারে তা গিয়ে ঠেকেছে ২৬০ টাকায়। দাম বাড়ায় ক্রেতাদেরও তেমন চাহিদা নেই পেঁয়াজে। অনেকেই আগে কেজি ধরে পেঁয়াজ কিনলেও এখন তারা আড়াইশ গ্রামের বেশি পেঁয়াজ কিনছেন না। পাইকারী বাজার থেকে খুচরা বিক্রেতারা দেশি পেঁয়াজ ২৩০ টাকায় এবং মিয়ানমার থেকে আসা পেঁয়াজ ২২০ টাকায় কিনছেন। খুচরা বিক্রেতারা দেশি পেঁয়াজ ২৪০ টাকায় এবং মায়ানমারের পেঁয়াজ ২৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন। পঞ্চগড়ের ইসলামবাগ এলাকার শরিফুল ইসলাম নামে এক ক্রেতা বেছে বেছে ৫টি মাঝারি ধরণের পেঁয়াজ তুলে দিলেন পরিমাপক যন্ত্রে। ওজন হলো দেড়শ গ্রাম। বিক্রেতা ওই পাঁচ পেঁয়াজের দাম হাকালেন ৩৬ টাকা। বেচারা ক্রেতা ৩৫ টাকা দিয়ে পেঁয়াজগুলো ব্যাগে ভরে বাড়ি রওনা হলেন।

বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা রাজ্জাকুল ইসলাম বলেন, আগে ৩০ টাকায় এক কেজি পেঁয়াজ পাওয়া যেতো। এখন অনেক দোকানদার ৩০ টাকার কম পরিমাণের পেঁয়াজ বিক্রিই করছেন না। আমাদের অল্প আয়ের মানুষের খুব কষ্ট হয়ে গেছে। ভাবত অবাক লাগে ২৬০ টাকায় ১০ কেজি চাল যাওয়া যায়, আধা কেজি মাংস পাওয়া যায়, আধা মণ ধান পাওয়া যায় অথচ ২৪০ থেকে ২৬০ টাকায় এখন ১ কেজি পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে। সরকার দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে আমরা চরম দুর্ভোগে পড়বো।
আকিমুল ইসলাম নামে এক বৃদ্ধ জানান, গ্রামের বাজারে পেঁয়াজের দাম ২৬০ টাকা কেজি। বাড়িতে ছোট্ট একটি অনুষ্ঠান আছে তাই পঞ্চগড় বাজারে আসছি। ২৪০ টাকায় ২ কেজি পেঁয়াজ কিনলাম। পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ এলাকার কৃষক মুসলিম উদ্দিন জানান, যখন আমরা বেশি পেঁয়াজ করি তখন দাম কমে যায় আর লোকসান গুণতে হয়। এবার অল্প পরিমাণে পেঁয়াজ করেছি। এখন বাজারে দাম আকাশ ছোঁয়া। 
পেঁয়াজ ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান বলেন, টেকনাফেই পেঁয়াজ ২১০ টাকা কেজি দরে কিনতে হচ্ছে। আমরা এখানে দেশি পেঁয়াজ ২৩০ টাকা এবং মায়ানমারের পেঁয়াজ ২২০ টাকা কেজি দরে পাইকারী বিক্রি করছি। দাম হওয়ায় হঠাৎ দাম কমে যেতে পারে এই আশঙ্কায় কেউ বেশি পরিমাণে পেঁয়াজ কিনছে না। যতদিন আমাদের নিজস্ব পেঁয়াজ উঠবে না ততদিন দাম কমবে না বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি। কফিল উদ্দিন নামে আরেক ব্যবসায়ী বলেন, আগে আমরা প্রতিদিন ৭০ বস্তা থেকে দেড়শ বস্তা পর্যন্ত পেঁয়াজ বিক্রি করতাম। এখন ১৫ থেকে ২০ বস্তাও বিক্রি হয় না। সরাসরি পেঁয়াজ কিনলে লোকসানের আশঙ্কা বেশি। তাই আমরা বেপারিদের সাথে কমিশনেই ব্যবসা করছি।পেঁয়াজের খুচরা ব্যবসায়ী হারুন অর রশিদ বলেন, পেঁয়াজের ক্রেতা নাই বললেই চলে। যারা কিনছেন তারাও খুব অল্প পরিমাণে কিনছেন। অনেকেই দাম শুনে ফিরে যাচ্ছেন।  জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আবু হানিফ জানান, পঞ্চগড়ে যেসব এলাকায় চাষীরা পেঁয়াজ চাষ করেছেন তারা আগামী ২০ থেকে ৩০ দিনের মধ্যেই তুলতে পারবেন। এই পেঁয়াজ বাজারে আসলে পেঁয়াজের দাম কমে যাবে।  রেলমন্ত্রী এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, আমরা পেঁয়াজ চাষ কমিয়ে দিয়েছি তাই আজ আমাদের বেশি দামে পেঁয়াজ খেতে হচ্ছে। আমরা আগের মতো পেঁয়াজ চাষ করলে এই ঘাটতি থাকতো না। অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি আমাদের পেঁয়াজও চাষ করতে হবে। তাহলে এমন পরিস্থিতিতে পড়তে হবে না।রোববার বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, কেজিতে ২০ টাকা কমে পেয়াঁজ বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ২০০ টাকা। ব্যবসায়ীরা বরছেন, আমদানী বাড়লেই দাম আরো কমতে পারে।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন