সদ্য সংবাদ

 সংকট মোকাবেলায় ২০ লাখ পাসপোর্ট কিনছে সরকার  মধুচন্দ্রিমায় নার্ভাস মিথিলা!  কারাগারেই থাকতে হচ্ছে খালেদা জিয়াকে  বিএনপি কর্মী ভেবে পুলিশকে পেটালেন ওসি  দেশের রাজনীতিতে স্থায়ী সংঘাত সৃষ্টি হল: মির্জা ফখরুল   থানায় যুবলীগ নেতার জন্মদিন পালন করা সেই ওসি মোস্তফাকে প্রত্যাহার  চাটখিলে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষনের চেষ্টা ,গ্রেফতার ২  আসামে কারফিউ ভেঙে বিক্ষোভ, পুলিশের গুলিতে নিহত ৩   এবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফর স্থগিত  গোপালগঞ্জস্থ কোটালীপাড়া সমিতি'র সভাপতি জলিল খান, সম্পাদক গোলাম হায়দার  রেলের সকল ভূ-সম্পত্তি অবৈধ দখলমুক্ত করা হবে  রংপুরে দিনব্যাপী ‘আঁশকল’ যন্ত্র ব্যবহারের অভিজ্ঞতা বিনিময় বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত  পঞ্চগড়ে কেয়ারটেকারের বিরুদ্ধে পৈত্তিক বাড়ী ও জমি দখলের অভিযোগ  ঝিনাইদহ পৌরসভায় পাইলট প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়নে মতবিনিময় ও প্রশিক্ষণ কর্মশালা  ঝিনাইদহের মোবারকগঞ্জ চিনিকলের করুণ দশা, ১৯৪ টাকার উৎপাদিত চিনি বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকায়  কালীগঞ্জে মাদ্রাসা ছাত্র জবাই করে হত্যা মামলায় গ্রেফতার নেই, হতাশ পরিবার ও এলাকাবাসি!  রংপুরকে গুড়িয়ে দিয়ে উড়ন্ত সূচনা করল কুমিল্লা  কেরানীগঞ্জে প্লাস্টিক কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১, দগ্ধ ২৮  আমরা এখনও বিচার বিভাগকে বিশ্বাস করি: রিজভী  মিয়ানমারকে মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধ করতে হবে: মিলার

এসপি হারুনের প্রেতাত্মারা জেলাকে অস্থিতিশীল করার যড়যন্ত্র করছে

দোসরদের আর্তচিৎকার

 Sun, Nov 17, 2019 11:19 PM
  এসপি হারুনের প্রেতাত্মারা জেলাকে অস্থিতিশীল করার যড়যন্ত্র করছে

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:: বিতর্কিত এসপি হারুন ছাড়া যেন নারায়ণগঞ্জ অচল।

 তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলায় যখন ছিলেন না তখন মনে হচ্ছে অচল ছিল নারায়ণগঞ্জ। গাজীপুর থেকে এসপি হারুন চলে আসার পর যেন এখন আর গাজীপুর বাংলদেশের মানচিত্র থেকে হারিয়ে গেছে। নারায়ণগঞ্জে এসপি হারুনের দোসরদের আর্তচিৎকার দেখে এমনটাই মনে হচ্ছে । মনে হচ্ছে নারায়ণগঞ্জও ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের মানচিত্র থেকে। সুবিধাভোগিরা এখনও বলছেন, ফিরে আসছে হারুন। দিবাস্বপ্নে তাদের রাত কাটছে চেয়ে চেয়ে। ভালবাসায় গদ গদ হয়ে রাত জেগে জেগে চোখের নীচে কালি জমতে শুরু করেছে সুবিধাভোগিদের। অপরদিকে হারুনের রোষানলে পড়া ব্যবসায়ীরা বলছেন, নয় মন ঘিও পুড়বে না, রাধাও আর নাচবে না।
নারায়ণগঞ্জের একজন জনপ্রিয় জনপ্রতিনিধি বলেন, প্রথম দিকে জেলায় এসে তিনি যেভাবে শুরু করেছিলেন তা জনগনের সমর্থন পেয়েছেন। কিন্তু মাত্র ২/৩ মাসের মধ্যেই তিনি পুরো নারয়ণগঞ্জকে গিলে খেতে শুরু করেন। রয়ে শয়ে খেতে পারতেন। আমরা জানি নারায়ণগঞ্জে আপনারা আসেন খাওয়ার জন্য। তবে সে খাওয়াটাতো হতে হবে জনবান্ধব। রাজনৈতিক নেতাদের মত নানা মুখরোচক বক্তব্য দিয়ে প্রকাশ্যে করেছেন ষ্ট্যান্ডবাজি। অন্তরালে তিনি শুরু করেন অপকর্ম। মিডিয়াও তাকে প্রথম দিকে সমর্থন দিয়েছে। এই সমর্থনের সুযোগে একজন পুলিশ অফিসারকে ব্যবহার করে এসপি হারুন মিডিয়ার একটি অংশকে আর্থিক সুবিধা দিয়ে তার দালালে পরিনত করেছেন। মোটামুটি এসপি হারুনের ১১ মাসে তার দেয়া টাকায় চলেছে অনেকের সংসার। ফলে এসপি হারুনকে প্রত্যাহারের পর তারা পড়ে গেছেন অর্থ সংকটে। অর্থ সংকটে পড়ে এখন তারা অনেকটাই দিশেহারা। ফলে বিভিন্ন থানা ও ডিবি পুলিশে থাকা এসপি হারুনের প্রেতাত্মাদের দিয়ে চলছে জেলাকে অস্থিতিশীল করার যড়যন্ত্র। পেছনে রয়েছে সুবিধাভোগি মিডিয়ার সেই অংশটি। তারা মনে প্রানে ও স্বপ্নে ফিরিয়ে আনতে কায়োমনো বাক্যে প্রার্থণা করে যাচ্ছেন হারুনের জন্য।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন