সদ্য সংবাদ

 গাইবান্ধায় প্রথম আলো ট্রাষ্টের ত্রাণ বিতরণ   মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ অর্পন করলে দুই ডিসি   সাঘাটায় টাকা নিয়ে দলিল করে না দিয়ে উল্টো গাছ কর্তন  অস্ট্রেলিয়া থেকে সঙ্গা ও সপ্তক ফেরার পরই সমাহিত হবেন এন্ড্রু কিশোর  ঝিনাইদহে পথচারীদের মাঝে ট্রাফিক সার্জেন্ট মোস্তাফিজুর রহমানের মাস্ক বিতরণ  ঝিনাইদহে গাঁজাসহ আদালতে কর্মরত পুলিশ সদস্য আটক  ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট বলসোনারো করোনায় আক্রান্ত   উপনির্বাচনের ব্যালটে ধানের শীষ না রাখার দাবি বিএনপির  ১৬ বছরেই মিলবে জাতীয় পরিচয়পত্র  কেনিয়ায় স্কুল শিক্ষাবর্ষ থেকে ২০২০ সাল ‘হাওয়া’   অনলাইন প্রতারক চক্রের মূল হোতা আটক  বাংলাদেশ থেকে ইতালির সব ফ্লাইট বন্ধ   তদন্তের স্বার্থে প্রকাশ করা যাচ্ছে না লঞ্চ দুর্ঘটনার কারণ : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী   রিজেন্ট হাসপাতাল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।  নারায়ণগঞ্জ জেলা পিবিআই'র পুলিশ সুপার পদে মনিরুল ইসলামের যোগদান   কুড়িগ্রামের ডিসি সুলতানার বিরুদ্ধে আবারও তদন্ত হবে   রাজধানীর রিজেন্ট হাসপাতালে টেস্ট ছাড়াই করোনা পজিটিভ-নেগেটিভ সনদ  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোশারফ হোসেন যোগ দিলেন নারায়ণগঞ্জে   রাত থেকেই আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে আবারো নিষেধাজ্ঞা  এবার ভুটানের একটি অঞ্চল দাবি করছে চীন

এসপি হারুনের প্রেতাত্মারা জেলাকে অস্থিতিশীল করার যড়যন্ত্র করছে

দোসরদের আর্তচিৎকার

 Sun, Nov 17, 2019 11:19 PM
  এসপি হারুনের প্রেতাত্মারা জেলাকে অস্থিতিশীল করার যড়যন্ত্র করছে

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:: বিতর্কিত এসপি হারুন ছাড়া যেন নারায়ণগঞ্জ অচল।

 তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলায় যখন ছিলেন না তখন মনে হচ্ছে অচল ছিল নারায়ণগঞ্জ। গাজীপুর থেকে এসপি হারুন চলে আসার পর যেন এখন আর গাজীপুর বাংলদেশের মানচিত্র থেকে হারিয়ে গেছে। নারায়ণগঞ্জে এসপি হারুনের দোসরদের আর্তচিৎকার দেখে এমনটাই মনে হচ্ছে । মনে হচ্ছে নারায়ণগঞ্জও ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের মানচিত্র থেকে। সুবিধাভোগিরা এখনও বলছেন, ফিরে আসছে হারুন। দিবাস্বপ্নে তাদের রাত কাটছে চেয়ে চেয়ে। ভালবাসায় গদ গদ হয়ে রাত জেগে জেগে চোখের নীচে কালি জমতে শুরু করেছে সুবিধাভোগিদের। অপরদিকে হারুনের রোষানলে পড়া ব্যবসায়ীরা বলছেন, নয় মন ঘিও পুড়বে না, রাধাও আর নাচবে না।
নারায়ণগঞ্জের একজন জনপ্রিয় জনপ্রতিনিধি বলেন, প্রথম দিকে জেলায় এসে তিনি যেভাবে শুরু করেছিলেন তা জনগনের সমর্থন পেয়েছেন। কিন্তু মাত্র ২/৩ মাসের মধ্যেই তিনি পুরো নারয়ণগঞ্জকে গিলে খেতে শুরু করেন। রয়ে শয়ে খেতে পারতেন। আমরা জানি নারায়ণগঞ্জে আপনারা আসেন খাওয়ার জন্য। তবে সে খাওয়াটাতো হতে হবে জনবান্ধব। রাজনৈতিক নেতাদের মত নানা মুখরোচক বক্তব্য দিয়ে প্রকাশ্যে করেছেন ষ্ট্যান্ডবাজি। অন্তরালে তিনি শুরু করেন অপকর্ম। মিডিয়াও তাকে প্রথম দিকে সমর্থন দিয়েছে। এই সমর্থনের সুযোগে একজন পুলিশ অফিসারকে ব্যবহার করে এসপি হারুন মিডিয়ার একটি অংশকে আর্থিক সুবিধা দিয়ে তার দালালে পরিনত করেছেন। মোটামুটি এসপি হারুনের ১১ মাসে তার দেয়া টাকায় চলেছে অনেকের সংসার। ফলে এসপি হারুনকে প্রত্যাহারের পর তারা পড়ে গেছেন অর্থ সংকটে। অর্থ সংকটে পড়ে এখন তারা অনেকটাই দিশেহারা। ফলে বিভিন্ন থানা ও ডিবি পুলিশে থাকা এসপি হারুনের প্রেতাত্মাদের দিয়ে চলছে জেলাকে অস্থিতিশীল করার যড়যন্ত্র। পেছনে রয়েছে সুবিধাভোগি মিডিয়ার সেই অংশটি। তারা মনে প্রানে ও স্বপ্নে ফিরিয়ে আনতে কায়োমনো বাক্যে প্রার্থণা করে যাচ্ছেন হারুনের জন্য।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন