সদ্য সংবাদ

 গাইবান্ধায় প্রথম আলো ট্রাষ্টের ত্রাণ বিতরণ   মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ অর্পন করলে দুই ডিসি   সাঘাটায় টাকা নিয়ে দলিল করে না দিয়ে উল্টো গাছ কর্তন  অস্ট্রেলিয়া থেকে সঙ্গা ও সপ্তক ফেরার পরই সমাহিত হবেন এন্ড্রু কিশোর  ঝিনাইদহে পথচারীদের মাঝে ট্রাফিক সার্জেন্ট মোস্তাফিজুর রহমানের মাস্ক বিতরণ  ঝিনাইদহে গাঁজাসহ আদালতে কর্মরত পুলিশ সদস্য আটক  ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট বলসোনারো করোনায় আক্রান্ত   উপনির্বাচনের ব্যালটে ধানের শীষ না রাখার দাবি বিএনপির  ১৬ বছরেই মিলবে জাতীয় পরিচয়পত্র  কেনিয়ায় স্কুল শিক্ষাবর্ষ থেকে ২০২০ সাল ‘হাওয়া’   অনলাইন প্রতারক চক্রের মূল হোতা আটক  বাংলাদেশ থেকে ইতালির সব ফ্লাইট বন্ধ   তদন্তের স্বার্থে প্রকাশ করা যাচ্ছে না লঞ্চ দুর্ঘটনার কারণ : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী   রিজেন্ট হাসপাতাল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।  নারায়ণগঞ্জ জেলা পিবিআই'র পুলিশ সুপার পদে মনিরুল ইসলামের যোগদান   কুড়িগ্রামের ডিসি সুলতানার বিরুদ্ধে আবারও তদন্ত হবে   রাজধানীর রিজেন্ট হাসপাতালে টেস্ট ছাড়াই করোনা পজিটিভ-নেগেটিভ সনদ  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোশারফ হোসেন যোগ দিলেন নারায়ণগঞ্জে   রাত থেকেই আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে আবারো নিষেধাজ্ঞা  এবার ভুটানের একটি অঞ্চল দাবি করছে চীন

কাশ্মীর ইস্যুতে আর্থিক ক্ষতি ১১ হাজার কোটি টাকা!

 Tue, Nov 19, 2019 11:16 PM
কাশ্মীর ইস্যুতে আর্থিক ক্ষতি ১১ হাজার কোটি টাকা!

এশিয়া খবর ডেস্ক:: গত সাড়ে চার মাস ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর অবরুদ্ধ থাকায় আর্থিক ক্ষতি ১১

হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। মঙ্গলবার স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সংগঠন কাশ্মীর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (কেসিসি) আর্থিক ক্ষতির কথা জানিয়ে বলেছে, এই ক্ষতির জন্য তারা সরকারের বিরুদ্ধে মামলার পরিকল্পনা করেছে। খবর রয়টার্স’র।

কেসিসি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট নাসির খান বলেছেন, ‘গত সেপ্টেম্বরে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১০ হাজার কোটি রুপি (অন্তত ১১ হাজার কোটি টাকা) ছিল। নভেম্বরে যা আরও বেড়েছে বলে আমরা ধারণা করছি।’

কাশ্মীরে দীর্ঘদিন টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ থাকায় ক্ষতির সঠিক পরিমাণ নির্ণয় করা সম্ভব হয়নি। তাই ক্ষতির পরিমাণ মূল্যায়ন করতে একটি বাহ্যিক সংস্থা নিয়োগ দিতে আদালতের কাছে কেসিসি আবেদন করবে বলে জানান কেসিসির ভাইস প্রেসিডেন্ট।

রয়টার্স জানিয়েছে, কেসিসি’র এমন দাবির পর ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকারের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তারা এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।


চলতি বছরের ৫ আগস্ট জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে ভারত। এসময় পুরো কাশ্মীর জুড়ে সেনা মোতায়েন করে সরকার। রাস্তা ঘাট বন্ধ, মোবাইল, ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়, বন্ধ থাকে দোকান-পাট। ফলে বহির্বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন কাশ্মীরীরা নিজ গৃহে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। নরেন্দ্র মোদির সরকার ঘোষণা দেয় কাশ্মীরের অর্থনৈতিক উন্নয়নে নজর দেওয়া হবে। বাইরের বিনিয়োগকারীদের দেওয়া হবে যা অর্থনৈতিক উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করবে।

তবে মোদি সরকারের এমন আশ্বাসকে ‘চাতুরি’ বলে আখ্যা দিয়েছে কেসিসি। কাশ্মীরের আর্থিক অবস্থা দিন দিন আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। এই উপত্যকার প্রধান আয়ের উৎস পর্যটন খাতে ব্যাপক ধ্বস নেমেছে। যা এখনও স্বাভাবিক হয়নি। উল্টো অনেক হোটেল ব্যবসায়ী ব্যবসা গোটানোর কথা ভাবছেন

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন