সদ্য সংবাদ

  বাজারে ডলারের দাম কমেছে  অনাহারে প্রতিদিন ১২ হাজার মানুষ মারা যেতে পারে  দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে যুবলীগ চেয়ারম্যানের হুশিয়ারি   করোনা টেস্ট প্রতারণায়: কে এই ডা. সাবরিনা   নিখোঁজের পর লাশ মিলল দ. কোরিয়ার মেয়রের  ১৪ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর  নিপীড়ন-নির্যাতন থেকে পুলিশকে বেরিয়ে আসতে হবে: আইজিপি  যেভাবে ফিট থাকার কাজ করে যাচ্ছেন কৃষ্ণা   চোর ধরছি আর আমাদেরকেই চোর বলা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী  প্রভাবশালীদের সঙ্গে রিজেন্ট হাসপাতালের মালিকের ছবি নিয়ে যা বলল র‍্যাব   মাদক ব্যবসায়ী সেজে ফেনসিডিল উদ্ধার করলো না.গঞ্জ ডিবি পুলিশ।   রোববার থেকে হিফজ মাদ্রাসা খোলার অনুমতি   সাংবাদিক রাশীদ উন নবী বাবু আর নেই   ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনা ৫০ হাজার টাকায় আপোষ রফা   এশিয়া কাপ বাতিল, বিশ্বকাপ না হলে আইপিএলের সম্ভাবনা : গাঙ্গুলী   ভার্চুয়াল আদালত পরিচালনায় সংসদে বিল পাস   ১২৫ বাংলাদেশিকে বিমান থেকে নামতে দিচ্ছে না ইতালি   দেশে করোনা শনাক্তে ফি আরোপ অমানবিক, আত্মঘাতী: টিআইবি  যুক্তরাষ্ট্রের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি চীন: এফবিআই  রূপকথাকেও হার মানায় রিজেন্টের সাহেদের উত্থান

রোহিঙ্গা নিপীড়ন নিয়ে আলজাজিরার নতুন ভিডিও

 Sun, Nov 24, 2019 11:00 PM
 রোহিঙ্গা নিপীড়ন নিয়ে আলজাজিরার নতুন ভিডিও

এশিয়া খবর ডেস্ক:: মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীর

 ওপর দেশটির সেনাবাহিনীর বর্বর নির্যাতনের একটি নতুন ভিডিওচিত্র প্রকাশ করেছে আলজাজিরা।

গণহত্যার মতো নিকৃষ্টতম অপরাধের দায়ে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে সম্প্রতি দুটি মামলার কয়েক দিন পর রোববার এ ভিডিও জনসম্মুখে আনল কাতারভিত্তিক গণমাধ্যমটি। তাতে দেখা গেছে, শত শত রোহিঙ্গাকে সারিবদ্ধভাবে বসিয়ে নির্যাতন চালাচ্ছে দেশটির সেনাসদস্যরা। মিয়ানমারের সেনারা ছোট ছোট দলে বিভক্ত হয়ে গুচ্ছ পদ্ধতিতে এ নির্যাতন চালাচ্ছে।


সেনাসদস্যরা দলগতভাবে একজন একজন করে রোহিঙ্গা মুসলিমকে নানা কৌশলে নির্যাতন করছে। কেউ বুট জুতা দিয়ে লাথি মেরে ফেলে দিচ্ছে। কেউ বন্দুক দিয়ে শরীরের যত্রতত্র পেটাচ্ছে। একজন মুখে লাথি মেরে ক্লান্ত হলে অপরজন এসে পুনরায় শুরু করছে। বাকি রোহিঙ্গারা ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে তাকিয়ে আছে সেদিকে।


সাঈদ নামে এক রোহিঙ্গা তরুণ আলজাজিরাকে বলে, ‘একজন সৈন্য আমার মাথা থেকে শুরু করে পুরো শরীরে লাথি মারা শুরু করে। তারপর সে বলে, তোমাদের সব মুসলিমকে মেরে ফেলা হবে। আমরা অপরাজেয়।’


ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, ‘পানিতে পড়ে থাকা সন্তানদের লাশ তুলে আনছে তাদের পরিবারের মানুষজন।’


পরিবারগুলো জানাচ্ছে, তাদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। আগুনে পুড়ে দগ্ধ হয়ে অনেকের শিশু সন্তানের মৃত্যু হয়েছে।


রাজিমা বেগম নামের এক নারী বলেন, ‘তারা আমাদের বাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। তারপর আমাদেরকে আটক করে একত্র করে রাখে। আমাদের মুখ এমন দিকে ঘুরিয়ে রাখা হয় যাতে আমরা আমাদের বাড়ি পুড়ে যাওয়ার দৃশ্য না দেখতে পারি, আমাদের বাড়িঘর আগুনের হাত থেকে রক্ষা করতে না পারি।’


মিয়ানমার সেনাদের হাতে ধর্ষণের স্বীকার এক নারী বলেন, ‘তারা আমাকে ধরে একটা ক্ষেতে নিয়ে যায়। সেখানে আমাকে নির্মম নির্যাতন করে তারা। পাঁচ মাস পর আমি জানতে পারি আমি অন্তঃসত্ত্বা। আমার পেটে বাচ্চা থাকলেও আমার কিছুই করার ছিল না।’ এমন অভিজ্ঞতার কথা জানিয়ে ওই নারী কান্নায় ভেঙে পড়েন।


গণহত্যার উদ্দেশ্যেই ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নিধন অভিযান চালায়। জাতিসংঘসহ মানবাধিকার সংস্থাগুলো রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর গণহত্যা, ধর্ষণ ছাড়াও বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়ার নানা অভিযোগের প্রমাণ পেয়েছে।


কিন্তু এখনও তা অস্বীকার করেই চলেছে দেশটি। রক্তাক্ত সামরিক অভিযানের মুখে রাখাইন থেকে ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। তারা এখনও নিজেরে জন্মস্থানে ফিরতে পারেনি।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন