সদ্য সংবাদ

 মৌলবাদী শুধু মুসলিম নয়, হিন্দু-খ্রিস্টানরাও হতে পারে :পুলিশ সুপার জায়েদুল  বন্দর ঘাটে ছাত্রলীগ নেতা খান মাসুদের মাসে ১০ লাখ টাকা চাঁদাবাজি  চট্টগ্রামে পুলিশ বক্সে বোমা বিস্ফোরণ, পুলিশ সহ দগ্ধ ৩  দিল্লিতে মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদে ঢাকায় বিশাল বিক্ষোভ   ‘থার্ড ক্লাস’ মেয়ে শাবনূর  চীনের বাইরে ৫৩টি দেশে ভয়াবহ করোনাভাইরাস, মৃত ৭০  ‘১১ বছর পর জানতে পারলাম আমায় বন্ধ্যা করে দিয়েছে'   তেঁতুলিয়ায় নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ শীর্ষক সেমিনার  কোনো অঘটন ঘটলে দায় কিন্তু সরকারের: মওদুদ   দিল্লির সমস্যা সমাধান করুন: ভারতকে ওবায়দুল কাদের  মেহেরপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি নির্বাচিত  মেহেরপুর আঞ্চলিক ইজতেমা’র দ্বিতীয় দিনে মুসল্লীর ঢল  দিল্লিতে মুসলমানদের ওপর হামলার সময় পুলিশের নিষ্ক্রীয়তায় উদ্বেগ  কালকিনিতে তিন শতাধিক শিক্ষার্থীর মাঝে বিনামূল্যে স্কুল ব্যাগ ও ড্রেস বিতরণ  পঞ্চগড়ে কাঁচা চা পাতার মূল্য নির্ধারণে সভা অনুষ্ঠিত  বঙ্গবন্ধুর কারণে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি   স্বামী-স্ত্রী দগ্ধ হয়ে ঢাকা মেডিকেল, কোল থেকে পড়ে কয়লা হয়ে যায় রুশদি  রাজধানীর আবাসিক হোটেলগুলোতে বাড়ছে অসামাজিক কার্যকলাপ   দিল্লির দাঙ্গায় ৩৪ জন নিহত, মন ভেঙেছে শেবাগ-যুবরাজদের   ঘর-বাড়ি হারিয়ে পালাচ্ছেন দিল্লির মুসলমানরা

মির্জাপুরে সৈয়দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি দখলের অভিযোগ

 Fri, Jan 17, 2020 11:25 PM
মির্জাপুরে সৈয়দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি দখলের অভিযোগ

মির্জাপুর(টাঙ্গাইল)সংবাদদাতা:: সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি ও এলাকাবাসির যাতায়াতের রাস্তা দখল করে

পাকা স্থাপনা নির্মানের অভিযাগ উঠেছে এক প্রভাবশালী ব্যক্তির বিরুদ্ধে। বিদ্যালয়ের জমি রক্ষা ও রাস্তা উদ্ধারের জন্য স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) মির্জাপুর থানায় সাধারন ডায়রী করেছেন। পডায়রী নং-৭০৫। এর পুর্বে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বাদী হয়ে থানায় এবং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মীর এনাযেত হোসেন মন্টু বরবর অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনার পর বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কোমলমতি শিক্ষার্থী এবং এলাকাবাসির মধ্যে বিরাজ করছে চাপা ক্ষেভ ও উত্তেজনা। টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার ১০ নং গোড়াই ইউনিয়নের ১২১ নং সৈয়দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ঘটনাস্থলে গেলে বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও এলাকাবাসী ঘটনার সত্যতা তুলে ধরেন।
জানা গেছে, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের আঞ্চলিক রোড গোড়াই-সখীপুর –ঢাকা রোড সংলগ্ন ১২১ নং সৈয়দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়ের শিক্ষক মন্ডলী ও বর্তমান ইউপি সদস্য ও ১০ নং গোড়াই ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. আদিল খান জানান, গোড়াই ইউনিয়নের সৈয়দপুর মৌজার সাবেক দাগ-২৪৩৩, হাল দাগ-২৬৪২ ও খতিয়ান নং-৯০৭ এর মধ্যে ৭০ শতাংশ জমি রয়েছে বিদ্যালয়ের নামে। এই জমিতে বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সরকারী কোষাগারে খাজনাও নিয়মিত ভাবে পরিশোধ করা হচ্ছে। সৈয়দপুর গ্রামের গ্রামের আব্দুল মজিদ খানের ছেলে মো. আজম খান(৫৫), জিহক খান (২৩)নিনা আজম (৪৪)সহ কতিপয় লোক বিদ্যালয়ের ৩০ শতাংশসহ জমি নিজের দাবী করে প্রভাব খাটিয়ে রাতারাতি পাকা ভবন নির্মান করেছে। সেই সঙ্গে পাশের রাস্তাও দখল করে পাকা ঘর নির্মান করছেন। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও এলাকাবাসী তাকে বারবার নিষেধ করার সত্তেও তিনি পাকা ভবন নির্মান থেকে বিরত না হওয়ায় বিদ্যালয়ের জমি রক্ষা ও রাস্তা উদ্ধারের জন্য এলাকাবাসির পক্ষে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আলমগীর হোসেন থানায় সাধারন ডায়রী এবং ইউপি সদস্য ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. আদিল খান বাদী হয়ে মির্জাপুর থানায় ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের নিকট লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
এ ব্যাপারে মো. আজম খানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সৈয়দপুর মৌজায় ২৪৩৫ নং  ও ২৪৪৮ নং দাগের মধ্যে আমার পিতা মো. মজিদ খান, কেশব সরকার ও গয়ানাথ সরকার ৫০ শতাংশ জমি বিদ্যালয়ের নামে দান করে দিয়ে সৈয়দপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছেন। বিদ্যালয়ের পাশে ২৪৩৩ দাগের মধ্যে আমার স্ত্রী নীনা আজমের নামে ৮৫ শতাংশ জমি রয়েছে। আমি সেই জমির উপর পাকা ভবন নির্মান করতে গেলে বিদ্যাললয় কর্তৃপক্ষ ও এলাকবাসির মধ্যে কিছু লোকজন বাঁধা দিয়ে পাকা ভবন নির্মান কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। এ নিয়ে কোর্টে মামলা রয়েছে। তিনি দাবী করেন, আমি বিদ্যালয়ের কোন জমি জবর দখল করিনি। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এবং কিছু লোকজন আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলহাজ¦ মো. আনোয়ার হোসেন মাষ্টার, বর্তমান ইউপি সদস্য ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. আদিল খান এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন, এটা বিদ্যালয়ের জমি। মো. আজম খান গংরা মিথ্যা ও ভুয়া ও জাল দলিল তৈরী করে বিদ্যালয়ের জমি জবর দখল করে যাচ্ছেন। তাদের বাঁধা দিতে গেলে নানা ভাবে হুমকি ও ভয়ভিতি দেখাচ্ছে। তারা বিদ্যালয়ের জমি উদ্ধারের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানিয়েছেন।
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মীর এনায়েত হোসেন মন্টু বলেন, ঐ জমি বিদ্যালয়ের। আজম খান জোর করে দখলের চেষ্টা করছে। তার বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবী জানান তিনি।
 মির্জাপুর থানার পুলিশ অফিসার(এসআই) ও দেওহাটা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয়ের জমি জবর দখল হচ্ছে এমন একটি লিখিত অভিযোগ বিদ্যালয়ের পক্ষে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মো. আলমগীর হোসেন দিয়েছেন। অভিযোগ পাওয়ার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পাকা ভবন নির্মান কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন