সদ্য সংবাদ

 কালকিনিতে ১৩১ বাড়িতে লাল নিশানা লাগিয়ে দিলো প্রশাসন  করোনার বিরুদ্ধে সাইফুল ইসলাম শান্তির অভিযান শুরু  রংপুরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  নরসিংদীতে হোম কোয়ারেন্টিনে ২০৫ প্রবাসী  কালকিনির বিভিন্ন হাট-বাজারে হাতধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপন  পঞ্চগড়ে সাড়ে ৭শ’ পিস হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ  রংপুরে করোনা প্রতিরোধে মাস্ক বিতরণ  পার্বতীপুরে শুধুমাত্র পূজার মধ্যদিয়ে ঐতিহ্যবাহী ‘বাহা পরব’ উদযাপিত  রংপুরে এরশাদের জন্মদিন পালিত  বিএফআরআইতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস পালিত  করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে পঞ্চগড়ে জরুরি বৈঠক  আতঙ্কিত না হয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে : সাদ এরশাদ এমপি  কালকিনিতে দুই প্রবাসীকে আর্থিক জরিমানা  পঞ্চগড়ে সীমিত পরিসরে মুজিববর্ষ পালিত  রংপুরে ৮টি রাস্তা পাকাকরণ ও ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু  কালকিনিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে মুজিব উতসব পালিত  কালিয়াকৈর প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  রংপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালিত  পঞ্চগড়ে কীটনাশক মুক্ত সবজির চাষ!

বাংলাদেশিদের বিদেশে যাওয়া-আসা বন্ধ রাখতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অনুরোধ

 Tue, Mar 3, 2020 9:17 PM
বাংলাদেশিদের বিদেশে যাওয়া-আসা বন্ধ রাখতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অনুরোধ

এশিয়া খবর ডেস্ক:: বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস আতংকের মধ্যে দেশ ও পরিবারের স্বার্থে

বাংলাদেশিদের আপাতত বিদেশে যাওয়া কিংবা বিদেশ থেকে দেশে ফেরা বন্ধ রাখার অনুরোধ জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অনুরোধ করেন তিনি।

প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশে না আসার অনুরোধ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশি যারা বিদেশে চাকরি করেন, জরুরি প্রয়োজন না হলে দেশে না আসাই ভালো। কারণ আমরা চাই না বাংলাদেশ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হোক। নিশ্চয়ই প্রবাসী বাংলাদেশিরাও চান না তাদের মাধ্যমে দেশের মানুষ কিংবা পরিবারের কেউ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হোক।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেলে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই জানিয়ে দেশের সব জেলায় সিভিল সার্জনদের মাধ্যমে প্রতিটি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা রাখা হয়েছে বলে আশ্বস্ত করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি জানান, দেশের সব সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে আইসোলেশন ইউনিট প্রস্তুত রাখা হয়েছে। একই সঙ্গে চিকিৎসক ও নার্সদের প্রশিক্ষিত করা হয়েছে। করোনাভাইরাস শনাক্তে পর্যাপ্ত কিট রাখা হয়েছে। পাশাপাশি দেশের প্রতিটি জেলার ডিসি ও ইউএনওদের নেতৃত্বে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ১০ সদস্যবিশিষ্ট পৃথক দুইটি কমিটি করা হয়েছে।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন