সদ্য সংবাদ

 ইউএনও ওয়াহিদার বাসায় টাকা ছিল ৪০ লাখ, সেই মালি নেয় ৫০ হাজার   ‘তিশা প্লাস’ বাসের দরজা-জানালা বন্ধ করে তরুণীকে গণধর্ষণ  'ঊর্মিলাকে পর্ন অভিনেত্রী' বললেন কঙ্গনা  যে যাই বলুক, আসলে মানুষ‌‌ পুলিশকে ভালোবাসে   আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে কাজ করবেন, সরকারি কর্মচারীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী  ট্রাম্পের নারী কেলেংকারি ফাঁস, মুখ খুললেন মডেল  দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করার চেষ্টা করছে ভারত : জাফরুল্লাহ  তিতাস-ডিপিডিসি ও মসজিদ কমিটি দায়ী: প্রশাসনের তদন্ত প্রতিবেদন  তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কে সীমাহীন র্দূভোগ:দেখার কেউ নেই   মসজিদে অগ্নিকাণ্ডে নিহত পরিবারের মাঝে জেলা আ:লীগের আর্থিক সহায়তা প্রদান   ধর্ষণ মামলায় শিল্পপতি ছেলের যাবজ্জীবন কারাদন্ড   পঞ্চগড়ে চা পাতা চুরির অভিযোগ,  প্রজ্ঞাপন দিয়ে হাটহাজারী মাদরাসা বন্ধ ঘোষণা  ঝিনাইদহে সন্তান নিখোঁজ: খুঁজছে বাবা-মা   ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার কক্সবাজারে বদলি, যোগদান করলেন মুনতাসিরুল ইসলাম  ইসরাইল-ফিলিস্তিন অশান্তি উসকে দিল ট্রাম্পের ‘শান্তি চুক্তি’  পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু: ক্ষতিপূরণের ২ লাখ টাকা জমা দিলেন এসআই জাহিদের পরিবার  আ: লীগের বরকত-রুবেলের দুটি প্রতিষ্ঠানের ২৫ কার্যাদেশ বাতিল   সেই শিশু ইয়ামিনকে জার্সি-ব্যাট দিলেন মুশফিক   জিম্মি করে ব্যাংক লুটের চেষ্টা, বোমাসহ যুবক আটক

হোয়াটসঅ্যাপও নিয়ন্ত্রণ করছে ভারতের বিজেপি!

মার্কিন সংবাদমাধ্যমের খবরে তোলপাড়

 Sat, Aug 29, 2020 8:23 PM
হোয়াটসঅ্যাপও নিয়ন্ত্রণ করছে ভারতের বিজেপি!

এশিয়া খবর ডেস্ক:: ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে হোয়াটসঅ্যাপ কিনে নেওয়ার পর

 থেকেই এর মালিকও মার্ক জাকারবার্গ। এই ম্যাসেজিং অ্যাপের মাধ্যমে এখন ভারতে আর্থিক লেনদেন চালু করতে চায়। এজন্য বিজেপি-আরএসএসকে সন্তুষ্ট রাখতে গিয়ে নানা বিতর্কের মুখে পড়েছে বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় এ ম্যাসেজিং অ্যাপ।

এ ব্যাপারে ভারতের বিরোধী দল কংগ্রেসের নেতা রাহুল গান্ধী দাবি করেছেন ‘আমেরিকার টাইম ম্যাগাজিন বিজেপির সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপের যোগসাজশ ফাঁস করে দিয়েছে। ৪০ কোটি ভারতীয় হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন। এই সংস্থা এখন চাইছে ভারতে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে আর্থিক লেনদেন চালু করতে। তার জন্য মোদী সরকারের অনুমোদন প্রয়োজন। এভাবেই হোয়াটসঅ্যাপের ওপরেও নিয়ন্ত্রণ রয়েছে বিজেপির।’

তবে এখন পর্যন্ত বিজেপির পক্ষ থেকে এ অভিযোগের প্রতিক্রিয়া দেয়া হয়নি।

সম্প্রতি মার্কিন দৈনিক ‘ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল’-এর একটি প্রতিবেদন বলা হয়, জেনেশুনেই ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ভারতের বিজেপি নেতাদের ঘৃণা বা উসকানিমূলক মন্তব্য মুছে ফেলতে চায় না।

এ প্রতিবেদন প্রকাশের পর ভারতজুড়ে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়। সেই বিতর্ক কিছুটা থিতু হয়ে আসার পরই মার্কিন সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘টাইম ম্যাগাজিন’-এ প্রায় একই রকম একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, মুসলমানদের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক সংবাদ প্রচার করে বিজেপির বিধায়ক শিলাদিত্য দেব। তিনি মুসলমান যুবক কর্তৃক তরুণী ধর্ষণের নিউজ শেয়ার করে তার কমেন্টে লিখেন, ‘দেখুন বাংলাদেশি মুসলমানরা কীভাবে আমাদের দেশের মানুষকে টার্গেট করছে?’

এ কমেন্টটি একবছর পর্যন্ত অনলাইনে ছিল। যদিও এখন তা মুছে দেয়া হয়েছে। গত ২১ আগস্ট পর্যন্ত এটি ছিল।

ফেসবুকের সাবেক একজন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে টাইম ম্যাগাজিন জানায়, ওই সময় ভারত ও এশিয়া অঞ্চলের ফেসবুকের পাবলিক পলিসি ডিরেক্টর ছিলেন শিবনাথ থুকরাল। ভারত সরকারের লবিং করাও তার কাজের অন্তর্ভুক্ত ছিল। এছাড়াও তিনি রাজনৈতিক নেতাদের মন্তব্য মডারেশনের দায়িত্বও ছিল।

যদিও ওই পোস্টটি মুছে দিয়ে পরে ফেসবুক জানায়, আমরা প্রথম দিকে রিভিউয়ে এটি মুছে দিতে ব্যর্থ হয়েছিলাম। এটা আমাদের মিসটেক ছিল।

মূল বিষয়, ভারতের বিপুল সংখ্যক গ্রাহকের কথা মাথায় রেখেই বিজেপি তথা ভারতের শাসক দলকে চটাতে চায় না ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। কয়েকটি উদাহরণ তুলে ধরে ওই প্রতিবেদনেও অভিযোগ তোলা হয়েছে, বিজেপি নেতাদের ঘৃণা-মন্তব্য মুছে ফেলতে চায় না মার্ক জাকারবার্গের সংস্থা।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন