সদ্য সংবাদ

 নবীনগরে দুস্থ নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ  মির্জাপুরে উচ্ছেদের পর অবৈধ স্থাপনা নির্মান, অবরুদ্ধ এলাকাবাসি   সেরা শিল্পী জাস্টিন বিবার ও টেইলর সুইফট   ‘জবাবদিহিমূলক জনপ্রশাসন গড়ে তুলতে হবে’  চলমান কাজ শেষ না করলে ঠিকাদারকে পরের কাজ নয়  কানাডার 'বেগমপাড়া', অর্থ পাচারকারী সেই ২৮ জন কারা  দেশকে লাইফ সাপোর্টে নিয়ে গেছে সরকার   ভারতীয় ‘ক্রাইম পেট্রল’ দেখে পরিবারের ৪ জনকে হত্যা   গণতন্ত্রের আলোয় 'কালো' কমলার উত্থান   দখলমুক্ত মসজিদে চুমু খেয়ে ঢুকলেন আজেরি প্রেসিডেন্ট  মোহাম্মদপুর বিহারি বস্তির আগুন নিয়ন্ত্রণে   না’গঞ্জ বিআইডব্লিউটিএ’ দুদকের অভিযান   দিল্লির সরকার আলুর সরকার, এদের আর একটি ভোটও নয় : মমতা   ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়, অপব্যবহার করবেন না: ওবায়দুল কাদের   চিরকুটে লেখা 'বিদায় বান্ধবীরা'  ধর্মের টানে বিনোদন জগত থেকে চিরবিদায় নিলেন জায়রা  যুবলীগ নেতা কম্পিউটার অপারেটর কাজী আনিসের ঢাকার বাড়ি-ফ্ল্যাট জব্দ   ট্রাম্পকে আইএসের ভিডিওতে হুমকি দিত যে আমেরিকান বালক  ডিজিটাল পঞ্চগড় বিনির্মাণে প্রস্তুতিমুলক সভা  কানাডার ‘বেগমপাড়ায়’ তালিকা চেয়েছে দুদক

খুলনার কৃষি কর্মকর্তা মিজানের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়

 Sun, Oct 18, 2020 9:04 PM
 খুলনার কৃষি কর্মকর্তা মিজানের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়

খুলনা প্রতিনিধি:: খুলনার কয়রা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মিজান মাহমুদের

 বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বাংলাদেশ ফাটিলাইজার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও কয়রা উপজেলা সার ব্যবসায়ী অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আবুল হাসান গাজী সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ তুলে ধরেন। ইতোমধ্যে বিষয়টি কৃষি অধিদপ্তরের উচ্চ পর্যায় পর্যন্ত জানাজানি হয়েছে।

বিভিন্ন মৌসুম ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পুনর্বাসন বাবদ বরাদ্দ অর্থ আত্মসাৎ, উপজেলার বিসিআইসি সার ডিলার ও খুচরা সার বিক্রেতাদের নিকট থেকে বিভিন্ন অজুহাতে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া, অধীনস্থ কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণসহ অসংখ্য অভিযোগ তাঁর বিরুদ্ধে। গত চার বছরে উপজেলা কৃষি অফিসকে দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত করেছেন।

সম্প্রতি তিনি মামলার ভয় দেখিয়ে মেসার্স রমজান ট্রেডার্সের মালিক বিসিআইসি সার ডিলার আবুল হাসান গাজীর নিকট থেকে ৩৫ হাজার টাকা ঘুষ নিয়েছেন। বিভিন্ন অভিযোগে আমাদি ইউনিয়নের তিনজন খুচরা সার বিক্রেতার নিকট থেকে ২৭ হাজার টাকা ও বাগালী ইউনিয়নে চারজনের নিকট থেকে ২৯ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এভাবে উপজেলা আমাদী, মহারাজপুর ও মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের বিসিআইসি ডিলার ও সাব ডিলারদের নিকট থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের মাধ্যমে এই টাকা নিয়েছেন তিনি। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ তুলে ধরে উপজেলা বিসিআইসি সার ডিলারদের পক্ষ থেকে ১৫ অক্টোবর দুপুরে কয়রা উপজেলা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে।

মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের খুচরা সার ব্যবসায়ী বিধান চন্দ্র মন্ডল বলেন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দেখা করতে বলেছিল, কিন্তু বিশেষ কারণে দেখা করতে না পারায় আমার সার দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে, এতে করে এলাকার কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

এর আগে কৃষি কর্মকর্তা মিজান মাহমুদ পার্শ্ববর্তী সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলায় থাকাকালীন সময়ে ৩০ শতাংশ ভর্তুকিতে পাওয়ার টিলার গ্রহীতাগণের নিকট থেকে অর্থ-বাণিজ্যসহ সীমাহীন অনিয়ম ও দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েছিল। শেষ পর্যন্ত সেখানকার সরকারদলীয় সাংসদ জগলুল হায়দারের সুপারিশে জরুরি ভিত্তিতে তাকে বদলি করা হয়েছিল।

এ ব্যাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মো. আব্দুল মুঈদ বলেন, বিষয়টি তার জানা নেই, তবে এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেলে তা আমলে নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এস এম মিজান মাহমুদ বলেন, আমি মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার এবং বিসিআইসি ডিলারদের অনিয়মের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ায় তারা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তুলেছে।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন