সদ্য সংবাদ

 করোনার টিকার অনুমোদন চায় মডার্নাও  test news for news uploading   ‘কম খরচে যাতায়াতে দেশব্যাপী রেল নেটওয়ার্ক স্থাপন হবে  দুবাইয়ের ব্যবসায়ীর সঙ্গে বাগদান সারলেন বেনজিরের মেয়ে   বর্তমান সরকারের পতনের অবস্থা চলছে: ডা. জাফরুল্লাহ   বঙ্গবন্ধু রেলসেতুর ব্যয় হবে ১৭ হাজার কোটি টাকা  পঞ্চগড়ে কৃষকদের মাঝে সার-বীজ বিতরণ   নারায়ণগঞ্জ সদর থানার নতুন ওসি ধর্ষণ মামলায় অভিযুক্ত  ঝিনাইদহ আইনজীবী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত  মোবারকগঞ্জ চিনিকল শ্রমিকদের মানববন্ধন  ডেপুটি স্পিকার অ্যাড.ফজলে রাব্বীকে গণসংবর্ধনা  যুক্তরাজ্যে নারীদের 'কুমারীত্ব পরীক্ষার'   পার্বত্য চট্টগ্রামের বছরে ৪শ’কোটি টাকার চাঁদাবাজি   না’গঞ্জে অবৈধ যানবাহনের দাপটে ঘটছে দুর্ঘটনা।   বাল্যবিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর ক্ষোভ   ‘প্রিয় বন্ধু’র মৃত্যুর দিনেই বিদায় নিলেন ম্যারাডোনা   নারীদের ‘জানোয়ারের’ সঙ্গে তুলনা করলেন ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী   কৌশানী মুখার্জির `ফিগার সিক্রেট’  বনানী কবরস্থানে শায়িত হলেন আলী যাকের  বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে এসেছে আমেরিকা: বাইডেন

নবীনগরে একই দিনে দুই লাশ উদ্ধার

 Thu, Oct 22, 2020 9:41 PM
 নবীনগরে একই দিনে দুই লাশ উদ্ধার

নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধিঃ: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় পৃথক

 স্থান থেকে দুই ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
নিহতরা হলেন- উপজেলার রতনপুর গ্রামের মৃত কালাম মিয়ার ছেলে সজীব মিয়া ওরফে সুজন (৪০) ও নবীনগর পৌর এলাকার ভোলাচং গ্রামের বাবর আলীর ছেলে হোসেন মিয়া।
গতকাল বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) সকাল ১০ টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টার মধ্যে নবীনগর থানা পুলিশ মরদেহ দুটি উদ্ধার করেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করে নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন জানান, রতনপুর গ্রামের  পূর্বপাড়ার জনৈক হাওলাদার বাবুর পুকুর পাড়ে বাঁশ বাগানের কাছে সুজনের রক্তাক্ত মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে জানায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত সুজনের মাথায় কোপের আঘাত রয়েছে। এতে তার মাথা থেকে প্রচন্ড রক্তক্ষরণ হয়।
পুলিশের এই কর্মকর্তা আরো জানান, ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ভোলাচং গ্রামের হোসেন মিয়াকে তার শ্বাশুড়ি বুধবার রাতে পাতিল দিয়ে আঘাত করেছেন বলে পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করেন। এরপর তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে সেখান থেকে বৃহস্পতিবার সকালে তাকে জেলা সদর হাসপাতালে  নিয়ে যাওয়ার প্রাক্কালে তিনি মারা যান। পরিবারের সদস্যরা শ্বাশুড়ির বিরুদ্ধে আঘাত করার অভিযোগ আনলেও পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে হোসেন মিয়ার শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি।
উদ্ধার করা দুটি মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন