সদ্য সংবাদ

 দুদকে যেতেই হবে ডিএজি রুপাকে   জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৯ বিজয়ীদের নাম ঘোষণা  সিদ্ধিরগঞ্জে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা  ঘুষ নেওয়ার ভিডিও ভাইরাল, এএসআই প্রত্যাহার   পাকিস্তানের ১৯৭১ সালের নৃশংসতা অমার্জনীয় : প্রধানমন্ত্রী  ‘আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দেশের মানুষকে হতাশ করেছে’   ২৫ ব্যাংকে খেলাপি ঋণ ৮০ হাজার কোটি টাকা  ঢাকার যাত্রীদের জন্য গুগল ম্যাপে নতুন ফিচার  নবীনগরে অজ্ঞাতনামা মহিলার লাশ উদ্ধার   ভাসান চর যেতে জড়ো হচ্ছে শত শত রোহিঙ্গা   পিরামিডের সামনে ‘আপত্তিকর’ ছবি, মিসরীয় মডেল গ্রেপ্তার   সিদ্ধিরগঞ্জে প্রো-অ্যাকটিভ ডাক্তারের অবহেলায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ   প্রতিবন্ধী মানুষের উন্নয়নে সমন্বিতভাবে কাজ করুন : প্রধানমন্ত্রী  করোনার টিকা সরবরাহে হানা দিতে পারে দুর্বৃত্তরা: ইন্টারপোল   এমসি কলেজ হোস্টেলে গণধর্ষণে অভিযুক্ত ৬, চার্জশিট বৃহস্পতিবার   মার্কিন দূতাবাসের কাছে ফেলে যাওয়া সেই ব্যাগে ছিল বালু ও তার   সভা-সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা সংবিধান পরিপন্থী: ফখরুল   হতাশাগ্রস্ত হয়ে আত্মহত্যা, নেপথ্যে প্রেম?  দুর্নীতিবাজ রুই-কাতলদের আইনের আওতায় আনতে হবে : হাইকোর্ট  সিদ্ধিরগঞ্জে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বৃদ্ধার জমি দখল করতে হামলা ও ভাংচুর ॥

নবীনগরে যুবদলের সভায় পুলিশের লাঠিচার্জে, আহত ২০

, ফাঁকা গুলি নিক্ষেপ, থানায় মামলা

 Sat, Oct 24, 2020 9:24 PM
 নবীনগরে যুবদলের সভায় পুলিশের লাঠিচার্জে, আহত ২০

নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি: : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে পুলিশের বাধাঁয় পন্ড হয়ে

 গেছে উপজেলা যুবদলের সাংগঠনিক সভা। এ সময় যুবদল নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ফাঁকা গুলি ও পুলিশের গাড়ির গ্লাস ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। গত শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় উপজেলার আলীয়াবাদ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি, সাংগঠনিক দলের প্রধান জাকির হোসেন সিদ্দিকী ও জেলা যুবদলের সভাপতি শামীম মোল্লা, সহ-সভাপতি রাশেদুল হক রাশেদ, তাজুল ইসলাম বাবুল, সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মাহমুদসহ অন্তত ২০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে উপজেলা যুবদল।  পুলিশের কাজে বাঁধা দেওয়া ও গাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ এনে নবীনগর থানার এসআই জসিম উদ্দিন বাদী হয়ে এজাহার নামীয় ২৩ ও অজ্ঞাত ৫০/৬০ জনকে আসামী করে শুক্রবার রাতে মামলা করেছেন। অপরদিকে পুলিশি হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন কেন্দ্রীয় বিএনপি ও যুবদল। হামলার প্রতিবাদে শনিবার (২৪ অক্টোবর) বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবদল।
জানাযায়, নবীনগর উপজেলা যুবদলের সাংগঠনিক কর্মকান্ড চাঙ্গা করতে উপজেলা যুবদলের আহবায়ক মফিজুর রহমান মুকুলের নেতৃত্বাধীন একটি গ্রুপ বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে এবং উপজেলা যুবদলের ১ নম্বর যুগ্ম আহবায়ক আশরাফ হোসেন রাজুর নেতৃত্বাধীন অপর গ্রুপ নবীনগর মহিলা কলেজে পৃথক দুটি সাংগঠনিক সভা আহবান করে। এ নিয়ে উত্তেজনা দেখা দিলে বৃহস্পতিবার রাতে যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতারা স্থানীয় জেলা পরিষদ ডাকবাংলোয় দু-গ্রুপকে একত্র করে সভা করার বিষয়ে আলোচনা করার সময় পুলিশ তাদেরকে ওই স্থান থেকে সরিয়ে দেয়।
শুক্রবার সকালে উপজেলা যুবদলের সাংগঠনিক সভায় যোগ দিতে বৃহস্পতিবার রাতে যুবদলের কুমিল্লা অঞ্চলের সাংগঠনিক দলের দায়িত্বে থাকা যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি জাকির হোসেন সিদ্দিকীর নেতৃত্বে ঢাকা থেকে একটি দল নবীনগর পৌছাঁয়। কিন্তু সভার অনুমতি না থাকায় নবীনগর থানা পুলিশ শুক্রবার সভা করতে বাধা দেয়। পুলিশের বাধার পর যুবদলের বিভক্ত নেতাকর্মীরা দিনভর ঘরোয়া বৈঠক শেষে বিকেলে পৌর এলাকার আলীয়াবাদ গ্রামে বিএনপি নেতা মরহুম মোশারফ হোসেন মদন মেম্বারের বাড়িতে খাবার খেতে চলে আসেন। খাবার শেষে দুই গ্রুপের নেতাদের একত্রিত ডেকে আলোচনায় বসেন কেন্দ্রীয় নেতারা। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে উপস্থিত হয়ে লাঠিচার্জ শুরু করে। মুর্হুতের মধ্যে সভায় অংশ নেয়া নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে চলে যাওয়ার সময় কেন্দ্রীয় নেতাদের শরীরে আঘাতের চিহ্ন ও রক্ত দেখে উত্তেজিত হয়ে নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ করে ইট-পাটকেল ছুঁড়তে থাকে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে দুই রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েন। এসময় সেখানকার সব দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। ইটের আঘাতে রাস্তার উপর থাকা পুলিশের পিকআপভ্যানের গ্লাস ভেঙ্গে যায়। আতংক ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকায়।
উপজেলা যুবদলের আহবায়ক মফিজুর রহমান মুকুল বলেন, আমরা কোন সভা করিনি। ঢাকা থেকে আসা কেন্দ্রিয় নেতাদের আপ্যায়ন করানোর জন্য আলীয়াবাদ গিয়েছিলাম। সেখানে  একটি বাসার ভিতর পুলিশ আমাদের নেতা কর্মীদেরকে বেধড়ক পেটায়। এতে কেন্দ্রীয় নেতা জাকির হোসেন সিদ্দীকিসহ জেলা ও উপজেলার আমাদের কমপক্ষ ২০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মাহমুদ বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণভাবে সাংগঠনিক সভা করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু পুলিশের বাধাঁয় করতে পারিনি। বিকেলে আমাদের এক নেতার বাসায় খাওয়া দাওয়া শেষ করে ওই বাসায় বসে যুবদলের কমিটিতে কে কে প্রার্থী তাদের তালিক তৈরি করার সময় পুলিশ এসে অতর্কিতভাবে হামলা করে।
এ ব্যাপারে নবীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) রুহুল আমিন বলেন, দুই গ্রুপ আমাদের কাছে সভা করার কোন অনুমতি চেয়ে ব্যর্থ হয়ে এক গ্রুপ আলীয়াবাদ গ্রামে গিয়েছে সভা করতে, যুবদলের আরেক গ্রুপ গিয়েছে আক্রমন করতে, এই সংবাদ পেয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর যুবদলের দুই গ্রুপের নেতা কর্মীরা মিলে পুলিশের উপর আক্রমন করে পুলিশের গাড়ি ভাংচুর ও ইট পাটকেলের আঘাতে তিন পুলিশ আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ দুই রাউন্ড ফাঁকা গুলি করেছে। এই ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন