সদ্য সংবাদ

 ‘চুনকা কুটির নয়, আইভীর হোয়াইট ওয়াশের জ্বালা বিরোধী পক্ষ  বিয়ের পর আমাদের বন্ধুত্ব গাঢ় হচ্ছে: মাহি  বাংলাদেশে কেউ ভালো নেই : মির্জা ফখরুল  টিকা প্রয়োগেই কয়েক হাজার কোটি টাকা ব্যয় হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  টানা তৃতীয়বার জয়লাভ করলেন জাস্টিন ট্রুডো   আটোয়ারীতে ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক  ১১ লাখ টাকা ও হেরোইনসহ ৫মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে না:গঞ্জ ডিবি  প্যারিস চুক্তির কঠোর প্রয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর   সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের চিঠির উৎপত্তি কোথায় সেটাও দেখছি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  সরকার থেকে সাংবাদিকরাও রেহাই পাচ্ছেন না: ফখরুল   ৯০ দিনের মিশন শেষে পৃথিবীতে ফিরেছেন চীনা নভোচারীরা   দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার  এক হাজার টাকা দেওয়ার ভয়ে পালায় জামালপুরের ৩ ছাত্রী: পুলিশ  মেট্রোরেলের মালামাল ভাঙারির দোকানে বিক্রি করতো চক্রটি  সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে বৃদ্ধ চাঁদাবাজ গ্রেফতার!   মানুষের কাজই সমালোচনা করা’   কিস্তি চাওয়ায় এনআরবিসি ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধর  অ্যাসাইনমেন্টের সাথে টাকার কোনো সম্পর্ক নেই : শিক্ষামন্ত্রী  কবে গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেবেন জানেন না রাসেল   ১০ দৈনিক পত্রিকার ডিক্লারেশন বাতিল

নারায়ণগঞ্জে অপরাধী জামাল, সাজা খাটলো কামাল

 Wed, Mar 3, 2021 10:58 PM
নারায়ণগঞ্জে অপরাধী জামাল, সাজা খাটলো কামাল

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:: ২০১৯ সালের ২০ নভেম্বর মাদক আইনে দুই ব্যক্তিকে

 দুই বছর করে কারাদণ্ড দেন কুমিল্লার একটি আদালত। তারা হলেন- কুমিল্লার দাউদকান্দির আলমগীর হোসেন ও নারায়ণগঞ্জের চর সৈয়দপুরের জামাল হোসেন। রায় ঘোষণার সময় জামাল হোসেন পলাতক থাকায় তাকে গ্রেপ্তারের জন্য কুমিল্লার পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার কাগজ পাঠানো হয়।


পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে সেই কাগজ যায় নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায়। কিন্তু থানা থেকে 'জামাল' এর নাম ঘষামাজা করে 'কামাল' লিখে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর কামাল হোসেনকে সাজা ভোগের জন্য কুমিল্লা পাঠানো হলে বেরিয়ে আসে আসল রহস্য। সেখানে গিয়ে জানা যায়, সাজাপ্রাপ্ত প্রকৃত ব্যক্তির নাম জামাল হোসেন। তবে জামাল ও নিরপরাধ কামাল উভয়ের বাবার নাম সুরুজ মিয়া।


এর আগে কামাল হোসেনকে গ্রেপ্তারের পর তাকে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাহামুদুল মোহসীনের আদালতে সোপর্দ করা হয়। ম্যাজিস্ট্রেটের আদেশ কপিতে উল্লেখ রয়েছে, 'রাষ্ট্র বনাম জামাল হোসেন গং'। কিন্তু একই আদেশের নিচের অংশে আসামি হিসেবে কামাল হোসেনের নাম লেখা রয়েছে।


কুমিল্লার যে মাদক মামলার রায়ে কামাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, ওই মামলায় কামাল হোসেন নামে কোনো আসামিই নেই। আর ২০০৯ সালের ২১ এপ্রিল ঘটনার সময় কামাল হোসেন দক্ষিণ কোরিয়ায় ছিলেন। নয় দিন কারাভোগের পর কামাল হোসেন কুমিল্লার যুগ্ম জেলা জজ দ্বিতীয় আদালত থেকে জামিন পান।


আদালত কামালের হোসেনের জামিনের আদেশে উল্লেখ করেন, 'কামাল হোসেন নামে কোনো আসামি এই মামলায় নেই। জামাল হোসেনের নাম ওভাররাইটিং করে কামাল হোসেন করা হয়েছে।' বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেন আদালত।


বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবে ঘটনার শিকার কামাল হোসেন সংবাদ সম্মেলন করে সদর মডেল থানা পুলিশের বিরুদ্ধে তাকে পরিকল্পিতভাবে হয়রানির অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, জামালের নামের আদ্যক্ষর 'জ' এর স্থলে ঘষামাজা করে 'ক' লিখে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারের সময় সদর মডেল থানা পুলিশ তার কাছে শুধু তার নাম ও বাবার নাম জানতে চেয়েছে। গ্রেপ্তারি পরোয়ানার কোনো কাগজ দেখায়নি।


অভিযোগের বিষয়ে সদর মডেল থানার ওসি শাহ জামান বলেন, এমনটা হওয়ার কথা নয়। কেন হয়েছে, সেটি তিনি খতিয়ে দেখবেন।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম বলেন, এ বিষয়ে এখনও তিনি আদালতের চিঠি বা আদেশ পাননি। চিঠি পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন