সদ্য সংবাদ

  সাত টাকায় চিকিৎসা দেবে গণস্বাস্থ্য: ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী   জিম্বাবুয়ের কাছে হারলো বাংলাদেশ   চট্টগ্রামে গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগে চিকিৎসক গ্রেপ্তার  স্বামীর অশ্লীল ভিডিও নিয়ে যা বললেন শিল্পা  ‘কঠোর লকডাউনে কারো পৌষ মাস কারো সর্বনাশ’   ভারতে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে মুসলিম ছাত্রীর ইতিহাস   না.গঞ্জে কঠোর বিধি-নিষেধ বাস্তবায়নে মাঠে প্রশাসন  অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিড টিকা নিলে আজীবন সুরক্ষা!  বিক্রি করতে না পেরে চামড়ায় সয়লাব রাস্তা, উৎকট গন্ধ  নতুনধারার মাস্ক ও স্যানিটাইজার কেন্দ্র উদ্বোধন   সাংবাদিক রিজভী আহমেদের উপর সন্ত্রাসী হামলা!   জাহেদী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে গরীব ও দুস্থদের মাঝে মাংস ও টাকা বিতরণ  সাগরে লঘুচাপ, সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত  পদ্মা সেতুর পিলারে ধাক্কা, ফেরির মাস্টার বরখাস্ত  যুবলীগ নেতা আকবর আলীর ঈদ শুভেচ্ছা  মুসলিম রীতিতে বিয়ে করে বিপদে ভারতীয় ক্রিকেটার   চীন থেকে রাতে আসছে আরও ২০ লাখ সিনোফার্মের টিকা  সাঘাটায় বন্যার আশঙ্কায় পাট কাটতে ব্যস্ত চাষীরা   আড়াইহাজারে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু  আড়াইহাজারে ডাকাত সন্দেহে ৭জনকে গণপিটুনী

সাঘাটায় বন্যার আশঙ্কায় পাট কাটতে ব্যস্ত চাষীরা

 Sat, Jul 17, 2021 8:58 PM
সাঘাটায় বন্যার আশঙ্কায় পাট কাটতে ব্যস্ত চাষীরা

সাঘাটা (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ: গাইবান্ধার সাঘাটায় চলতি মৌসুমে পাটের বাম্পার ফলন হলেও

 নেই কৃষকের মুখে হাসি। বন্যার আশঙ্কায় পাট পরিপক্ক না হতেই বাধ্য হয়ে পাট কাটায় বিপাকে পড়েছেন । ভালো দাম না পেলে লোকসানের মুখে পড়বেন। সাঘাটা উপজেলায় গত বছর পাটের  দাম বেশি পাওয়ায় চাষিরা এ মৌসুমে যে যেখানে একটু জায়গা পেয়েছেন, সেখানেই পাটের আবাদ করেছেন। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার পাটের ফলন ভালো হওয়ায় চাষীদের মুখে হাসি ফুটেছে, মাঠে মাঠে দোল খাচ্ছে কৃষকের সোনালী সপ্ন । কিন্তু বিধিবাম বন্যার আশঙ্কায় নদীর পার্শ্ববর্তি এবং চরাঞ্চলে আবাদকৃত পাট কাটতে শুরু করেছেন কৃষকরা । নিচু জমি, চরাঞ্চল এবং নদীর কাছাকাছি জমিতে ইতিমধ্যে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে, কিছু কিছু পাট ক্ষেত ডুবে গেছে। নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায়  রবি ফসল তলিয়ে গেছে। গত বছরের বন্যায় পাটের ব্যাপক ক্ষতি হওয়ায় এবার আগে ভাগেই পাট কাটছেন তারা।  বন্যার আশঙ্কায় সাঘাটা ইউনিয়নের সাথালিয়া সহ কয়েকটি গ্রামের চাষিরা তড়িঘড়ি করে সময়ের আগেই পরিপক্ক না হতেই পাট কাটা শুরু করেন।  করোনা সংকটে লক ডাউন এ কাজ কর্ম না থাকায় তাদের কাছে টাকা নেই,   শ্রমিক নিতে না পেরে নিজেরাই পরিবারের সদস্যদের সাথে নিয়ে জমির পাট কেটে জাঁক ও পঁচানোর কাজে ব্যস্ত সময়  পার করছেন।  বর্তমানে নদীর পানি কমতে  থাকলেও শঙ্কা কাটছে না তাদের মনে। চাষীরা জানান, বিঘা প্রতি পাট চাষে ৬ থেকে ৭ হাজার টাকা খরচ হয়। এ পাট পরিপক্ক হতে বপন থেকে ৪ মাষ সময় লাগে। পাট পরিপক্ক হলে ১০ থেকে ১২ মণ পাট উৎপাদন হয়। এবার পরিপক্ক না হওয়ায় বিঘা প্রতি ৩ থেকে চার মণ পাট কম পাওয়া যাবে। ফলন এবং ভালো দাম পেলে লাভ হবে  এমনটাই আশা করছেন চাষীরা। উপজেলা পাট অধিদপ্তর উপ-সহকারী মোঃ জাকারিয়া বলেন, ‘এ বছর উপজেলায় ২ হাজার ৪শ কৃষকের মাঝে সার ও পাটের বীজ বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে। সরকারি সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে আগামীতে কৃষকদের পাট চাষমুখী করতে আরও বেশি কৃষকের মাঝে সার ও বীজ দেয়া হবে। উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ সাদেকুজ্জামান  জানান, এ বছর ৩ হাজার ৬শ ৩৫ হেক্টর জমিতে পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে । এবারে রবি-১, তোষা পাট-৮ জাত বেশি আবাদ করেছেন কৃষকরা। আশা করছি আবহাওয়া অনুকুল থাকলে পাটের বাম্পার ফলন হবে।


Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন