সদ্য সংবাদ

 লাগাম টানা যাচ্ছে না সিন্ডিকেটের, দিশেহারা ভোক্তারা  কাশ্মীরে বন্দুকযুদ্ধে ৫ বিদ্রোহী নিহত  ব্যবসা নাই তবুও কোটি কোটি টাকার মালিক : আইভী  স্ত্রী-ছেলেসহ ডিবি কার্যালয়ে মুসা বিন শমসের   সিদ্ধিরগঞ্জে কাউন্সিলর প্রার্থীর পোষ্টার লাগাতে বাধা, মারধর  শাহরুখপুত্রকে গ্রেফতার করা সেই কর্মকর্তা নজরদারিতে   হাসপাতালে ভর্তি খালেদা জিয়া   করোনায় আক্রান্ত শিক্ষকের বেতন কাটলো দুর্নীতিগ্রস্ত জহিরুল হকের কমিটি   ছিনতাই ও খুনি চক্রের ৬ জনকে গ্রেপ্তার করছে পিবিআই নাঃগঞ্জ   খুনি নূর হোসেনের ভাতিজা বাদল ভালো, মেয়র আইভী ব্যর্থ!   সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতারে অনুমতির বিধান কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট  বাড়ি ভারতে, অফিস করেন সিলেটে  আবারও ষড়যন্ত্র হচ্ছে: ওবায়দুল কাদের   ই-কমার্সের প্রতারনায় ভুক্তভোগী বাণিজ্যমন্ত্রী  সাবেক প্রতিমন্ত্রী মান্নান খান ও তার স্ত্রীর বিচার শুরু   ১০ হাজার ৫০০ শ্রমিককে ভিসা দেবে যুক্তরাজ্য  দেবীগঞ্জে বাসর রাতে পাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু  ‘চুনকা কুটির নয়, আইভীর হোয়াইট ওয়াশের জ্বালা বিরোধী পক্ষ  বিয়ের পর আমাদের বন্ধুত্ব গাঢ় হচ্ছে: মাহি  বাংলাদেশে কেউ ভালো নেই : মির্জা ফখরুল

যে ব্যক্তি স্ত্রীকে মায়ের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেবে তার উপর আল্লাহর লা’নত।

স্ত্রীকে মায়ের উপর প্রাধান্য দেওয়ার পরিণাম . . .

 Fri, Jul 14, 2017 11:59 AM
 যে ব্যক্তি স্ত্রীকে মায়ের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেবে তার উপর আল্লাহর লা’নত।

ডেস্ক রিপোর্ট : : হযরত আলকামা রা. খুবই প্রসিদ্ধ সাহাবি ছিলেন। মৃত্যুকালে তার স্ত্রী মহানবী সা. এর কাছে এসে বললেন,

 ইয়া রাসুলাল্লাহ! আমার স্বামী খুবই অসুস্থ। মনে হয় আর বাঁচবে না। নূরানী জবানে কালেমার তালকিন পাঠ এবং দোয়া করে দিন। হয়ত তাঁর মৃত্যু যন্ত্রণা সহজ হতে পারে।


মহানবী সা. হযরত আলী, হযরত সালমান ফারসী ও হযরত বেলাল (রা.) কে আদেশ দিলেন, তোমরা গিয়ে দেখ আলকামার কি অবস্থা। সাহাবিরা গিয়ে হযরত আলকামাকে বললেন, কালেমা পড়ুন!


সাহাবি আলকামা রা. কালেমা পড়তে পারছিলেন না। হযরত আলী রা. বুঝতে পারলেন তার আর বেশি সময় নেই। অবস্থা খারাপ দেখে তিনি হযরত বেলাল (রা.) কে হুজুর সা. দরবারে সংবাদ দিয়ে পাঠালেন। হযরত বেলাল (রা.) গিয়ে হুজুর সা.কে আলকামার অবস্থা খুলে জানালেন। আমরা কালেমা শরীফের তালকীন করেছি। কিন্তু তিনি পড়তে পারছিলেন না।


হুজুর সা. জানতে চাইলেন, তার মা বাবা কি বেঁচে আছেন? হযরত বেলাল রা. বললেন, তাঁর বাবা নেই, মা বেঁচে আছেন। অবশ্য বয়সের ভারে দুর্বল হয়ে ঘরে অবস্থান করছেন। হুজুর সা. বললেন, তুমি গিয়ে আলকামার মাকে বল আমার কাছে আসা সম্ভব হবে কিনা? যদি না হয় আমি এখনই তার কাছে যাব। সংবাদ পেয়ে আলকামার মা লাঠি হাতে এসে মহানবীর দরবারে এসে পৌঁছলেন এবং সালাম জানালেন।

আল্লাহর হাবিব তার সালামের জবাব দিয়ে বললেন, তোমার ছেলে আলকামা কেমন ছিল? খবরদার! মিথ্যা বলার চেষ্টা করবেন না। মহান আল্লাহ তায়ালা আমার কাছে ওহি দিয়ে তা প্রকাশ করে দেবেন।


আলকামার মা বললেন, তার চরিত্র আচরণ খুবই শালীন। ইবাদত গুজার, রোজাদার, দানশীলতায় তাঁর মত আদর্শ মানুষ খুব কমই আছে।

রাসুল সা. বললেন, কিন্তু তোমার সাথে কেমন আচরণ করেছিল? উত্তরে বললেন, হুজুর! আমি তার প্রতি সন্তুষ্ট নই। সে আমার চেয়ে তাঁর স্ত্রীর প্রতি গুরুত্ব বেশি দিত। আমাকে তার স্ত্রীর অনুগামী করে রাখত। এ একটি বিষয় ছাড়া সব বিষয় ঠিক ছিল।


রাসুল সা. ইরশাদ করেন, এ কারণেই তার মুখে কালেমার তালকীন আসছে না। হযরত বেলাল (রা.) কে নির্দেশ দিলেন, হে বেলাল! কাঠ সংগ্রহ করে আগুন জ্বালাও। অতঃপর আলকামাকে আগুনে নিক্ষেপ কর, তাকে জ্বালিয়ে ফেল। আলকামার মা বললেন, আমি মা হয়ে কিভাবে এ অবস্থা সহ্য করব। হুজুর সা. বললেন, হে আলকামার মা! মহান আল্লাহ তায়ালার আগুন এ আগুনের চেয়েও ভয়াবহ হবে। তুমি যদি তার প্রতি সন্তুষ্ট না হও এবং তাকে ক্ষমা না কর তাহলে তার ফরজ নফল কোনো এবাদতই আল্লাহর দরবারে কবুল হবে না।


একথা শুনে আলকামার মা বললেন, হে রাসুল সা. আপনি সাক্ষী থাকুন! আমার ছেলেকে ক্ষমা করে দিলাম এবং তার প্রতি আমি সন্তুষ্ট। রাসুল সা. হযরত বেলাল রা. কে বললেন, এখন গিয়ে দেখ আলকামার কি অবস্থা।


হযরত বেলাল রা. আলকামার ঘরের দরজার কাছে যেতেই শুনতে পেলেন তিনি উচ্চস্বরে পাঠ করছেন, “লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলাল্লাহ”। সেই দিনেই আলকামা রা. ইন্তেকাল করেন।


রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সংবাদ শুনেই ছুটে যান এবং গোসল, কাফন ও দাফন শেষে কবরস্থানে দাঁড়িয়ে সাহাবায়ে কেরামের উদ্দেশ্যে বলেন, হে আনসার ও মুহাজির! যে ব্যক্তি স্ত্রীকে মায়ের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেবে তার উপর আল্লাহর লা’নত। তার ফরজ ও নফল ইবাদত কিছুই কবুল হয় না। (বুখারী ও মুসলিম )

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement

আরও দেখুন